1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:২৯ পূর্বাহ্ন

গাইবান্ধায় দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় তাপদাহ স্থবির হয়ে আছে পানি জনদূর্ভোগ চরমে

সিরাজুল ইসলাম রতন, গাইবান্ধা প্রতিনিধি :
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট, ২০২০
  • ১৯ বার পঠিত

গাইবান্ধা জেলায় ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘটসহ সবগুলো নদীর পানি এখনও বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অন্যদিকে তাপদাহ চলছে ফলে জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হলেও বন্যা উপদ্রুত এলাকায় মানুষের ঘরবাড়ি থেকে এখনও পানি নেমে যায়নি। ফলে বন্যার কারণে বাঁধসহ বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় গ্রহণকারি বন্যার্ত লোকজন তাদের গরু ছাগল নিয়ে বাড়িতে ফিরে যেতে পারছে না।

কারণ বিশেষ করে চরাঞ্চলে কাঁচা ঘরবাড়ি দীর্ঘদিন পানিতে নিমজ্জিত থাকায় অধিকাংশ বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অপরদিকে পানি কমতে থাকায় বন্যার্ত মানুষের মধ্যে হাত ও পায়ে চুলকানিসহ নানা ধরণের চর্মরোগ দেখা দিয়েছে। আর জেলার অন্যান্য নদ নদী গুলোতে পানি এখনো বিপদ সীমার উপরে রয়েছে ।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, জেলার সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা, সাদুল্যাপুর, গোবিন্দগঞ্জ ও সদর উপজেলাসহ ৬টি উপজেলার ৪৪টি ইউনিয়নে বন্যা কবলিত হয়েছে। বন্যার কারণে ৩৫ হাজার ৫৫১টি পরিবারের ২ লাখ ৫০ হাজার ৭৮৬ জন মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এদিকে জেলা ত্রাণ দপ্তর জানিয়েছে, এ পর্যন্ত বন্যার্তদের মধ্যে ৫১০ মে. টন চাল, ৩০ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও ৫ হাজার ৬৫০ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, মঙ্গলবার ব্রহ্মপুত্রের পানি এখনও বিপদসীমার ২২ সে.মি. এবং ঘাঘট নদীর পানি বিপদসীমার ৫ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে গত ৪ আগস্ট মঙ্গলবার জেলার সার্বিক বিষয়ে বন্যার খোজখবর নিতে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মানিত সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার গাইবান্ধা জেলার নদী ভাঙ্গন ও বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন, বন্যার্তদের সাথে কথা বলেন এবং ফুলছড়ি উপজেলার ফজলুপর ইউনিয়নের কাইয়াবাদ চরে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

এসময় জেলা প্রশাসক আবদুল মতিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফুলছড়ি, চেয়ারম্যান, ফজলুপুর ইউপি ও নির্বাহী প্রকৌশলী, পাউবোসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, বরাদ্দে তুলনায় চাহিদা বেশী হলেও জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশ ,গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা ব্যাপক ভাবে কাজ চলমান রাখলেও খাদ্য চাহিদা পূরুন না হওয়ায় খাদ্য সংকট ও বিশুদ্ধ পানি সংকট রয়েছে। দেখা দিয়েছে পানি জনিত রোগ বালাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451