মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৭:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচন: জয়ী হলেন যারা ৭ জেলায় যাত্রীবাহী নৌ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার সু-মিষ্ঠ আম বিদেশে রপ্তানি দৌলতপুরে পূর্ব শত্র“তার জের ধরে বিষ প্রয়োগে ৭ লাখ টাকার মাছ নিধন ময়মনসিংহ জেলা পরিষদে স্থায়ীত্বশীল ও টেকসই উন্নয়নে প্রশাসনের কঠোর নজরদারি আন্তর্জাতিক রেটিং দাবা প্রতিযোগিতা-২০২১: সাত রাউন্ড শেষে শীর্ষে ১ জন হিলিতে আবারও ৭ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ ঘোষণা মান্দায় ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক জাতিগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ সুনামগঞ্জে নগদ টাকাসহ৭ জুয়ারীকে গ্রেফতার কলাপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শিক্ষা উপকরণ, বৃত্তি ও বাই সাইকেল পেলো রাখাইন শিক্ষার্থীরা

Surfe.be - Banner advertising service

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের নেপথ্যের খলনায়কদের ‘বিচারের দাবিতে’ জলঢাকায় সংবাদ সম্মেলন

মোঃ শাহজাহান কবির লেলিন, জলঢাকা প্রতিনিধি (নীলফামারী) ঃ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২০
  • ১১২ বার পঠিত

নীলফামারীর জলঢাকায় ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী পালনের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধু সহ তার পরিবারকে হত্যাকান্ডের নেপথ্যের
খলনায়কদের বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশন। শনিবার দুপুরে ওই ফাউন্ডেশনের কক্ষে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এর আগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে শোক সভায় মিলিত হয়। পরে শোকের দিনে “ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনে”র পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ফাউন্ডেশনের প্রধান সমন্বয়ক যুবলীগ নেতা এনামুল হক। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশন এর শিক্ষক সংঘের সভাপতি শ্রী অনিল চন্দ্র রায়, সাধারণ সম্পাদক সফিয়ার রহমান, ফাউন্ডেশনের চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ রেজোয়ান প্রামানিক, মুক্তিযোদ্ধা নরেশ চন্দ্র রায়।

ফাউন্ডেশনের কার্যকরী সদস্য আলমগীর হোসেন, বিল্লা তৈয়ব, আমজাদ হোসেন, সাইদুল ইসলাম, মমিনুর রহমান প্রমূখ। লিখিত সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারবর্গকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছে। ক্ষমতা দখল করে নেয় সেনাসমর্থিত খোন্দকার মোশতাক সরকার। বঙ্গবন্ধুকে স্ব-পরিবারে হত্যার মাত্র ৯ দিনের মাথায় অর্থাৎ ২৪ আগস্ট ১৯৭৫ সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হন জিয়াউর রহমান।

জিয়াউর রহমান সেনাপ্রধান থাকাকালীন সময়ে ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর অঘোষিত রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন। অধ্যাদেশটিতে দুটি ভাগ আছে। প্রথম অংশে বলা হয়েছে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোরে বলবৎ আইনের পরিপন্থী যা কিছুই ঘটুক না কেন, এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টসহ কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না। দ্বিতীয় অংশে বলা আছে, রাষ্ট্রপতি উল্লিখিত ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে যাদের প্রত্যয়ন করবেন তাদের দায়মুক্তি দেওয়া হলো। অর্থাৎ তাদের বিরুদ্ধে কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না।

১৯৭৯ সালের ৬ এপ্রিল বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী গৃহীত হয়। এই সংশোধনীর মাধ্যমে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশসহ চার বছরে সামরিক আইনের আওতায় সকল অধ্যাদেশ, ঘোষণাকে আইনি বৈধতা দান করা হয়। যে কোন হত্যাকান্ডের বিচার হওয়া আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য জরুরী। সমাজ ও রাষ্ট্র যদি তা করতে ব্যার্থ হয় তবে তার দায়ভার নিতে হবে গোটা জাতিকে।

উপস্থিত সুধী, ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ – এক সুদীর্ঘ ২১ বছরের পথ পাড়ি দিয়ে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসে। তৎকালীন আইন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আবদুল মতিন খসরু ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বিল বাতিলের জন্য ‘দি ইনডেমনিটি রিপিল অ্যাক্ট-১৯৯৬’ নামে একটি বিল সংসদে উত্থাপন করেন। ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর বাংলাদেশ সংসদে মানবতা ও সভ্যতাবিরোধী কলঙ্কিত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল আইন প্রণয়ন করা হয়। ঘোচানো হয় ২১ বছরের জাতীয় কলঙ্ক। আর সেই সাথে সুগম হয় বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারের কাজ শুরু হয় ১৯৯৬ সালের ২ অক্টোবর ধানমন্ডি থানায় একটি ফোজদারী মামলা দায়রের মাধ্যমে।

১৯৯৮ সালের ৮ নভেম্বর মামলার যাবতীয় কার্যক্রম শেষে পনেরো (১৫) জন আসামিকে মৃত্যদন্ড প্রদান করা হয়। আসামি পক্ষের পনেরো জন উচ্চ আদালতে আপিল করেন। আপিলে ১২ জনের মৃত্যুদন্ড বহাল রাখা হয় এবং ৩ জনকে খালাস দেয়া হয়। তবে ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় এলে এ মামলার কার্যক্রম স্থবির হয়ে পরে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় লাভের পর আওয়ামীলীগ সরকার আবার এ বিচারকার্য চালিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ গ্রহন করে। ২০০৯ সালে লিভ-টু-আপিল-এর মাধ্যমে এর বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। আপিল শেষে বারো জনের মৃত্যুদন্ড বহাল রাখেন মহামান্য আদালত।

২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি তারিখে এদের মধ্যে পাঁচ জনের ফাঁসির মাধ্যমে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়। বাকি ছয় জন এখনও বিভিন্ন দেশের আশ্রয়ে পলাতক অবস্থায় আছেন। পলাতকদের মধ্যে একজন এরই মাঝে বিদেশের মাটিতে মৃত্যুবরণ করেছেন।উপস্থিত সুধী, আপনারা জানেন, ২০১০ সালের ফেব্রুয়াারি মাসে বাংলাদেশ হাইকোর্ট সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে । ফলে আবারও প্রমাণিত হোল সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী যা নাকি ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর প্রণীত কলঙ্কিত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে ধারণ করে ছিল, তা অবৈধ এবং অসাংবিধানিক।

আমরা মনে করি, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার হয়েছে ঠিকই। কিন্তু বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের নেপথ্যের খলনায়কদের বিচার হয়নি আজও। প্রায় ৩৫ বছর পর এই হত্যাকান্ডের জন্য সরাসরি জড়িত সাবেক সেনা সদস্যদের দন্ড দেয়া হলেও বেসামরিক কোন ব্যক্তির বিচার হতে দেখা যায়নি। আমরা মনে করি, এটি নিছক হত্যাকান্ড নয়, বরং এর পেছনে একটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিল। হত্যা মামলার রায়ে ও রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের নেপথ্যে আরো কারা ছিলেন এবং কি উদ্দেশ্যে ছিলেন সেটি নিয়ে আরো তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।

আজকে শোকাবহ ১৫ আগস্টে “ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশন” দৃঢ়ভাবে মনে করে, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার করা হলেও, এই হত্যাকান্ডের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের দিকটি অপ্রকাশিত থেকে গেছে। তিনি বলেন, আমরা আরও বিশ্বাস করি, হত্যাকান্ডের নেপথ্যের খলনায়কদের বিচারের আওতায় এনে জাতির সামনে সত্য উন্মোচিত হওয়া অত্যন্ত জরুরী।

২০১৬ সালের আগস্ট মাসে, মাননীয় আইনমন্ত্রী জনাব আনিসুল হক বলেছিলেন, ১৫ই অগাস্টের হত্যাকান্ডের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য এবং যোগশাযশের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তদন্ত করা হবে এবং এবিষয়ে প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহের কাজ চলছে। কিন্তু আফসোস আজ প্রায় ৪ বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেলেও এব্যাপারে জাতি এখনও অন্ধকারেই আছে! আর তাই, আজকের এই শোকাবহ ১৫ আগস্টে “ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশনের” পক্ষ থেকে আমাদের একটাই দাবী, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের নেপথ্যের খলনায়কদের বিচার চাই, রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের বিচার চাই। প্রয়োজনে আইন পরিবর্তন করে মৃত ব্যক্তির বিচারের বিধান চাই।

Surfe.be - Banner advertising service

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451