সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রতিকার দাবিতে গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৩১ বার পঠিত

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার যোগিপাড়া গ্রামের আনছার আলীর পুত্র উজ্জল হোসেনকে গাইবান্ধা ফায়ার সার্ভিসের সামনে থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে সাদা স্টাম্পে ও ফাঁকা নিকাহনামায় স্বাক্ষর নেয়। এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে উজ্জল হোসেনকে আসামি করে রাহেলা বেগম বাদি হয়ে গত ১৬ আগস্ট ২০০০ সালের নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যাল-১ এ (সংশোধিত/০৩ এর ১১(খ) (গ) ধারায়) একটি মামলা দায়ের করে। এরই প্রতিকার দাবিতে শনিবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উজ্জল হোসেন লিখিত বক্তব্যে উলে¬খ করেন, গাইবান্ধা শহরের মধ্যপাড়ায় মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র সংলগ্ন ‘সানিলা ডায়াগনস্টিক সেন্টার’ নামে প্যাথলজিতে টেকনোলজিস্ট হিসেবে চাকরি করে আসছিল। ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি মাতৃসদন সংলগ্ন হওয়ার সুবাদে উজ্জল হোসেন বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার কাজগুলো নিয়মিত করে আসছিল। আর এই কাজগুলো গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার হরিরামপুর গ্রামের বাসিন্দা মাতৃসদনে কর্মরত পরিদর্শিকা রাহেলা বেগম ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিভিন্ন কাজগুলো সম্পন্ন করার জন্য নিয়ে আসতো।

উজ্জল হোসেন ভাল কাজ করার সুবাদে যৌথভাবে রাহেলা বেগম নতুন করে আলাদা ডায়াগনস্টিক সেন্টার নির্মাণ করার ব্যাপারে তার সাথে বিভিন্ন ধরণের আলাপ আলোচনা করে যৌথভাবে কাজ করার ব্যাপাারে উভয়ে সম্মত হয়। সেসময় থেকে রাহেলা বেগমকে ডায়াগনস্টিক সেন্টার নির্মাণ করার কথা বলে বিভিন্ন সময়ে উজ্জলের কাছ থেকে চেকের মাধ্যমে ১০ লাখ এবং নগদ ১০ লাখ ২০ হাজার টাকা গ্রহণ করে। এরই একপর্যায়ে রাহেলা বেগম গোবিন্দগঞ্জ বদলী হওয়ায় উজ্জল হোসেন ডায়াগনস্টিক সেন্টার নির্মাণ করার কথা বললে সে নানা তালবাহানা করতে থাকে এবং প্রদানকৃত টাকা ফেরত চাইলে বিভিন্ন ধরণের হুমকি প্রদর্শন করতে থাকে।

এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে গত ২৯ জুলাই রাহেলা বেগম তার শহরের পশ্চিমপাড়ার বাসায় ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের দিয়ে উজ্জল হোসেনকে তুলে নিয়ে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক সাদা স্টাম্পে ও ফাঁকা নিকাহনামায় স্বাক্ষর নেয়। ফলে উজ্জল হোসেন এখন চাকরি হারিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে এবং মানববেতর জীবন যাপন করছে। সংবাদ সম্মেলনে উজ্জল হোসেন জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন, গাইবান্ধা সদর থানাসহ সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে এই নির্যাতন এবং হয়রানীর প্রতিকার দাবি করে।

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451