সংবাদটি প্রকাশ হয়েছেn: Wed, Feb 15th, 2017
bashundhara

অবজারভারের বিরুদ্ধে শামীম ওসমানের অধিকার ক্ষুন্নের নোটিশ সংসদে গ্রহণ

shamimবিশেষ প্রতিবেদক :  ব্যক্তিগত অধিকার ক্ষুন্নের অভিযোগ এনে ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলী অবজারভারের’ বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের সরকার দলীয় এমপি এ কে এম শামীম ওসমানের দেয়া নোটিশ গ্রহণ করেছে সংসদ। নোটিশটির বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার সংসদ অধিবেশনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বিষয়টি সংসদকে অবহিত করেন। ডেইলি অবজারভার ছাড়াও শামিম ওসমান প্রথম আলো এবং বাংলাট্রিবিউনের বিরুদ্ধেও নোটিশ আনেন। তবে বিধি অনুযায়ী শর্ত পূরণ না হওয়ায় তা সংসদ গ্রহণ করেনি।

ডেইলি অবজারভারের বিরুদ্ধে আনা নোটিশটি গ্রহণ করে স্পিকার বলেন, ব্যক্তি অধিকার ক্ষুন্ন সংক্রান্ত ৩টি নোটিশ সংসদে এসেছে। নোটিশ ৩টির মধ্যে প্রথমটি ডেইলী অবজারভার পত্রিকায় গত ২৩ জানুয়ারি প্রথম পৃষ্ঠায় চতুর্থ কলামে “Police await PM’s order to crack down on drug lord” শিরোনামে অসত্য ভিত্তিহীন কাল্পনিক খবর প্রকাশ করায় সংসদ সদস্যের পারিবারিক সামাজিক এবং রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন ও দেশ-বিদেশে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হওয়ায় তার সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে বলে বিশেষ অধিকার ক্ষুন্ন হওয়ার কথা তার নোটিশে উল্লেখ করেছেন।

দ্বিতীয়তটি দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় ২০১৪ সালের ১ জুন ‘আইনজীবীকে হত্যায় অনুতপ্ত র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তা’ শিরোনামে যে রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে তাতে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানকে জড়িত করে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন নোটিশদাতা। তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলকভাবে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করায় বিশেষ অধিকার ক্ষুন্ন করার অভিযোগ করেছেন। তৃতীয়ত বাংলাট্রিবিউন অনলাইন পত্রিকায় ২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর তার বাবাকে জড়িত করে রিপোর্ট করায় কার্যপ্রণালী বিধির ১৬৪ বিধিতে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করেছেন।

স্পিকার বলেন, তার তিনটি নোটিশের বিশেষ অধিকার ক্ষুন্ন হয়েছে বলে স্পিকারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ করেছেন। নোটিশ তিনটির বিষয় কার্যপ্রনালী বিধি অনুযায়ী পরীক্ষা করা হয়েছে। তার তিনটি নোটিশের মধ্যে দ্বিতীয় এবং তৃতীয়টি বিশেষ অধিকার সম্পর্কি বিধি ১৬৫(২) অনুযায়ী বিশেষ অধিকার প্রশ্ন উত্থাপনের শর্তাবলী পূরণ না হওয়ায় তা গ্রহণ করা সম্ভব হল না। প্রথম নোটিশটি কার্যপ্রনালী বিধির ১৬৯ বিধি অনুযায়ী বিশেশ অধিকার সম্পর্কি কমিটিতে পাঠানো হল।

দুটি নোটিশ গ্রহণ না করায় এরপর শামীম ওসমান বলেন, আপনি যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন, আমি মেনে নিয়েছি। তবে  প্রথম আলো, ডেইলী স্টার- এই পত্রিকা দুটি দেশে বিভিন্ন সময় সরকার পরিবর্তনে বিভিন্ন ভূমিকা রেখেছে। আপনি বলেছেন যেই সময় ঘটনা সংগঠিত হবে সেই সময় উত্থাপন করতে হবে। আমি একমত। কিন্তু যখন কোন বিষয় আদালতে বিচারাধীন থাকে সেই বিষয়ে কথা বলার সুযোগ থাকে না। যেহেতু আমরা আইন প্রণেতা সেই হিসেবে সেই সুযোগ আমার কাছে ছিল না। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল সেজন্যই ৩৮ মাস অপেক্ষা করেছি। তারা বিভিন্ন ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করেছে। আমি তাদের অনেক নোটিশ দিয়েছি একটিও গ্রহণ করেনি। তিনি বলেন, ডেইলী স্টার এবং প্রথমআলো ১/১১ সময় আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দুর্নীতিবাজ বানানোর চেষ্টা করেছে। তাহলে কি তারা কোথাও জবাব দেবে না?
সম্পাদনা : আ ই (জি-নিউজবিডি২৪ )

http://picasion.com/

আপনার মতামত দিন

XHTML: আপনি এই এইচটিএমএল ট্যাগ গুলো কমেন্টে ব্যবহার করতে পারবেন: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

সর্বশেষ আপডেট

আরকাইভ

February 2017
S M T W T F S
« Jan   Mar »
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728