1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:৩৯ অপরাহ্ন

কুড়িগ্রামের মানুষ বন্যায় ভাল নেই এ যেন “মরার উপর ক্ষরার ঘা “

মোঃ সহিদুল আলম বাবুল, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি :
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০
  • ২২ বার পঠিত

কুড়িগ্রামে প্রথম দফায় প্রায় দশ দিন পানি বন্দি থাকার পরপরই দ্বিতীয় দফায় আবারো বন্যার কবলে প্রায় পাঁচ লক্ষ্য মানুষ । একই মৌসুমেই দুই দুইবার বন্যা। কাজেই ভাল নেই উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামের মানুষ। একদিকে করোনার জ্বালা, তার উপর দুই দুইবার বন্যা। এই বন্যার কারণে জেলার অধিকাংশ মানুষই কষ্টে আছে। খেটে খাওয়া মানুষগুলো আছে সীমাহীন দূর্ভোগে।

খেটে খাওয়া মানুষগুলোর মধ্যে সব চেয়ে কষ্টে আছে রবিদাস, হরিজন তথা দলিত সম্প্রদায়ের মানুষগুলো। তাদের এমনিতেই কোন সঞ্চয় নেই। তার উপর চলছে করোনা, আবার এরই উপর দুই দুইবার বন্যা। অর্থাৎ ‘মরার উপর খরার ঘাঁ’।

সদর উপজেলার মন্নেয়ার পাড়ের চাঁন লাল রবিদাস এর সাথে কথা বলে জানা গেছে, আসলে কত কষ্টে আছে রবিদাস সম্প্রদায়ের মানুষজন। তাদের বাড়ির পাশের বড় রাস্তাটি দিয়ে পানির স্রোত বইছে। চুলা বসানোর জায়গা নেই। পাশে একটা উচুঁ জায়গায় কোন রকমে সবাই মিলে বসবাস করছে। ঘরে খাবার নেই, টাকা নেই, আবার কোন ত্রাণ সহায়তাও পাননি। ফলে চরম মানবেতর জীবনযাপন করছে।

একই রকম কষ্টে আছে উপজেলার বোয়ালেরডারা, বেরুবাড়ি, মাদারগঞ্জ, কচাকাটা, গাবতলা, ধারিয়াহাট, ঘোগাদহ, ভিতরবন্দ, হাসনাবাদ, কালার চর, কাৎনার চর, নারায়ণপুর, নুনখাওয়া, কালীগঞ্জ, সুখাতি, নাগেশ্বরী, কুমোরপুর, ডিগ্রির চর, পাখির হাট, ভুরুঙ্গামারী, বাঁশজনি, সন্তোষপুর, নাখারগঞ্জ, ব্যাপারীর হাট, উলিপুরের থেতরাই, বজরা, বুড়াবুড়ি, হাতিয়া, বেগমগঞ্জ, সাহেবের আলগা, রৌমারী, রাজীবপুর, ফুলবাড়ি, চিলমারী উপজেলাসহ কুড়িগ্রামের মানুষগুলো।

এছাড়া উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের কামারটারী গ্রামে অন্যান্যদের পাশাপাশি শুকলাল রবিদাস, গনেশ রবিদাস,খুশিলাল রবিদাস, দীপলাল রবিদাস, রুপলাল রবিদাস, কেনুলাল রবিদাস, মতিলাল রবিদাস, মনজুরি রবিদাসসহ ২৪ টি রবিদাস পরিবার বসবাস করতো, নদী ভাঙ্গনের কারণে তাদের ১৬ জনের বাড়ি বিলিন হয়ে গেছে।

বর্তমানে কুড়িগ্রামের ৯ টি উপজেলার ৫৬ টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। ধরলা নদীতে ১০০ সে.মি., ব্রহ্মপুত্রতে ৬২ সে.মি. এবং তিস্তায় ১৫ সে.মি. বিপৎসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। প্রায় ৫ লক্ষ মানুষ পানিবন্ধি হয়ে পরেছে।

তাদের পাশে দাঁড়ানোটা এখন সব চেয়ে বেশি জরুরি। বিশেষ করে শুকনা খাবার, মোমবাতি বা টর্চ লাইট দিয়ে তাদের সহায়তা করা এখন জরুরি। ভুক্তভোগীরা সমাজের বিত্তবানদের প্রতি মানবিক আবেদন জানিয়েছেন, এই দুঃসময়ে সহায়তার হাত বাড়িয়ে তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451