সংবাদটি প্রকাশ হয়েছেn: Tue, Jun 12th, 2018
bashundhara

রাজাপুরে ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ, আতঙ্কে হাজারো মানুষ !

JKT Photo (1)মোঃ সাইফুল ইসলাম, রাজাপুর প্রতিনিধি (ঝালকাঠি) ঃ একটি ব্রিজের সংস্কারের অভাবে ভেস্তে যেতে বসেছে রাজাপুরের সাথে হাজারো মানুষের যোগাযোগ। ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার রাজাপুর সদর ইউনিয়নের পাড়গোপালপুর ও বারবাকপুর গ্রামের কোল ঘেঁসা একটি আয়রন ব্রিজ বিগত কয়েক বছর পূর্বে লোহার ভার এর এঙ্গেল গুলো খুলে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

এঙ্গেলগুলো খুলে নেওয়ার কারণে ব্রিজটি এখন খুবই ঝুকিপূর্ণ। ব্রিজটি দিয়ে প্রতিদিন বাড়ী যানবাহন চলাচল করায় ব্রিজটি যদি কোন একদিক হেলে পরে তাহলে যোগাযোগে বিড়ম্বণায় ওই এলাকা সহ পাশ্ববর্তী কয়েক হাজার মানুষ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়, উপজেলার রাজাপুর সদর ইউনিয়নের পাড়গোপালপুর ও বারবাকপুর গ্রামের ৭ ও ৮নং ওয়ার্ডের মনোহরপুর থেকে লেবুবুনিয়া গ্রামের আয়রন ব্রিজটির খুব নিকটেই অবস্থিত ১টি প্রাথমিক ও ১টি মধ্যমিক বিদ্যালয়। প্রতিদিন ওই এলাকার স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থী, শিশু, অসুস্থ্যরোগী, বৃদ্ধ-বৃদ্ধাসহ প্রায় পাঁচ সহ¯্রাধিক মানুষ প্রত্যহ যাতায়াত করে। ব্রিজটি ঐ এলাকার লোকজনদের রাজাপুর উপজেলা শহরে যাতায়াতের একমাত্র ব্রিজ। যদি অন্যদিক থেকে রাজাপুর শহরে আসতে হয় তবে কিলোমিটার পথ ঘুরে আসতে হয়।

বিগত ৪-৫ বছর যাবত ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ, এমনকি ব্রিজ সংলগ্ন প্রায় ৪ কিলোমিটার রাস্তাটি পাকা হলেও বাড়ী যানবাহন চলাচলের ফলে রাস্তার অনেকাংশে গর্ত হয়েছে। বিশেষ করে বর্ষা সৌসুমে পাকা রাস্তাটিতে গর্ত হয়ে থাকে। ফলে ওই এলাকার জনসাধারণের যাতায়াতে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বর্তমানে ব্রিজটির নিচের লোহার এঙ্গেলগুলো দুর্বৃত্তরা নিয়ে যাওয়ায় ওই গ্রামের স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থী, শিশু, বৃদ্ধ-বৃদ্ধাসহ জনসাধারন আতঙ্কে রয়েছে। কেননা ব্রিজটি যে কোন সময় একদিকে হেলে পড়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনা।

এলাকাবাসী আতঙ্কের কথা স্বীকার করে বলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে একাধিক বার ধর্ণা দিয়েও কোন কাজে আসেনি।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও রাজাপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মৃধা মজিবর বলেন, ইতিমধ্যে রাজাপুর, লেবুবুনিয়া, সাতুরিয়া ও হালদারখালি রাস্তাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা হওয়ায় রাস্তাটি আরও চওড়া করার জন্য একটি প্রজেক্টে দেওয়া হয়েছে। রাস্তারটির মধ্যে যে আয়রন ব্রিজগুলো আছে সেগুলো পুনঃনির্মাণ বা সরিয়ে নতুন ব্রিজ নির্মানের জন্য প্রকল্পে দেওয়া হয়েছে। আয়রন ব্রিজগুলো নির্মানের জন্য সার্ভে চিঠি আমি ইতিমধ্যে এলজিইডি কর্মকর্তার হাতে দিয়ে এসেছি। আসাকরি ৬মাসের মধ্যেই অনুমোদন পাওয়া যাবে। অনুমোদন পাওয়ার সাথে সাথেই অতিব দ্রুত কাজ শুরু করা হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা এলজিইডি কর্মকর্তা লুৎফর রহমান জানান, রাজাপুর থেকে লেবুবুনিয়া রাস্তাটির মধ্যে যে আয়রন ব্রিজগুলি আছে তা ইতিমধ্যে পুনঃনির্মানের জন্য প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। আসাকরি কয়েক মাসের মধ্যেই অনুমোদন পাওয়া যাবে।

এদিকে এলাকাবাসির দাবি অতি দ্রুত ব্রিজটি পুনঃনির্মানের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দৃষ্টি কামনা করেন।
সম্পাদনা : আ ই (জি-নিউজবিডি২৪ )

সর্বশেষ আপডেট

আরকাইভ

June 2018
T F S S M T W
« May   Jul »
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930