1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭:২০ পূর্বাহ্ন

খুলনার রূপসায় চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরির মহোৎসব

গাজী যুবায়ের আলম, ব্যুরো প্রধান, খুলনা ঃ
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৭ বার পঠিত

খুলনায় চুলি¬তে কাঠ পুড়িয়ে চলছে কয়লা তৈরির মহোৎসব। পরিবেশ অধিদপ্তরের লাইসেন্স ছাড়াই চালানো হচ্ছে এ ব্যবসা। সরকারি নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে বহাল তবিয়তে অবৈধভাবে চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে এ ব্যবসা।

কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরির সময় যে ধোঁয়া বের হচ্ছে তখনই বেড়ে যাচ্ছে ওইসব অঞ্চলে কার্বন-ডাই অক্সাইডের মাত্রা। ফলে যেকোনো সময় শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে ভুগতে পারে সাধারণ মানুষ। এমন মন্তব্য করেছেন ভুক্তভোগী এলাকার সচেতন মহল। আজ সোমবার সকালে সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, খুলনার রূপসা উপজেলায় অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে শতাধিক চুল্লি।

এসব চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে তৈরি হচ্ছে কয়লা। পরিবেশ অধিদপ্তরের লাইসেন্স ছাড়াই বছরের পর বছর চালানো হচ্ছে এ ব্যবসা। রূপসা উপজেলার আইচগাতী, নৈহাটী ও শ্রীলফতলা ইউনিয়নের একাধিক স্থানে গড়ে উঠেছে চুল্লি। আইচগাতী ইউনিয়নের শোলপুর এলাকায় কয়লা ব্যবসায়ী মোঃ আজাদের ৪টি চুল্লি রয়েছে। সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে প্রায় এক যুগধরে তিনি বহাল তবিয়তে চালিয়ে এ ব্যবসা। একই এলাকায় এ বছর গড়ে উঠেছে মোঃ রনির ৪টি চুল্লি। বর্তমানে তার চুল্লি তৈরির কাজ চলছে।

একই এলাকায় গড়ে উঠেছে মোঃ সাকুরুল ইসলাম ওরফে বড় মিয়ার ৪টি চুল্লি। প্রায় ৩ বছর ধরে তিনি এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। ওই এলাকায় মোঃ কবির ও মোঃ সেলিমের ২টি চুল্লি রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে তারা যৌথভাবে এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। রূপসার নৈহাটী ইউনিয়নে শ্রীরামপুর বিলের আঠারোবেঁকী নদীর কোল ঘেষে রয়েছে ওয়াপদা ভেড়ীবাঁধ। আর এ ওয়াপদা ভেড়ীবাঁধের তীরে গড়ে উঠেছে ৬টি চুল্লি।

এসব চুলি¬র মধ্যে শ্রীরামপুর এলাকার মোঃ শহিদ হাওলাদারের রয়েছে ৪টি চুলি¬। এ চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করতে সুন্দরবন থেকে নৌকা/ট্রলারে করে আনা হয় বিভিন্ন ধরনের কাঠ। যখন কাঠের নৌকা/ট্রলার খালাস করা হয় তখন ওয়াপদা রাস্তার পাড় ভেঙে যাচ্ছে। সেখানে দেখানে দিয়েছে বড় ধরনের ভাঙন। আর এ ভাঙনে ওয়াপদা রাস্তাটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। চুল্লি টি স্থাপন করা হয়েছে শ্রীরামপুর বিলের মধ্যে। ফলে হুমকিতে রয়েছে ওই এলাকার শত শত কৃষক।

কৃষকদের দাবি অচিরেই চুল্লি গুলো বন্ধ করা না হলে প্রবল জোয়ারে যেকোনো সময় ভেড়ীবাঁধটি ভেঙ্গে প¬াবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ওই এলাকায় জিয়া হাওলাদার গড়ে তুলেছে ২টি চুল্লি। ফলে একই সমস্যায় রয়েছে এলাকার শতশত কৃষক-কৃষানী। শ্রীরামপুর এলাকার বাসিন্দা চুলি¬ মালিক শহিদুল হাওলাদার বলেন, ‘পরিবেশ অধিদপ্তরের তার কোনো লাইসেন্স নেই। তিনি প্রায় দুই বছর ধরে কাঠ পুড়িয়ে কয়লার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আইচগাতীর শোলপুর এলাকার চুল্লি মালিক মোঃ আজাদ বলেন, ‘তিনি ‘পরিবেশ অধিদপ্তরের লাইসেন্স ছাড়া ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।’একই এলাকার চুল্লি মালিক সাকুরুল ইসলাম বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো লাইসেন্স নেই তার।’ শহিদ হাওলাদারের কর্মচারী মোঃ টুটুল বলেন, প্রায় দুই বছর ধরে চুল্লি মালিক শহিদ হাওলাদার এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। একই ভাবে শ্রীফরতলা এলাকার দক্ষিণ নন্দনপুর এলাকায় গড়ে উঠেছে দু’টি চুল্লি। মোঃ বাবুল দীর্ঘদিন ধরে এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

কর্মচারী কামাল শেখ বলেন, প্রায় ৮ থেকে ৯ বছর ধরে তিনি এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন বহাল তবিয়তে। ৩নং নৈহাটী ইউনিয়নের রহিমনগরস্থ কাস্টমঘাট এলাকায় মোঃ মহিদুলের রয়েছে ৫ থেকে ৬টি চুল্লি। একইভাবে চাঁনমিয়ার ডক ইয়ার্ডের পার্শ্বে গড়ে উঠেছে সোহরাবের চুল্লি। এখানে ৭ থেকে ৮টি চুল্লি রয়েছে। রহিমনগর এলাকায় মুসার ডক ইয়ার্ডের ভিতরে গড়ে উঠেছে ৪ থেকে ৫টি চুল্লি। দীর্ঘদিন ধরে পরিবেশ অধিদপ্তরের লাইসেন্স ছাড়া অবৈধভাবে চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে এ ব্যবসা। এ ভাবে বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে চুল্লি।

রূপসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাসরিন আক্তার বলেন, ‘এর আগে ফায়ার সার্ভিসের টিম নিয়ে চুল্লিতে অভিযান চালানো হয়েছে। তিনি বলেন, যারা কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করে অবৈধ ব্যবসা করছে তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে স্থায়ীভাবে চুল্লি গুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে।

পরিবেশ অধিদপ্তর খুলনার পরিচালক সাইফুর রহমান খাঁন সময়ের খবরকে বলেন, ‘যারা চুল্লিতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করছে তারা অবৈধভাবে এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। বিগত দিনে বিভিন্ন চুল্লিতে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের টিম দিয়ে অভিযান চালানো হয়েছে। তিনি বলেন, যারা কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করছে তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে এবং চুল্লি গুলো বন্ধ করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451