সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

দেশে আক্রান্ত ছাড়াল ১০ হাজার, মৃত্যু বেড়ে ১৮২

বিশেষ প্রতিবেদক :
  • Update Time : সোমবার, ৪ মে, ২০২০

বিশ্বব্যাপী মহামারি রূপ নেয়া করোনাভাইরাসে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। বাংলাদেশেও আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে রেকর্ড সংখ্যক ৬৮৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১০ হাজার ১৪৩ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় আরও পাঁচ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৮২ জনে।

সোমবার (৪ মে) দুপুরে করোনা ভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে এ তথ্য জানান সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি জানান, গত দিনের চেয়ে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৬.৬১ শতাংশ বেশি। এ পর্যন্ত নমুনা সংগৃহীত হয়েছে সর্বমোট ৮৭ হাজার ৬৯৪টি। এ পর্যন্ত সর্বমোট শনাক্তের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে গেল। এই সংখ্যা এখন ১০ হাজার ১৪৩ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫ জন মৃত্যুবরণ করেছেন; এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১৮২ জন।নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় যে ১৪৭ জন সুস্থ হয়েছেন। তাদের মধ্যে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল থেকে ১৩, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল থেকে ১১, ঢাকা মহানগর হাসপাতাল থেকে ৭, রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স থেকে ১৩, মিরপুর লালকুঠি হাসপাতাল থেকে ৪, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ১৪, ঢাকা বিভাগের ১১, চট্টগ্রাম বিভাগের ৭, রাজশাহী বিভাগের ৩, ময়মনসিংহ বিভাগের ১৭, রংপুর বিভাগের ৪ এবং সিএমএইচ থেকে ১৪ জন সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে মোট সুস্থের সংখ্যা দাঁড়ালো ১২০৯ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে যে ৫ জন মারা গেছেন তাদের সবাই পুরুষ। এরমধ্যে ষাটোর্ধ্ব ৩ জন, ৫০-৬০ এর মধ্যে একজন, ৩১-৪০ এর মধ্যে একজন।

এর আগে গতকাল রোববার বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ সংখ্যক ৬৬৫ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্তের কথা বলা হয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে। সেই সঙ্গে আরও দুজনের মৃত্যুর খবর দেয়া হয়। এছাড়া মোট ১০৬৩ রোগীর সুস্থ হওয়ার কথাও বলা হয়।ডিসেম্বরে প্রাদুর্ভাব শুরুর পর থেকে বেশিরভাগ দেশই ভাইরাসটিতে তেমন পাত্তা দেয়নি। অনেক দেশই ধারণা করেছিল, এটি চীনা ভাইরাস এবং এর সংক্রমণ হয়তো ইউরোপ-আমেরিকায় ছড়িয়ে পড়বে না। এজন্য সেখানকার দেশগুলো তেমন কোনো পদক্ষেপও নেয়নি। ফলও দিতে হচ্ছে তাদের। কারণ সংক্রমণ সংখ্যার দিক থেকে প্রথম দেশগুলোর তালিকার মাঝেই নেই চীন।

বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত হলেও প্রথম মৃত্যুর খবর আসে ১৮ মার্চ। দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার।ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়ানো হয় সেই ছুটি, যা এখনও অব্যাহত আছে।পঞ্চম দফায় সেই ছুটি বাড়ানো হয়েছে আগামী ৫ মে পর্যন্ত। তার আগেই আরেক দফা ছুটি বাড়ানোর ঘোষণা এসেছে। যার প্রজ্ঞাপন এখনও জারি করা হয়নি। বলা হচ্ছে, এ দফায় ছুটি বাড়িয়ে ১৫ কিংবা ১৬ মে পর্যন্ত করা হবে।করোনা পরিস্থিতিতে শুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশ্বের বেশিরভাগ দেশের পদক্ষেপ অনেকটা এ রকমই। তবে এর মাঝেও কিছু কিছু দেশ তাদের দেয়া লকডাউন কিছুটা শিথিল করছে। স্পেন, জার্মানি ও ভারত সেই পথে হেঁটেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালিও তেমনটাই ভাবছে।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের সংখ্যা ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার তথ্যানুযায়ী সোমবার (৪ মে) সকাল পৌনে ৯টা পর্যন্ত মহামারি করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫ লাখ ৬৬ হাজার ৪ জনে দাঁড়িয়েছে। ২১০টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাস এ পর্যন্ত ২ লাখ ৪৮ হাজার ২৮২ জন মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে।

আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১১ লাখ ৫৪ হাজার ১৪ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন ২১ লাখ ৬৩ হাজার ৭০৮ জন। এদের মধ্যে ২১ লাখ ১৩ হাজার ৬৬৮ জনের শরীরে মৃদু সংক্রমণ থাকলেও ৫০ হাজার ৪০ জনের অবস্থা গুরুতর।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

Leave a Reply

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone