1. gnewsbd24@gmail.com : admi2019 :
মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

তানোরে ঋণের বোঝা সইতে না পেরে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

আব্দুস সবুর, তানোর প্রতিনিধি(রাজশাহী) ঃ
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০
  • ২০ বার পঠিত

রাজশাহীর তানোর উপজেলায় সুদের টাকা ও এনজিও’র ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে আজিম উদ্দিন (৪০) নামে এক কাপড় ব্যবসায়ী আত্মহত্যা করেছেন। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) ভোরে উপজেলার সরনজাই কাজীপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ির সামনে আমগাছ থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত আজিম উপজেলার সরনজাই ইউনিয়নের সরনজাই কাজীপাড়া এলাকার ইসাহাক আলীর ছেলে ও ওই এলাকার সরনজাই বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, আজিম দীর্ঘদিন ধরে সরনজাই বাজারে কাপড়ের ব্যবসা করতেন। ব্যবসা পরিচালনা করতে গিয়ে ¯’ানীয়দের কাছে অর্ধলাখ টাকা আটকে যায়। সে টাকা ওঠাতে না পেরে ব্যবসা পরিচালনা করতে তার সমস্যা সৃষ্টি হয়।

পরে বাধ্য হয়ে ব্যবসা চালাতে গিয়ে তিনি কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক ও ¯’ানীয় লোকজনের কাছ থেকে সুদে কিছু টাকা ধার করেন। কিš‘ আবারও ক্রেতাদের কাছে অনেক টাকা বাকি পড়ে যায়। এতে ব্যাংক, এনজিও ও সুদের টাকা পরিশোধ করতে সমস্যা সৃষ্টি হয়। এর পর ব্যাংক, এনজিও এবং পাওনাদাররা টাকা পরিশোধের জন্য চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন।

একদিকে দেনা পরিশোধের চাপ, অন্যদিকে করোনা ভাইরাসের কারণে দোকান লকডাউনে বন্ধ থাকা ছাড়াও দোকানে মালামাল না থাকায় বেচাকেনা বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়। এতে তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। এ কারণেই তিনি বৃহস্পতিবার ভোরে তার বাড়ির সামনে আমগাছের অ সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে প্রতিবেশিরা জানান।

তানোর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) রাকিবুল হাসান জানান, সকালের দিকে নিহতের স্ত্রী স্বামীর ঝুলন্ত মরদেহ দেখে চিৎকার করলে ¯’ানীয়রা ছুটে আসেন। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। এর আগে চলতি মাসে গত বৃহস্পতিবারে তানোরের গৃহবধূর ঢাকায় রহস্যজনক মৃত্যু হয়। সেটাকেও আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়া হয়।

অথচ খালেদা নামের ওই গৃহবধূর ময়না তদন্ত বা কোন ধরনের পরীক্ষা করার জন্য কোন নমুনা না নিয়ে দাফন করার অনুমতি দেন থানা প্রশাসন।ওই গৃহবধূর বাড়ি তালন্দ ইউপির বিলশহর গ্রামে। গ্রামের একাধিক ব্যাক্তিরা জানান জেলার মধ্যে তানোরে সবচেয়ে করোনা রোগী বেশি। আর যারাই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাঁরা ঢাকা থেকে এসেছেন। গৃহবধূর স্বামী সন্তানরা ঢাকায় থাকত, তাহলে কেন নমুনা বা ময়না তদন্ত ছাড়াই দাফনের অনুমতি দেয়া হল এমন নানা গুঞ্জন বইছে ওই গ্রামে। এঘটনায় ওসি রাকিবুল হাসান জানান যেহেতু ঢাকায় মৃত্যু হয়েছে, এজন্য দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে বলে দায় সারেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451