শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

Surfe.be - Banner advertising service

শরণখোলায় পুলিশের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ

বাগেরহাট প্রতিনিধি :
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১১ জুন, ২০২০

বাগেরহাটের শরণখোলা থানা পুলিশের বিরুদ্ধে এক গার্মেন্টস কর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। বুধবার সকালে গার্মেন্টস কর্মী স্বপন আহমেদ হাওলাদারকে (৩৫) গ্রেফতার করে নিয়ে আসার সময় তাকে শারীরীক নির্যাতন করে পুলিশ। এসময় অসুস্থ হয়ে পড়লে পুলিশ তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সে শরনখোলা উপজেলার মধ্য-খোন্তাকাটা গ্রামের মৃতঃ নাদের হাওলাদরের ছেলে। তবে পুলিশ বলছে গ্রেফতার করার সময় ধস্তাধস্তি হয়েছে।

পরিবার ও এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার মধ্য-খোন্তাকাটা গ্রামের বাসিন্দা গার্মেন্টস কর্মী স্বপন ও তার বড় ভাই মোঃ ফুল মিয়া হাওলাদারের সাথে পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় স্বপনের বোন রাহিমা আক্তার বাদী হয়ে স্বপনের বিরুদ্ধে সম্প্রতি শরণখোলা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

শরণখোলা থানা পুলিশের এস.আই বিশ^জিতের নেতৃত্বে কনেস্টবল সেলিম ও সোহাগ সহ পুলিশের ৩সদস্যের একটি দল তার বাড়িতে প্রবেশ করে স্বপনের নাম ধরে ডাক দেয়। এসময় তার স্ত্রী শারমিন (২২) ঘরের দরজা খুলতেই পুলিশ সদস্যরা ঘুমন্ত স্বপনকে বিছানা থেকে টেনে হিঁচড়ে খাট থেকে নামিয়ে মারধর করতে করতে নিয়ে যায়।

স্বপনের বড় ভাইয়ের স্ত্রী রঞ্জিনা বেগম বলেন, পুলিশ সদস্যরা স্বপনকে ঘর থেকে মারতে মারতে রাস্তায় নিয়ে যায় এবং বলে পুলিশ কি জিনিস তোকে এবার ভাল করে বোঝাব বলে রাস্তায় ফেলে উপর্যপুরী মারপিট করতে থাকে এসময় স্বপনের স্ত্রী নির্যাতন থেকে তার স্বামীকে বাচাঁতে পুলিশের হাতে পায়ে ধরে কান্নাকাটি করতে থাকে। তারপরও পুলিশ তাকে মারধর করে।

শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ ফরিদা ইয়াছমিন বলেন, থানা থেকে দুপুরে স্বপন নামের এক যুবককে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ওই রোগীর হার্ট ব্লক হয়ে যাওয়ার কারনে তাকে তাৎক্ষনিক খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

শরণখোলা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস.কে আব্দুল্লাহ আল সাঈদ জানান, স্বপন মামলার এজাহারভুক্ত আসামী । পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে গেলে স্বপনের সাথে পুলিশ সদস্যের ধস্তাধস্তি হয়েছে, কিন্ত মারধর করা হয়নি। পরে অসুস্থ হয়ে পড়লে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসকরা হার্ট ব্লক হয়ে অসুস্থতার কথা জানালে তাকে তাৎক্ষনিক খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। সে বর্তমানে আগের চেয়ে এখন অনেক সুস্থ।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

Leave a Reply

More News Of This Category
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone