1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন

খুলনার অধিকাংশ সড়ক, তৈরি হয়েছে ছোট-বড় গর্ত

গাজী যুবায়ের আলম, ব্যুরো প্রধান, খুলনা ঃ
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ১০ বার পঠিত

বিটুমিন দলা হয়ে সৃষ্টি হয়েছে উঁচু উঁচু ঢিবি, কোথাও কোথাও সড়ক দেবে গেছে। সর্বোপরি চলতি বছরের বৃষ্টিতে বিভিন্ন স্থানে তৈরি হয়েছে ছোট-বড় গর্ত। ১৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে খুলনার জিরোপয়েন্ট থেকে আঠারমাইল পর্যন্ত ২৮ দশমিক ৩ কিলোমিটার সড়ক পুনঃনির্মাণ কাজ শেষ না হতেই এমন বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে।

নগরীর সোনাডাঙ্গা থেকে নতুন রাস্তা মোড় ও রায়ের মহল থেকে মোস্তফার মোড় পর্যন্ত সড়ক নির্মাণের স্বল্প সময়ের মধ্যে বিটুমিন সরে গিয়ে দলা হয়ে সৃষ্টি হয় উঁচু ঢিবি। অপরদিকে বিটুমিন উঠে যাওয়া স্থানে পানি জমে বড় বড় খানা-খন্দ তৈরি হয়। শুধু খুলনা-সাতক্ষীরা বা সোনাডাঙ্গা থেকে নতুন রাস্তা মোড় ও রায়ের মহল থেকে মোস্তফা সড়ক নয়! খুলনা জেলায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ও খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্মিত, পুনঃনির্মিত ও সংস্কার কাজ শেষ হওয়ার পর পরই অধিকাংশ সড়কেই এমন বেহাল অবস্থা সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে প্রায়শ ঘটছে দুর্ঘটনা। জনসাধারনের ভোগান্তি বাড়ছে।

সূত্রে প্রকাশ, খুলনার সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায় ১৭টি সড়ক রয়েছে। ১৭টি সড়কের মোট দৈর্ঘ্য ৩৭১.৮৩ কিলোমিটার। এর মধ্যে যশোর-খুলনা সড়কের দৈর্ঘ্য ৩৩.৮৯ কিলোমিটার, খুলনা বাইপাস সড়কের দৈর্ঘ্য ২৬.৫৪ কিলোমিটার, খুলনা-চুকনাগর-সাতক্ষীরা সড়কের দৈর্ঘ্য ৩৩.৬৫ কিলোমিটার, ফুলতলা-শাহাপুর-মিকশিমিল-ডুমুরিয়া সড়কের দৈর্ঘ্য ২৮.৭৬ কিলোমিটার, খুলনা-রূপসা-ফকিরহাট-বাগেরহাট (খুলনার অংশ) সড়কের দৈর্ঘ্য ৯ কিলোমিটার, খুলনা-রূপসা-শ্রীফলতলা-তেরখাদা সড়কের দৈর্ঘ্য ২২.০৭ কিলোমিটার, দৌলতপুর-শাহাপুর- শোলগাতিয়া-চুকনাগর (সেতু এপ্রোচ) সড়কের দৈর্ঘ্য .৭৫ কিলোমিটার, বেতগ্রাম-তালা-পাইকগাছা-কয়রা সড়কের দৈর্ঘ্য ৬৩.৫৬ কিলোমিটার, তেরখাদা-মোল¬ারহাট সড়কের দৈর্ঘ্য ১২ কিলোমিটার, দাকোপ-বার আড়িয়া-মাগুরখালি-তালা সড়কের দৈর্ঘ্য ২২ কিলোমিটার, কেশবপুর-বেতগ্রাম (খুলনার অংশ) সড়কের দৈর্ঘ্য ৫ কিলোমিটার, কেশবপুর- বেতগ্রাম সড়কের দৈঘ্য ৫ কিলোমিটার, কয়রা-নয়াবেকী-শ্যামনগর সড়কের দৈর্ঘ্য ৯ কিলোমিটার, রূপসা-ফকিরহাট সড়কের দৈর্ঘ্য ৯ কিলোমিটার এবং সাতক্ষীরা-আশাশুনি-গোয়ালডাঙ্গা-পাইকগাছা সড়কের দৈর্ঘ্য ১১.৫০ কিলোমিটার, খুলনার গল¬ামারী-বটিয়াঘাট-দাকোপ-নলিয়ান সড়কের ৫৪.০৩ কিলোমিটার ও নগরঘাটা-দিঘলিয়া-আড়–য়া-গাজিরহাট-তেরখাদায় ২৯ কিলোমিটার সড়ক রয়েছে। অপরদিকে খুলনা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর (এলজিইডি) আওতায় ৯ উপজেলায় মোট ১১৭টি কার্পেটিং সড়ক রয়েছে। সড়কগুলোর মোট দৈর্ঘ্য ৯শ’ ৪২ কিলোমিটার।

এর মধ্যে বটিয়াঘাটা উপজেলায় অবস্থিত সড়কগুলোর দৈর্ঘ্য ৯৩.৭ কিলোমিটার, দাকোপ উপজেলায় অবস্থিত সড়কগুলোর দৈর্ঘ্য ২৬.৯ কিলোমিটার, দিঘলিয়া উপজেলার অবস্থিত সড়কগুলোর দৈর্ঘ্য ১১৬.৯ কিলোমিটার, ডুমুরিয়া উপজেলায় অবস্থিত সড়ক গুলোর দৈর্ঘ্য ১৯২.৫ কিলোমিটার, কয়রা উপজেলায় অবস্থিত সড়ক গুলোর দৈর্ঘ্য ৩৮.১ কিলোমিটার, পাইকগাছা উপজেলায় অবস্থিত সড়ক গুলোর দৈর্ঘ্য ১১৯.৩ কিলোমিটার, ফুলতলা উপজেলায় অবস্থিত সড়কগুলোর দৈর্ঘ্য ১১৫.৪ কিলোমিটার, তেরখাদা উপজেলায় অবস্থিত সড়কগুলোর দৈর্ঘ্য ৮৯.৪ কিলোমিটার এবং রূপসা উপজেলায় অবস্থিত সড়কগুলোর দৈর্ঘ্য ১৫০ কিলোমিটার।

এছাড়া মহানগরীতে খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি)’র ১ হাজার ২১৫টি সড়ক রয়েছে। যার মোট দৈর্ঘ্য ৬৪০ কিলোমিটার। এর মধ্যে প্রধান সড়ক রয়েছে আড়াই শতাধিক। যার দৈর্ঘ্য ২০০ কিলোমিটারের মতো। এসব সড়ক নির্মাণ, পুনঃনির্মাণ ও সংস্কার কাজ শেষ হওয়ার পর পরই বিটুমিন দলা হয়ে উঁচু উঁচু ঢিবি সৃষ্টি হচ্ছে, কোথাও কোথাও সড়ক দেবে যাচ্ছে। এছাড়া বৃষ্টিতে বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় গর্ত তৈরি হচ্ছে। ফলে প্রায়শ ঘটছে দুর্ঘটনা। জনসাধারনের ভোগান্তি বাড়ছে। নষ্ট হচ্ছে গাড়ির মূল্যবান যন্ত্রাংশ।

জনউদ্যোগ-এর আহ্বায়ক কুদরত-ই-খুদা বলেন, দুর্নীতি, নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার ও পরিমাণমত না দেয়া, সমন্বয়হীনতা ও মনিটরিং-এর অভাবে সড়কে এ অবস্থা তৈরি হচ্ছে। অন্যদিকে গাড়ি চালকরা রাস্তা সমতল ভেবে দ্রুত গতিতে গাড়ি চালান। কিন্তু রাস্তায় মধ্যে উঁচু টিলার মতো থাকায় দুর্ঘটনা ঘটছে। জীবন রক্ষায় এর প্রতিকার দরকার।

এ ব্যাপারে খুলনা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের (এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী এ এস এম কবীর বলেন, যথাযথভাবে কম্পেকশন না হওয়া, পুরাতন উপকরণ (খোয়া) ব্যবহার ও বেজমেন্ট দুর্বল হওয়ায় বিটুমিন ও পাথর সরে গিয়ে দলা দলা হয়ে যাচ্ছে। তবে এব্যাপারে সংশি¬ষ্টদের সচেতন ও নজরদারী বাড়ানো উচিত। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী এজাজ মোর্শেদ চৌধুরী এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করেননি।

তবে সড়ক ও জনপথ বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী জর্জিস হুসাইন বলেন, সড়ক নির্মাণ কাজ এখনও শেষ হয়নি। তবে যেখানে যে সমস্যা হয়েছে বর্ষা মৌসুমের পর পরই সব ঠিক করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451