শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৫:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

সৈয়দপুর শহরে রিক্সাতেই তীব্র যানজট

জহুরুল ইসলাম খোকন, সৈয়দপুর প্রতিনিধি (নীলফামারী) ঃ
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০
  • ১৭২ বার পঠিত

বাণিজ্যিক শহর হিসেবে খ্যাত এলাকা নীলফামারীর সৈয়দপুর। আয়তনে ছোট হলেও ব্যবসায় প্রসার ঘটায় এই শহর হলো দেশের অষ্টম বাণিজ্যিক শহর। দুর দুরান্তের কর্মহীন মানুষ তাদের অভাব অনটন নিরসনে এই শহরে এসে ধরছেন রিক্সার হ্যান্ডেল অথবা ব্যাটারী চালিত অটো-রিক্সা। ৫-৬ বছর আগেও এই শহরে ছিল ১০-১২টি অটো-রিক্সা ও ২-৩ হাজার পায়ে চালিত রিক্সা। কিন্তু সম্প্রতি সেগুলি বেড়ে হয়েছে কয়েক হাজারের মতো।

এই কারণে সড়কে যেমন বাড়ছে যানযট তেমনি প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। ট্রাফিক বিভাগ লোক মারফত অটো-রিক্সা প্রতি অর্থ আদায়ের ফলে কেউই ট্রাফিক আইন মানছেন না। সড়কের মোড়ে মোড়ে অথবা সড়কেই ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থাকার কারণে যানযটের তীব্রতা বেড়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

স্থানীয়রা বলছেন, যানযট নিরসনে পৌর কর্তৃপক্ষসহ ট্রাফিক বিভাগের কোন মাথা ব্যাথাই নেই। ছোট আয়তনের এই শহরে প্রায় ৩ হাজার ব্যটারী চালিত অটো-রিক্সা ও প্রায় ৫ হাজারের মতো পায়ে চালিত রিক্সা যেখানে সেখানে দাড়িয়ে থাকা সহ দিন দুপুরে ভারী যানবাহন শহরে ঢুকে পড়ায় রাস্তার প্রসস্থতায় হয়েছে সংকীর্ণ। ফলে পায়ে হাটাও দুষ্কর হয়ে পড়েছে।

স্থানীয়রা আরও বলেন পৌর কর্তৃপক্ষ যানযট নিরসনে মাঝে মধ্যে মাইকিং করলেও ট্রাফিক বিভাগ লোক দেখানো তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। রাস্তার উপর যেসব ভ্রাম্যমান দোকানপাট বসানো হয় এবং অটো-রিক্সা দাড়িয়ে থাকে, তাদের মধ্যে যারা প্রতিদিন দামি সিগারেটের প্যাকেট দেয় না, শুধুমাত্র তাদেরই দোকান উচ্ছেদ ও অটো-রিক্সা আটক করা হয় বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন। ট্রাফিক বিভাগের দুই-একজন দীর্ঘদিন থেকে এইক স্থানে কর্মরত থাকায় তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে কেউ সাহস ই পায় না।

আনসারুল নামের এক ছোট ব্যবসায়ী জানান, ২০০৭ সালে সাবেক মেয়র ও বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আখতার হোসেন বাদলের অনুমতিক্রমে শহরের প্রাণকেন্দ্রে সড়কের কোনায় পান-সিগারেটের ব্যবসা শুরু করেন তিনি। দীর্ঘ ১৩ বছর একই জায়গায় ব্যবসা করে তিন মেয়েকে পড়াশোনা চালিয়ে আসলেও কোনো দিনও শহরে যানযটের সমস্যা হয়নি। কিন্তু সম্প্রতি ট্রাফিক বিভাগ তার ওই দোকানটি উচ্ছেদ করে দিয়েছেন। শুধুমাত্র সিগারেটের মোটা অঙ্কের বাকি টাকা চাওয়ার কারণেই তার দোকানটি ওই স্থান থেকে সরানো হয়েছে বলে দুঃখ করেন তিনি।

এ বিষয়ে পৌর কর্তৃপক্ষ বলছেন দোকানপাট উচ্ছেদ বা সরানোর দায়-দায়িত্ব কাউকে দেওয়া হয়নি। ট্রাফিক এর যা কাজ এর বাইরে মাথা না ঘামানোর কথা বলেন তারা।

এ বিষয়ে যানবাহন পরিদর্শক মোঃ নাহিদ এর সাথে কথা বলতে গেলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কোনো কথা বলবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। (চলবে)

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

cover3.jpg”><img src=”https://www.bssnews.net/wp-content/uploads/2020/01/Mujib-100-1.jpg”>

via Imgflip

 

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451