ঢাকা ০৩:০৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩, ৯ চৈত্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গ্যাস সংযোগের সুখবর

চলতি বছরের মধ্যেই আবাসিক এলাকায় গ্যাস সংযোগ দেয়া শুরু করার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সম্প্রতি প্রথম সারির সংবাদমাধ্যমকে এমনটাই জানিয়েছেন।

২০০৯ সালের ২১ জুলাই থেকে শিল্প ও বাণিজ্যি এলাকায় নতুন গ্যাস সংযোগ বন্ধ করা হয়। এরপর ২০১০ সালের ১৩ জুলাই থেকে আবাসিকেও নতুন গ্যাস-সংযোগ বন্ধ করা হয়। ২০১৩ সালের ৭ মে আবাসিকে সংযোগ দেয়া শুরু হলেও কিছুদিন পর তা আবার বন্ধ করে দেয়া হয়।

আবাসিকে গ্যাস সংযোগ চালুর বিষয়ে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আনিছুর রহমান বুধবার (০১ জুলাই) সংবাদমাধ্যমকে জানান, ‘বিচার-বিশ্লেষণ চলছে- কী আছে, কী লাগবে, কী দিতে হবে, কী পরিমাণ আবেদন পেন্ডিং আছে। এগুলো নিয়ে আমরা এক্সারসাইজ করছি। এরপর আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের দিকে যাব।’

তিনি এসময় বলেন, অনেকে বেশ কয়েক বছর আগে ডিমান্ড নোট জমা দিয়েছিল, এমন একটা ক্যাটাগরি আছে। কিছু আছে ডিমান্ড ইস্যু করা হয়েছিল। কিন্তু টাকা জমা হয়নি, কিছু অ্যাপ্লিকেশন ছিল, কিছু আছে অবৈধভাবে গ্যাস ব্যবহার করে যাচ্ছে।

সারা দেশে ছয়টি সরকারি কোম্পানি গ্যাস বিতরণ করে থাকে। এগুলো হলো- তিতাস, কর্ণফুলী, পশ্চিমাঞ্চল, জালালাবাদ, বাখরাবাদ ও সুন্দরবন।

ট্যাগস :

আপনার মন্তব্য

আপলোডকারীর তথ্য

গ্যাস সংযোগের সুখবর

আপডেট সময় : ০২:০৫:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ জুলাই ২০২০

চলতি বছরের মধ্যেই আবাসিক এলাকায় গ্যাস সংযোগ দেয়া শুরু করার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সম্প্রতি প্রথম সারির সংবাদমাধ্যমকে এমনটাই জানিয়েছেন।

২০০৯ সালের ২১ জুলাই থেকে শিল্প ও বাণিজ্যি এলাকায় নতুন গ্যাস সংযোগ বন্ধ করা হয়। এরপর ২০১০ সালের ১৩ জুলাই থেকে আবাসিকেও নতুন গ্যাস-সংযোগ বন্ধ করা হয়। ২০১৩ সালের ৭ মে আবাসিকে সংযোগ দেয়া শুরু হলেও কিছুদিন পর তা আবার বন্ধ করে দেয়া হয়।

আবাসিকে গ্যাস সংযোগ চালুর বিষয়ে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আনিছুর রহমান বুধবার (০১ জুলাই) সংবাদমাধ্যমকে জানান, ‘বিচার-বিশ্লেষণ চলছে- কী আছে, কী লাগবে, কী দিতে হবে, কী পরিমাণ আবেদন পেন্ডিং আছে। এগুলো নিয়ে আমরা এক্সারসাইজ করছি। এরপর আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের দিকে যাব।’

তিনি এসময় বলেন, অনেকে বেশ কয়েক বছর আগে ডিমান্ড নোট জমা দিয়েছিল, এমন একটা ক্যাটাগরি আছে। কিছু আছে ডিমান্ড ইস্যু করা হয়েছিল। কিন্তু টাকা জমা হয়নি, কিছু অ্যাপ্লিকেশন ছিল, কিছু আছে অবৈধভাবে গ্যাস ব্যবহার করে যাচ্ছে।

সারা দেশে ছয়টি সরকারি কোম্পানি গ্যাস বিতরণ করে থাকে। এগুলো হলো- তিতাস, কর্ণফুলী, পশ্চিমাঞ্চল, জালালাবাদ, বাখরাবাদ ও সুন্দরবন।