সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

“স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার ইতিহাস ও প্রাপ্তি”

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১২ মার্চ, ২০২১
  • ১৮০ বার পঠিত

ঃ মো: শামছুল আলম ঃ
ইবতেদায়ী মাদ্রাসা সৃষ্টিঃ বহু বছর পূর্ব হতে এ দেশে মাদ্রাসা শিক্ষার প্রাথমিক স্থর ফোরকানিয়া এবতেদায়ী মাদ্রাসা নামে পরিচালিতহয়ে আসতো। ২৫/১০/১৯৮৩ সালে বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে মাদ্রাসা শিক্ষা অধ্যাদেশ ১৯৭৮ (ordinance no ix of 1978) এর ১৭ (২) (বি) ধারার প্রদত্ত ক্ষমতা বলে মাদ্রাসা শিক্ষার প্রাথমিক স্তর ফোরকানিয়া এবতেদায়ী মাদ্রাসা নামে পরিচালিত মাদ্রাসা সমূহ ও নতুন নতুন স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা সৃষ্টি করে ০১.০১.১৯৮৪ হতে মঞ্জুরী প্রদান শুরু করে ।

১৯৮৭ সালে তৎকালীন সরকার বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড হতে রেজিঃ প্রাপ্ত প্রায় প্রতিটি মাদরাসায় এককালীন ৪২০০/- ৭০০০/- টাকা প্রদান করে। শিক্ষকদের বেতন ভাতার কোন ব্যবস্থা গ্রহন করে নি। যে কারণে শিক্ষকগণ অনাহারে অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন কওে পাঠদান চালাতে থাকে ।

ইবতেদায়ী মাদ্রাসা অনুদান শুরুঃ দীর্ঘ ১০ বছর পর ১৯৯৪ সালে তৎকালীন সরকার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগ বাধ্যতামুলক প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন পরীবিক্ষণ ইউনিট এর অধিনে (স্মারক নং শাঃ ৩/২ এম-২২/৯৩/৫৫৯ তারিখঃ ০৮/০৫/১৯৯৪ পত্র মুলে) প্রতিটি ইউনিয়নে ১ টি করে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা অনুদান দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহন করলে উপজেলা ও জেলা যাচাই বাছাই কমিটির বিভিন্ন শর্তেও বেড়াজালে আবর্ত হলে প্রায় ৪৫০০ হাজার ইউনিয়নের মধ্য হতে উপজেলা ও জেলা যাচাই বাছাই কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী সারা দেশে মাত্র ১৫১৯ টি মাদরাসা অনুদানভুক্ত করা হয় ।

শিক্ষকদের অনুদান মাসিক ৫০০/ টাকা । এখনে উল্লেখ্য বে-সরকারি রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একই আদেশের বলে ৫০০/- টাকা অনুদান শুরু হয়েছিল । শিক্ষা মন্ত্রণালয় হতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় আলাদা হলে বে-সরকারি রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধিনে চলে যায় ।

স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা সমূহ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় থেকে যায় । শিক্ষা মন্ত্রণালয় স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা সমূহ দেখা শোনার দায়ীত্ব মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) উপর অর্পণ করেন।২০১৪ সাল পর্যন্ত স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা সমূহ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) দেখা শোনার দায়ীত্ব পালন করেন ।

ইবতেদায়ী মাদ্রাসার অনুদান বৃদ্ধিঃ ২০১২ সালে ডিসেম্বর মাসে জাতীয় প্রেসক্লাব্রে সামনে শিক্ষকগণ বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের ব্যানারে কাফনের কাপড় পওে আমরণ অনশন শুরু করলে ০৩ জানুয়ারী ২০১৩ সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপির বেতন বৃদ্ধির আশ্বাসে শিক্ষকগণ আমরণ অনশন ভংগ করলে ২২ জানুয়ারী ২০১৩ শিক্ষকদের অনুদান ১০০০/ টাকায় উন্নিত করে ।

ঐ বছরের শেষে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) ডিসেম্বর মাসের অনুদানের সাথে ২০% মহার্ঘ ভাতা যোগ করে ১২০০/- অনুদান প্রদান করে।

২০১৫ সালের ১৫ এপ্রিল বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের আবেদনের প্রেক্ষিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশক্রমে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর , মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড এর প্রেরিত মতামতের ভিত্তিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় শাখা-২৪ (মাদরাসা-২) ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ শিক্ষা মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর , মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড এর যৌথ সভায় স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা নীতিমালা না থাকায় জাতীয় স্কেল প্রদান না করে অনুদান বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত গ্রহন করে।

সে মোতাবেক সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপির সুপারিশ সাপেক্ষে সাবেক শিক্ষা সচিব মোঃ সোহরাব হোসাইন স্যারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় অর্থ মন্ত্রণালয় ২৯ মে ২০১৭ অনুদানভুক্ত ১৫১৯ টি মাদরাসার শিক্ষকদের মাসিক অনুদান প্রধান শিক্ষক ২৫০০/ ও সহকারি শিক্ষক ২৩০০/- নির্ধারন করে জিও জারি করে । জুন মাসের অনুদানের সাথে শিক্ষকগণ ( প্রধান শিক্ষক ২৫০০/ ও সহকারি শিক্ষক ২৩০০/-) টাকা উত্তলোন করেন । দীর্ঘ ৩৪ বছর পর স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা স্থাপন, স্বীকৃতি,পরিচালনা,জনবল কাঠামো এবং বেতন-ভাতাদি/অনুদান সংক্রান্ত নীতিমালা-২০১৮

গেজেট প্রকাশঃ-
বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনার প্রেক্ষিতে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি ২০১৩ সালের ১১ এপ্রিল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার জন্য আলাদা নীতিমালা করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করে এবং ৮ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করে । মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড কে খসড়া নীতিমালা করার দায়ীত্ব প্রদান করলে প্রায় এক বছর পর বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড একটি খসড়া নীতিমালা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর দাখিল করে । খসড়া নীতিমালা যাচাই বাছাই করার জন্য ১১ সদস্য কমিটি গঠন করা হয় ।

২০১৮ সালের মার্চ মাসে অতিরিক্ত সচিব মোঃ রওনক মাহমুদ এর সভাপতিত্বে খসড়া নীতিমালাটি যাচাই বাছাই কমিটির ১১ জন সদস্য সর্বসম্মতিক্রমে পাস করে । অতঃপর ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ আলমগীর ,শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী ,১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপির স্বাক্ষরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট সার-সংক্ষেপ প্রেরণ করলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার নীতিমালা অনুমোদন করেন ।

০৮ নভেম্বর ২০১৮ অর্থ মন্ত্রণালয়ের মতামত সাপেক্ষে দীর্ঘ ৩৪ বছর পর ১৮ নভেম্বর ২০১৮ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা স্থাপন, স্বীকৃতি, পরিচালনা, জনবল কাঠামো এবং বেতন-ভাতাদি/অনুদান সংক্রান্ত নীতিমালা-২০১৮ নামে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয় গেজেট আকারে অনলাইনে প্রকাশ করে ।

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তি ও উপবৃত্তি দেয়া শুরুঃ-
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের ১০০% উপবৃত্তি প্রদান করছেন এবং ২০১৫ সাল হতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের ন্যায় সমহারে ইবতেদায়ী মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তি প্রদান করছেন ।

স্বতন্ত্র এবতসদায়ী মাদ্রাসা সমূহে এবং আমাদের ছাত্র-ছাত্রীদের সরকার কর্তৃক কিছু মাদ্রাসায় উপবৃত্তি দেয়া হয় এখনো অনেক মাদ্রাসা উপবৃত্তির আওতায় আসেনি ।

এখনে উল্লেখ্য মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ও সংযুক্ত ইবতেদায়ী মাদ্রাসার সকল শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়া রোধে উপবৃত্তি, তৈরী পোষাক ও স্কুল ব্যাগ এর জন্য প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীকে ২০০০/- টাকা দেয়ার প্রকল্প প্রস্তুত করে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছিলেন । এছাড়াও মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা সমূহে একাডেমিক ভবন নির্মান করার প্রকল্প হাতে নেয় এবং শিক্ষকদের দক্ষতা অর্জনে প্রশিক্ষণের জন্য ই টি আই (ইবতেদায়ী টিচার ইনিস্টিটিউট)স্থাপন প্রকল্প হাতে নেয় ।

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা স্থাপন, স্বীকৃতি,পরিচালনা,জনবল কাঠামো এবং বেতন-ভাতাদি/অনুদান সংক্রান্ত নীতিমালা-২০১৮ এর বাস্তবায়নঃ-

কোভিট-১৯ করোনা ভাইরাসের কারণে তথ্য প্রাপ্তির কাজ কিছুটা বিলম্ব হলেও বর্তমানে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী তালিকা প্রস্তুুত করে সর্বমোট ৭৪৫৩ টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ সচিব, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেন।

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষকদের শুন্য পদঃ

২০১৫ সালে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার সকল কার্যক্রম মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের উপর ন্যাস্ত হলে শুরু হয় শুন্য পদে নিয়োগকৃত কর্মরত শিক্ষকদের ভোগান্তি। এ পর্যন্ত ২০১৭ সালে এবং ২০১৯ সালে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে নীতিমালা-২০১৮ জারীর পূর্বে নিয়োগকৃত কর্মরত শিক্ষকদের তথ্য নেয়া হয়।

বর্তমানে মহামারি কোরোনা ভাইরাস কোভিট-১৯ এর মধ্য কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মহোদয়ের একান্ত প্রচাষ্টায় ১৫১৯টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার ২০১৮ সালে নীতিমালা জারীর পূর্বে নিয়োগকৃত কর্মরত শিক্ষকদের মাঠ পর্যায়ে হতে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী একটি তালিকা প্রস্তুুত করা হয়।

১৫১৯টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার শুন্য পদে নিয়োগকৃত কর্মরত শিক্ষকদের প্রস্তুুতকৃত তালিকা ১১ মার্চ ২০২১ তারিখে ৬(ছয়) সদস্য বিশিষ্ট কমিটির মাধ্যমে যাচাই বাছাই করে শিক্ষকদের অনুদানের জন্য সচিব, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর প্রেরণ করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছেন।

কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক ফাইলটি অনুমোদিত হলে আগামী বিলের সাথে নীতিমালা-২০১৮ জারীর পূর্বে শুন্যপদে নিয়োগকৃত কর্মরত শিক্ষকগণ অনুদান পাবে বলে আশা প্রকাশ করি।

প্রায় ৬ বছর পর কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মহোদয়ের একান্ত প্রচাষ্টায় এমন সিদ্ধান্ত নেয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, শিক্ষা উপমন্ত্রী, শিক্ষা সচিব, মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন।

লেখক : মো: শামছুল আলম, মহাসিচব, বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক পরিষদ।
(মতামত লেখকের সম্পূর্ণ নিজস্ব যা সম্পাদকীয় নীতির আওতাভুক্ত নয় ।)

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

cover3.jpg”><img src=”https://www.bssnews.net/wp-content/uploads/2020/01/Mujib-100-1.jpg”>

via Imgflip

 

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451