1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৪৮ অপরাহ্ন

বিলীন হয়ে যাবে ‘কাসিদা’!

বিনোদন ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৭ মে, ২০২০
  • ৩০ বার পঠিত

নবাব পরিবারগুলো ছিলো যে কোনো ধরনের সংগীত ও নৃত্যের পৃষ্ঠপোষক। নওয়াব আহসান উল্লাহ খান হারমোনিয়াম বাজানোতে বিশেষজ্ঞ ছিলেন। নওয়াব আবদুল গণি আহসান মঞ্জিলে নিয়মিত গানের আসর করতেন। এসব গানের আসরে কাসিদা, কাওয়ালি সবই পরিবশিত হতো। সারা বছর ঢাকাবাসী অন্যান্য গানে মশগুল থাকলেও রমজানের আগে থেকে পুরো মাসজুড়ে চলতো কাসিদার পরিবেশনা।

বাংলার ঐতিহ্য কাসিদাকে এবার প্রামাণ্যচিত্রে তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাঢোলের প্রযোজনায় ১৭ মে বাংলাফ্লিক্স, রবিস্ক্রিন, এয়ারটেল স্ক্রিন, টেলিফ্লিক্স ও বিডিফ্লিক্স লাইভ অ্যাপগুলোতে এক যোগে উন্মুক্ত করা হয়েছে ‘কাসিদা অব ঢাকা’। ২০ মিনিট ব্যাপ্তির এই প্রামাণ্যচিত্রটি গবেষণা ও নির্মাণ করেছেন অনার্য মুর্শিদ। ‘কাসিদা অব ঢাকা’র চিত্রগ্রহণ করেছেন রাসেল আবেদীন তাজ, সম্পাদনা করেছেন অনয় সোহাগ, আবহ সংগীত পরিচালনা করেছেন প্রিন্স শুভ আর নেপথ্য কণ্ঠ দিয়েছেন অভিনেতা জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়। নির্বাহী প্রযোজক এনামুল হক জানান, কিছুদিনের মধ্যে এটি দেখা যাবে বাংলাঢোলের ইউটিউব চ্যানেলে।

‘কাসিদা অব ঢাকা’র চিত্রনাট্যকার ও নির্মাতা জানান, কাসিদা আরবি শব্দ। এটি এক ধরনের প্রশংসামূলক দীর্ঘ গীতিকবিতা। ঢাকার কাসিদার বিষয় ছিলো মুঘল সম্রাটদের প্রশংসা ও গুণগান। মুঘলদের বিদায়ের পর এখানকার কাসিদাগুলো রমজান মাসকে কেন্দ্র করে রচিত হতে থাকে। শাহেদি, মার্সিয়া, নাত-এ রাসূল, ভৈরবী, মালকোষ প্রভৃতি রাগে এর সুর প্রয়োগ করা হয়। যে কোনো কাসিদা শুনলেই বোঝা যেতো এটা কার লেখা। পুঁথির মতো কাসিদার শেষ স্তবকে লেখা থাকতো কবির নাম।

অনার্য বলেন, ‘আমাদের বিশ্বাস প্রামাণ্যচিত্রটির মাধ্যমে অনেকেই কাসিদার ব্যাপারে নতুন কিছু জানতে পারবেন, এ ব্যাপাের আগ্রহী হবেন, হারিয়ে যাওয়া কাসিদাকে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করবেন। বাংলাঢোলকে ধন্যবাদ এমন একটি হারানো ঐতিহ্যকে দর্শকের সামনে তুলে আনার জন্য।’

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451