বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন

মোংলায় তেল পাচারের নেপথ্যে শক্তিশালী সিন্ডিকেট তদন্তেকোস্ট গার্ড ও পুলিশ

গাজী যুবায়ের আলম, ব্যুরো প্রধান, খুলনা ঃ
  • Update Time : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০২০

বন্দর নগরী মোংলায় দীর্ঘদিন ধরে জাহাজ থেকে ডিজেল (কেরোসিন) পাচারের নেপথ্যে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট সক্রিয় রয়েছে। মোংলা বন্দরে অবস্থানরত বিভিন্ন দেধী-বিদেশি জাহাজে জ্বালানি তেল (বাঙ্কারিং) অসাধু কিছু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় চিহ্নিত সিন্ডিকেট চক্রটি অবৈধভাবে হাজার হাজার মেট্রিক টন ডিজেল পাচার করছে।

যা মোংলা শহর, বাজুয়া, বটিয়াঘাটা, চালনাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে কিছু মাল জব্দ করতে পারলে এর সাথে জড়িতরা রয়েছে ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে সিন্ডিকেট গ্র“পটি দল আর উচ্চ পর্যায় নেতৃবৃন্দের নাম ভাঙিয়ে হাজার কোটি টাকা মালিক হয়েছে অনেকে। এতে একদিকে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব, অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে সুনাম নষ্ট হচ্ছে সমুদ্র বন্দরের।

সূত্র জানায়, শক্তিশালী একটি চোরাই গ্র“প বন্দরে আসা দেশী-বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজ থেকে বিভিন্ন ধরনের জ্বালানী তেলসহ মূল্যবান মালামাল চুরি করে কালোবাজারে পাচারের অভিযোগ বহুদিন থেকে। এতে করে সরকার মোটা অংকের রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বন্দরে আসা বিদেশী বিভিন্ন জাহাজে কাস্টমসের পিও (প্রিভেন্টিভ অফিসার) থাকা সত্ত্বেও কিভাবে তেল পাচার হয় এবং কাস্টমসের ভূমিকা নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে নানা প্রশ্ন রয়েছে। বন্দরের হারবার বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রতি মাসে ৭০ থেকে ৭৫টি দেশী-বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজ বহু রকমের পণ্য নিয়ে এ বন্দরে আসে।

চলতি অর্থ বছরের জুন মাস থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ২ শতাধিকের মতো জাহাজ পণ্য নিয়ে এ বন্দরে ভিড়েছে। এসব জাহাজ থেকেই মূলতঃ তেলসহ মুল্যবান মালামাল পাচার করে থাকে জাহাজের সাথে সংশি¬ষ্ট সংঘবদ্ধ চোরাকারবারীরা। এ সকল জাহাজ হতে রাতে অন্ধকারে টন-কে টন তেল (ডিজেল) পাচার করে থাকে সংশি¬ষ্ট চোর চক্রের সদস্যরা। মোংলা জাহাজের বৈধ কাগজপত্রের মাধ্যমে কয়েকজন ব্যবসায়ী অভিযোগ করে বলেন, বন্দরে আগত দেশী-বিদেশী জাহাজে বাজার সরবরাহের নামে কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যবসায়ী প্রতিদিনই ওইসব জাহাজ থেকে তেল পাচার করে তা কালো বাজারে বিক্রি করছেন।

একই সাথে তারা জাহাজের মূল্যবান মালামালও চুরি করে নিয়ে আসছে। দল ও উচ্চ পর্যায় কিছু নেতৃবৃন্দের নাম ভাঙ্গিয়ে এসব করে তারা রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন বলেও অভিযোগ তাদের। স্থানীয় কতিপয় শিপিং এজেন্টের যোগসাজসে মোংলার মামার ঘাট সংলগ্ন রিজেকশন গলির প্রভাবশালী কয়েক ব্যক্তি এ তেল পাচার কারবারের সাথে ওৎপ্রোত ভাবে জড়িত। এক শ্রেণীর অসাধু শিপিং এজেন্ট অতি মুনাফার আশায় অবৈধ এ কারবারে সরাসরি সহযোগিতা করছেন জাহাজের নাবিকসহ সংঘবদ্ধ চোরাকারবারী চক্রটি। এ গ্র“পটির বিরুদ্ধে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে একাধিক অভিযোগও রয়েছে।

আর বার বার চোরাকারবারীদের মাধ্যমে বেপরোয়াভাবে জাহাজের মূল্যবান মালামাল পাচারের খবরে আন্তর্জাতিক বাজারে এ বন্দরের সুনাম ক্ষুন্নের আশংকা করছে বন্দর ব্যাবহারকারীরা। মোংলা বন্দর স্টিভিডরিং ওয়াচম্যান ওয়েলফেয়ার সংঘের সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, বন্দরে নোঙ্গর করা জাহাজ থেকে কখনও চোরাকারবারীরা জোর করে মালামাল পাচার করতে পারেনা। এর সাথে জাহাজের ক্যাপ্টেন, শিপ অফিসার ও শিপ ইঞ্জিনিয়ার জড়িত। গত মঙ্গলবার যে তেল পাচার হয়েছে, সেখানে ফেরিওয়ালা গ্র“প ১২ টন ডিজেল দু’টি ট্রলারে বোঝাই করে নেমে আসে।

একটি ট্রলার মোংলা বাজারে পৌঁছে গেলেও অপর ট্রলারটি আটক করে কোস্ট গার্ড। তবে জাহাজে পাহারারত ওয়াসম্যান বাধা দিলে পাচারকারী এ শক্তিশালী গ্র“পটি তাদের কর্মস্থলে কাজ করতে সমস্যা হবে বলে কোন প্রতিবাদ করে না বলে জানান তিনি। থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, গত সোমবার দিবাগত রাতে ৫০ ব্যারেল ডিজেল থানায় নিয়ে আসে কিন্ত তেলগুলো সম্পূর্ণ বুঝে নেয়া হয়নি। কারন ব্যারেলে থাকা তেলের মধ্যে পানি মিশ্রিত রয়েছে। তবে সংশি¬ষ্ট পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাস্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দিন জানান, পণ্যবাহী জাহাজে ওয়াসম্যান ও কাস্টমস সার্বক্ষণিক নিয়োজিত থাকে, তার পরও অজ্ঞাত কারনে মালামাল পাচার হচ্ছে। বন্দরে আসা দেশী-বিদেশী জাহাজ থেকে তেলসহ মূল্যবান মারামাল পাচার ঠেকাতে কোস্ট গার্ডসহ সংশি¬ষ্ট আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়েছে বলেও জানান বন্দরের এ কর্মকর্তা।

মোংলা কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন সদর দপ্তরের অপারেশন কর্মকর্তা লেঃ ইমতিয়াজ আলম বলেন, সোমবার দিবাগত রাতে বন্দরের হারবাড়িয়া এলাকা থেকে বেশ কিছু ডিজেল জব্দ করা হয়েছে। বন্দর ও বন্দর সংলগ্ন এলাকায় চোরাচালান বিরোধী অভিযান অব্যাহত রয়েছে, তারপরও অভিযোগের ভিত্তিতে মোংলা বন্দরে তেল চোরাকারবারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। অচিরেই তেল পাচার সিন্ডিকেট গ্র“পটিকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

Leave a Reply

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone