1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

পৃথিবীর উপর থেকে পুলিশি ব্যবস্থা কমিয়ে এনেছেন ট্রাম্প-প্রশাসন। বাইডেন কী করবেন?

জি-নিউজবিডি২৪ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১২ বার পঠিত

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউথ এশিয়ান ইন্সটিটিউট অফ পলিসি এন্ড গভর্নেন্স (এসআইপিজি) এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগ এর যৌথ উদ্যোগে ৩১ অক্টোবর “যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ২০২০ এবং এশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক” শীর্ষক একটি আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০.৩০ এ জুম এ শুরু হওয়া এ ওয়েবিনারের আলোচনার উদ্দেশ্য ছিল মার্কিন নির্বাচন ২০২০ এর গতি-প্রকৃতি, বাংলাদেশ এবং এশিয়া-আমেরিকার সম্পর্কে এবং এশিয়ার ক্রমবর্ধমান ভূরাজনীতির উপর এর প্রভাব বিশ্লেষণ করা।

আমেরিকায় অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সমস্যা যেমন বর্ণবাদ, চরম ডানপন্থা এবং শ্বেতাঙ্গ চরমপন্থীবাদের উত্থান, ব্ল্যাক লাইফ ম্যাটার আন্দোলন, করোনা সমস্যার অব্যবস্থাপনা, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব নিয়ে আন্দোলন, তর্কবিতর্ক চলছে, এবং বিশ্বায়ন-বিরোধী আমেরিকার কর্মকান্ড, আমেরিকার একলা চলো নীতি, বাণিজ্যযুদ্ধ, অভিবাসন বিরোধী নীতিমালা দেশে ও বিদেশে জনমতকে অন্য যে কোন সময়ের তুলনায় দ্বিধাবিভক্ত করছে।
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. হারিছুর রহমান এর সুচনা বক্তব্যের মাধ্যমে ওয়েবিনারে অংশগ্রহণকারীদের স্বাগত জানান।

ওয়েবিনারে মার্কিন নির্বাচন সম্পর্কে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় এর রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগ এর অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান বলেন যুক্তরাষ্ট্রের এই নির্বাচনে কোন ধরনের অনিয়মের অভিযোগ উত্থাপিত হলে, যুক্তরাষ্ট্রের সমাজে সামাজিক সহিংসতার একটি আশঙ্কা তৈরি করতে পারে।

কিভাবে ট্রাম্প আমেরিকায় একধরনের মেরুকরণ করতে সক্ষম হয়েছেন, অভিবাসীদের বিরুদ্ধে মানুষকে খেপিয়ে তুলেছেন, দেশকে বিভিন্নভাবে বিভক্ত করেছেন, এবং শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদীদেরকে দেশের সমাজ-রাজনীতিতে একধরনের গ্রহণযোগ্যতা দিয়েছেন, তা তুলে ধরেন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির রাজনীতি ও সরকার বিভাগের ডিস্টিংগুইশড প্রফেসর ড. আলী রীয়াজ।

এশিয়ায় এই নির্বাচনের প্রভাব নিয়ে তিনি বলেন, ভূরাজনীতির পাশাপাশি এশিয়া ক্রমাগত অর্থনৈতিক ভরকেন্দ্রে রূপান্তরিত হয়েছে, সে প্রেক্ষাপটে চীনের উত্থান ট্রাম্প এবং বাইডেন উভয়কেই একটি চিন্তার মধ্যে রেখেছে। আলী রীয়াজ বলেন, আমেরিকা ট্রাম্পের সময়ে যুদ্ধ করেনি ঠিক, কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় লোক মেরেছেন। তিনি বলেন, আধিপত্যবাদী রাষ্ট্র হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ করে তা একটি জঘন্য বিষয়। আধিপত্যবাদী রাষ্ট্র হিসেবে বৈশ্বিক গণতন্ত্রের ধারক যদি না থাকে তাহলে সারা পৃথিবী জুড়ে পপুলিস্ট এবং টোটালিটারিয়ান রেজিম তৈরী হয়।

দক্ষিণ এশিয়ার ভূরাজনীতির উপর মার্কিন নির্বাচনের প্রভাব বিষয়ে আলোকপাত করতে গিয়ে এনএসইউ এর এসআইপিজি এর সিনিয়র ফেলো ড. এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রহের জায়গা হলো ভারত। ভারত ও চায়নার মধ্যকার সাম্প্রতিক দ্বন্দ ভারতকে আরো বেশি যুক্তরাষ্ট্র কেন্দ্রীক পলিসি গ্রহণ করতে উৎসাহ যোগাচ্ছে।

চীনে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত মুন্সি ফয়েজ আহমদ মার্কিন নির্বাচন এবং পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বলতে গিয়ে উল্লেখ করেন, চীন এর সম্প্রতিক অর্থনৈতিক আধিপত্যকে সামনে রেখে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ট্রাম্প এবং বাইডেন উভয়ই একই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। দক্ষিন-পূর্ব এশিয়ার বেশীরভাগ দেশই মূলত নির্বাচনে জো বাইডেন আসুক সেই প্রত্যাশায় রয়েছে বলে তিনি মনে করেন।

অপরদিকে ভারত-মার্কিন সম্পর্ক নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. রাজ কুমার কোঠারি বলেন, জো বাইডেন ক্ষমতায় এলেও ভারত-মার্কিন সম্পর্ক গভীর হবে। কারণ ভারতকে বাদ দিয়ে আমেরিকার পক্ষে এশিয়ায় সুসম্পর্কের বিস্তৃতি সম্ভব নয়।
মার্কিন নির্বাচন এবং বাংলাদেশের উপর এর প্রভাব সম্পর্কে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক সাহাব এনাম খান মনে করেন, যদিও পৃথিবীর উপর থেকে পুলিশি ব্যবস্থা সরিয়ে নিয়েছে ট্রাম্প-প্রশাসন, কিন্তু ট্রাম্পই প্রথম আমেরিকান রাষ্ট্রপতি যিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন কেবল আমেরিকার জন্যে, পুরো বিশ্বের জন্যে নয়।

ওয়েবিনারে জো বাইডেনের পররাষ্ট্রনীতি সম্পর্কে সাবেক রাষ্ট্রদূত ও এসআইপিজি, এনএসইউ এর সিনিয়র ফেলো শহীদুল হক উল্লেখ করেন, জো বাইডেন জয়ী হলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিতে গণতন্ত্র, শরণার্থী, ও মানবাধিকার বান্ধব দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে এক ধরনের মৌলিক পরিবর্তন নিয়ে আসবে।
এসআইপিজি’র পরিচালক ও এনএসইউ এর রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক শেখ তৌফিক এর সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম। সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম বলেন, গণতন্ত্র নিশ্চিত করা, বর্ণবাদ মুক্ত ও ঘৃণা ছড়ানোর প্রবণতা মুক্ত একটি বৈশ্বিক সমাজ গঠনে সঠিক নেতৃত্ব জরুরী। বিশ্বজুড়েই যে পপুলিস্ট রাজনীতির উত্থান, এক ডোনাল্ড ট্রাম্প এর চলে যাওয়ার মধ্যে যদিও এর সুরাহা হবে না, তবে এই প্রেক্ষাপটে জো বাইডেন এর ভূমিকা আশাবাঞ্জক হবে বলে তিনি মনে করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

cover3.jpg”><img src=”https://www.bssnews.net/wp-content/uploads/2020/01/Mujib-100-1.jpg”>

via Imgflip

 

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451