মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
করোনায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে আমতলীর ইটভাটার শ্রমিকরা লকডাউনে আমতলীতে তরমুজ চাষিদের ভাগ্য বদল! চারগুণ লাভবান দেশের ইতিহাসে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ১১২ জন গাবতলীর সোনারায় ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান তারাজুলের দাফন সম্পন্ন করোনাকালে ঋণ আদায়, জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনকে জরিমানা যশোরে আজ অর্ধশত করোনা শনাক্ত কলাপাড়ায় মধ্যযুগীয় কায়দায় গৃহবধুকে অমানবিক নির্যাতন, মামলা না নেয়ার অভিযোগ মান্দায় সৎ মায়ের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে শিশুর আত্মহত্যাঃ সৎ মা আটক গাবতলীর উজগ্রাম পিন্টু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির প্রথম সভা সংবাদ প্রকাশের পর প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্ধ আশ্রয়ন-২ প্রকল্প দুর্নীতির তদন্ত শুরু

সৈয়দপুরে প্রতিদিন ১ লাখ মানুষের ব্যবহারে গণসৌচাগার মাত্র ৩টি

জহুরুল ইসলাম খোকন, সৈয়দপুর প্রতিনিধি (নীলফামারী) ঃ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৬ মার্চ, ২০২১
  • ৬০ বার পঠিত

সৈয়দপুর শহরে ভাসমান, রিক্সা চালক, ব্যবসায়ীসহ পথচারীদের ব্যবহার উপযোগী গণসৌচাগার মাত্র ৩টি। প্রতিদিন প্রায় ১ লাখ মানুষের ব্যবহারে ১০ থেকে ১২টি গণসৌচাগারের প্রয়োজন থাকলেও পৌর কর্তৃপক্ষের এ বিষয়ে কোনদৃষ্টি নেই। ফলে ড্রেন, রাস্তার পাশে অথবা রেল লাইন সংলগ্ন এলাকায় ব্যবহার করে চলেছেন অনেকেই।

জানা যায় নীলফামারীর সৈয়দপুর শহর বাণিজ্যিক শহর হিসাবে পরিচিত। উত্তরাঞ্চলের ব্যবসা ক্ষেত্রে সুনাম বৃদ্ধির কারণে এই শহরে ব্যবসার জন্য বাহিরে থেকে আসেন হাজার হাজার মানুষ। পৌর কর্তৃপক্ষ শহরসহ বাহিরে থেকে আসা মানুষের ব্যবহার উপযোগী গণসৌচাগার নির্মাণ করেন মাত্র ৩টি। পৌর কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ীক ইজারাদারদের মাধ্যমে নির্দিষ্ট ফি’র বিনিময়ে পরিচালনা করে থাকেন ওইসব গণসৌচাগার।

আর ইজারাদাররা ওই সব সৌচাগার থেকে প্রতি বছর উচ্চ মুনাফা লাভ করলেও সৌচাগার ব্যবহারকারীদের যথাযথ সেবা দিতে পারছেন না। ব্যবহারকারীর তুলনায় সৌচাগার কম হওয়ায় দুর্গন্ধ, অপরিস্কার ও পানি সংকট দেখা দিয়েছে। সঠিক সময় বিদ্যুৎ বিল দিতে গড়িমসি করায় মাঝে মধ্যে সৌচাগারগুলিতে বিদ্যুৎ থাকে না বলে দীর্ঘদিনের অভিযোগ।

শনিবার স্থানীয় ও ভাসমান ব্যবসায়ীরা জানান সৈয়দপুর ১ম শ্রেণির পৌরসভার পাশাপাশি দেশের অষ্টম বাণিজ্যিক শহরে পরিচিত। এ কারণে উত্তারাঞ্জলসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার প্রায় ১ লাখ মানুষ ও ব্যবসায়ী আসেন এ শহরে। বাহির থেকে আসা ব্যবসায়ী ভাস্যমান মানুষসহ লক্ষ্যাধিক মানুষের ব্যবহারের জন্য প্রয়োজন ১০ থেকে ১২টি সৌচাগার কিন্তু সেখানে রয়েছে মাত্র ৩টি।

ব্যবহারকারীরা বলছেন গণসৌচাগারগুলি একেবারেই নোংরা ও অপরিস্কার। মানুষ প্রকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে বাধ্য হয়েই ব্যবহার করছেন ওইসব সৌচাগার। অনেকেই প্রকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে রেল লাইন, ড্রেন ও রাস্তার পাশেই বসে পড়ছেন এবং যেখানে সেখানে মূত্র ত্যাগ করছেন। অনেক ব্যবসায়ী বলছেন এ পৌরসভায় প্রতি বছর বাজেট ঘোষণা হয় ৩০/৪০ কোটি টাকা।

বিশ্ব ব্যাংক ও বিভিন্ন এনজিওরাও এ শহরের উন্নয়নে প্রতিবছর অনুদান দেন আরো প্রায় ৩০ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে পাঁচ বছরে প্রায় ৩০০শ কোটি টাকা বরাদ্দ হয় এ শহরের উন্নয়নের জন্য। সৈয়দপুর পৌরসভায় ১৫টি ওয়ার্ডের উন্নয়নে বছরে প্রায় ৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয় কিন্তু এ উন্নয়ন বরাদ্দ যেন শুধুমাত্র কাগজে কলমে। দীর্ঘ ২৫ বছরে ওইসব বরাদ্দের অর্থে কোন উন্নয়নই ঘটেনি। গণসৌচাগার দুরের কথা উন্নত রাস্তাঘাট ও ড্রেন নেই বললেই চলে।

উন্নয়নের গাল ভরা প্রতিশ্র“তি দিলেও লংকায় গিয়ে সবাই রাবন হয় বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের। ২৮ ফ্রেব্র“য়ারী সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে সদ্য নির্বাচিত মেয়র রাফিকা আকতার জাহান বেবীর প্রতিশ্র“তি মোতাবেক সৈয়দপুরকে ঢেলে সাজানোর দাবী জানান শহরবাসী।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

cover3.jpg”><img src=”https://www.bssnews.net/wp-content/uploads/2020/01/Mujib-100-1.jpg”>

via Imgflip

 

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451