শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ইমরান-পূজার ‘ভালবেসে যে ভুলে যায়’ আমতলীতে পাঠ্য বই সঙ্কট, লেখাপড়ায় পিছিয়ে পড়ার সঙ্কায় শিক্ষার্থীরা ফেব্রুয়ারিতে খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানমন্ত্রীর উপহার গৃহহীন পরিবারের জমি ও ঘর প্রদান বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং বগুড়ার আলোচিত শাহীন হত্যা মামলার পলাতক আসামী সোহাগ গ্রেফতার সুন্দরগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ২৭২টি ঘর পাচ্ছেন ভূমিহীন পরিবার সাতক্ষীরায় মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি ১১ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ১০ কোটি পণ্য উৎপাদনের মাইলফলক স্পর্শ করলো হিরো মোটোকর্প শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা মামলায় চতুর্থ দিনের মত যুক্তিতর্ক উপস্থাপন পোরশায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার পাচ্ছেন ৫৪টি গৃহহীন পরিবার

বেড়িবাঁধ না থাকায় ঝুঁকিতে ঝালকাঠির লাখ মানুষ

রহিম রেজা, ঝালকাঠি থেকে :
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০
  • ৬৭ বার পঠিত

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় বিষখালী নদীতে বেড়িবাঁধ না থাকায় ঝুঁকিতে রয়েছেন উপজেলার দেড় লক্ষাধিক মানুষ। ঘূর্ণিঝড় আম্পান আসার খবরে ২৯ কিলোমিটার বি বিষখালী নদী তীরবর্তী মানুষের চোখে ঘুম নেই দুশ্চিন্তায়। এর আগের ঘূর্ণিঝড় সিডর, আইলা ও বুলবুলে জেলার সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত উপজেলা কাঁঠালিয়া। বেড়িবাঁধ না থাকায় চার ইউনিয়নের জনগণের দুর্ভোগের শেষ নেই।

বাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষের ক্ষোভের অন্ত নেই। বাঁধ না থাকায় প্রতি বছর জলোচ্ছাসে ফসল ও মৎস্য সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বেড়িবাঁধ না থাকায় সিডরে এ উপজেলায় ২১ জন মারা যায়। এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই ঘূর্ণিঝড় আইলা ও বুলবুলে আঘাতহানে কাঁঠালিয়ায়।

কোনো প্রাণহানির ঘটনা না ঘটলেও বিষখালী নদীতে অতিরিক্ত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ভেসে গেছে জেলেদের জাল, নৌকা। তলিয়ে গেছে মাছের ঘের ও ছোট-বড় পুকুর। নষ্ট হয়ে গেছে কাঁচা আধা কাঁচা ঘর-বাড়ি ও ফসলের ক্ষেত। এছাড়াও স্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে আমুয়া, হেতালবুনিয়া, মশাবুনিয়া, চিংড়াখালী, জয়খালী, কাঠালিয়া সদর সহ প্রায় ২০টি গ্রামের ফসলি মাঠ প্লাবিত হচ্ছে। স্থানীয় জেলে মিরন জোমাদ্দার বলেন, বইন্যার (সিডর) সময় গলা পর্যন্ত পানিতে মোগো ঘর দরজা গরু-বাছুর সব ভাসাইয়্যা লইয়্যা গ্যাছিল।

কাঁঠালিয়া সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ( ভারপ্রাপ্ত ) প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান বলেন, বেড়িবাঁধ না হওয়ায় আমরা বন্যার সময় খুবই অসহায় অবস্থার সন্মুখীন হই। ঘর-বাড়ি আর কৃষির ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, বাঁধ না থাকায় প্রতিদিন স্বাভাবিক জোয়ারে বিষখালী নদীর পানি সহজেই প্রবেশ করে তলিয়ে যাচ্ছে প্রায় ১০ হাজার হেক্টর আবাদী জমি।

এতে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান মো. এমাদুল হক মনির বলেন, উপজেলাবাসির দীর্ঘ দিনের দাবি এ বেড়িবাঁধ নির্মাণের। বাঁধটি নির্মাণ করে উপজেলার জনসাধারণকে নিরাপদে রাখা সরকারের দায়িত্ব। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে এটি নির্মাণের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

cover3.jpg”><img src=”https://www.bssnews.net/wp-content/uploads/2020/01/Mujib-100-1.jpg”>

via Imgflip

 

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451