সংবাদটি প্রকাশ হয়েছেn: Mon, Jul 2nd, 2018
bashundhara

মাগুরা সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে জমি রেজিষ্ট্রিতে জালিয়াতী বছরে ৬০ কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি তদন্ত প্রতিবেদন মন্ত্রনালয়ে

image-51304-1526812968সাইদুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধি মাগুরা : জমির শ্রেনী পরিবর্তন দেখিয়ে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে কম মূল্যে  দলিল রেজিষ্ট্রি  করায় প্রতি মাসে মাগুরা সাব রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে সরকার ৫ কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। সে হিসেবে বছরে  ৬০ কোটি টাকার রাজস্ব হারায় সরকার।

মাগুরা সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ তদন্ত করতে যেয়ে এ ধরনের একাধিক জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে কমমূল্য দেখিয়ে রেজিষ্ট্রির প্রমান পাওয়া গেছে। দ্বৈব চয়ন পদ্বতিতে যাচাই করা তদন্তে কমপক্ষে ৪টি দলিলেই এ ধরনের  জালিয়াতির  তথ্য উঠে এসেছে বলে গোপন সুত্রে জানা গেছে। এ বিষয়টি ইতিমধ্যে আইন মন্ত্রনালয়েকে লিখিত ভাবে অবগত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

মাগুরা রেজিষ্ট্রি অপিস সংশিল্ট বেশ কিছু  সুত্র  নাম প্রকাশ না করার স্বার্থে  জানায়, মাগুরা সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে প্রতি মাসে প্রায়  ১ হাজার দলিল রেজিষ্ট্রি হয়। এ সব দলিলের একটি বড় অংশের ই শ্রেনী পরিবর্তন করে রেজিষ্ট্রি করা হচ্ছে। অনেক জমিতেই সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে কম মূল্য দেখিয়ে দলিল রেজিষ্ট্রি করায় প্রতি মাসে ৫ কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। সে হিসেবে বছরে ৬০ কোটি টাকার রাজস্ব হারায় সরকার। এ ধরনের দলিল তৈরীতে  কোটি টাকার  অবৈধ লেন দেনের সাথে সংশ্লিষ্ট সাব রেজিষ্টার, এক শ্রেনীর দলিল লেখক ও সাব রেজিষ্ট্রি নঅফিসের একটি শক্তিশালী চক্র জড়িত  থাকার  অভিযোগ রয়েছে।

মাগুরা সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের বিরুদ্ধে  একটি অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে দেখা যায় সরকারি হিসেবে মাগুরা শহরের পারনান্দুয়ালী মৌজার ধানি শ্রেনীর প্রতি শতক জমির মূল্য ১ লাখ ৪ হাজার ৪৪৭ টাকা।  সম্পতি ঐ মৌজার  ৮ শতক ধাণি জমিকে পুখুর শ্রেনী উল্লেখ করে ৪৪৮৬/১৭ নম্বও দলিলে প্রতি শতক বিক্রি লেখা  হয়েছে মাত্র ৫ হাজার ৮১৬ টাকা। সে হিসেবে একমাত্র  ঐ দলিল থেকেই  সরকার রাজস্ব হারিয়েছে ৫ লাখ ৯১ হাজার ৬৮২ টাকা। এ ধরনের দলিল তৈরীতে  কোটি টাকার অবৈধ লেনদেনের সাথে সাব রেজিষ্টারসহ এক শ্রেনীর দলিল লেখক সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট জড়িতরয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

মাগুরার সাব রেজিষ্টার আলী আকবর  তার বিরুদ্ধে অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, সংশ্লিষ্ট প্রতিটি কাগজের সাথে মিল রেখেই দলিল করা হয়। তবে অনেক ক্ষেত্রে এস এ পর্চা ও আর এস পর্চা ভিন্নতার কারণে  শ্রেনী নিয়ে দু একটি ক্ষেত্রে বত্যয় দেখা দেয়ার সম্ভাবনা থাকে। মাগুরার জেলা প্রশাসক মোঃ আতিকুর রহমান জানান, অভিযোগ পেয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে একটি তদন্ত পরিচালনা করা হয়। উক্ত তদন্ত রিপোর্ট আইন মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে।
সম্পাদনা : আ ই (জি-নিউজবিডি২৪ )

bashundhara
The Most Shocking Kim K's Bikini Body Photos

সর্বশেষ আপডেট

আরকাইভ

July 2018
S M T W T F S
« Jun    
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031