সংবাদটি প্রকাশ হয়েছেn: Fri, Aug 10th, 2018
bashundhara

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পর পূনরায় দখলের চেষ্টায় নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ দায়ের

Ovijogমো. রুহুল আমিন বুলু, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামে আঃ মালেক শেখ নামের এক ভূমিগ্রাসী চন্দনা নদীর তীরে অবস্থিত শথ বছরের পুরানো হিন্দু সমাজের মরদেহ দাহ করবার স্থান মহাশ্বসান ঘাটটি দখল করে অবৈধভাবে পাকা স্থাপনা নির্মান  করেছে।

এর প্রতিবাদে নারায়ণপুর গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের সকল মানুষ একত্র হয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দিলে উপজেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে গত ৩১ জুলাই সেখান থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

এর প্রেক্ষিতে নীল মালেক বাদী হয়ে গত ২ আগষ্ট রাজবাড়ী ১নং আমলী আদালতে ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল হোসেন খান, ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার শ্রী নিবাস মজুমদারসহ ১০জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে। আদালতে মামলা নং মিসপি ২০২/১৮। ধারা- ১৪৩/৩২৩/৩০৭/৩৫৪/৩৮৬/৩৮৭/৩৪ দ.বি.। ৮/৩৮০/৩৭৯ দ. বি.। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবরে প্রেরণ করেছেন।

জানা যায়, নারায়নপুর মৌজার চন্দনা নদীর তীর ঘেষে সম্প্রতি কোন প্রকার সরকারী অনুমোদন ছাড়াই তার পেশি শক্তি দিয়ে শক্ত পোক্ত করে কংক্রিটের পাকা স্থাপনা তৈরী করে। যেখানে এই স্থাপনাটি নির্মান করে সেটি আসলে শত শত বছর ধরে এই এলাকার হিন্দু সসম্প্রদায়ের মৃত দেহ সৎকারের শ্বশান হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

অথচ প্রতারক মালেক সরকারী সম্পত্তিতে এলাকার কিছু সংখ্যক লোভী ও কু-চক্রী লোকের সঙ্গ নিয়ে তার ক্ষমতা দেখাতে পানি উন্নয়ন বোডের এই জায়গাটিতে ৫টি রুমের নকশা করে স্থাপনা নির্মাণ করে। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি প্রিন্ট মিডিয়ায় এই সংবাদটি প্রকাশ হলে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন সরকারী সম্পত্তি কব্জায় নিতে কথিত আওয়ামী লীগ কর্মী শতশত অপকর্মের হোতা কু-চক্রী নীল মালেকের নির্মাণ করা স্থাপনাটি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে বালিয়াকান্দি সহকারী কমিশনার ভূমি মো. তায়েব-উর- রহমান আশিক নারায়নপুর এবং আশপাশের সাধারন মানুষের সহযোগীতায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানের সময় অভিযান পচিালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও বালিয়াকান্দি সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর নিকট থেকে নীল মালেকের পক্ষে তার বড় ছেলে মেহেদী হাসান ৭ (সাত) দিনের সময় চেয়ে নেন। তিনি ঐ সময় বলেন আমি আমার বাবর সঙ্গে আলাপ করে ৭ (সাত) দিনের মধ্যে এই স্থান থেকে সব কিছু সরিয়ে নিয়ে সরকারের জায়গা খালি করে দেব। কিন্তু হয়েছে তার উল্টো। পরদিন কু-চক্রী নীল মালেক তার দোসরদের সঙ্গে আলাপ করে রাজবাড়ী আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। তিনি মামলায় উল্লেখ করেছেন তার ঘরে বেশ অনেক টাকার কম্পিউটার মালামাল ছিল।

এলাকার অনেকেই বলেন, এই ঘরটিতে কিছুদিন মেহেদী পান-বিড়ির দোকান করতো। পরে সেটা ছেড়ে দিয়ে ঘরটিতে তালাবন্ধ করে রেখেছে। উক্ত ঘরে কোন কম্পিউটার সামগ্রী ছিলনা। এবং মামলায় যে জায়গার বিবরন দেওয়া হয়েছে সেটাতে তার বসত বাড়ী বিদ্যমান। আর সরকারী ভাবে যে জায়গাটি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে সেটার মালিক বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান এই জায়গাটি কোন প্রকারে লিজ বা বন্দবস্ত দেওয়া হয়নি। মালেক শেখ তার পেশি শক্তির বলে আমাদের জায়গাটি জবর দখল করেছে।

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন এটি দখলমুক্ত করতে অভিযান পরিচালনার সময় আমরা উপস্থিত ছিলাম। মালেকের পক্ষে তার ছেলে ৭ (সাত) দিনের মেধ্য সবকিছু সরিয়ে নেওয়ার কথা বললেও সেখান থেকে কোন কিছুই সরেনি। এব্যাপারে নারায়ণপুর এলাকার হিন্দু সম্প্রদায় জেলা প্রশাসকের নিকট পুনরায় জবর দখলের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিবেন বলে জানান।

জবর দখলকৃত জায়গাটি থেকে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন উচ্ছেদ করার পর গত ৬ আগষ্ট স্থানীয় জনৈক আমিনকে নিয়ে গিয়ে জায়গাটি মেপে গত ৭ আগষ্ট সেখানে বাঁশ দিয়ে শক্ত করে বেড়া স্থাপন করেছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুম রেজা জানান, আমি শুনেছি-বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। নীল মালেক বলেন, আমি উপর থেকে অর্ডার নিয়ে এসেছি।
সম্পাদনা : আ ই (জি-নিউজবিডি২৪ )

সর্বশেষ আপডেট

আরকাইভ

August 2018
T F S S M T W
« Jul    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031