বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন

সড়কে শৃঙ্খলা বড় চ্যালেঞ্জ খুলনায়!

গাজী যুবায়ের আলম, ব্যুরো প্রধান, খুলনা ঃ
  • Update Time : বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০

খুলনা মহানগরীর অন্যতম প্রধান সমস্যা যানজট। তুলনামূলক কম প্রশস্তের সড়ক, অবৈধ যানবাহন, অনুন্নত ট্রাফিক ব্যবস্থা, সড়ক-মহাসড়কের বেহাল দশাসহ নানা কারনে ভোগান্তি বাড়ছে। বিশে¬ষকরা বলছেন, চালকদেরও প্রশিক্ষণ দিতে হবে। পেশাগত দক্ষতার উন্নয়ন ছাড়া সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো সম্ভব নয়। রাস্তার অবকাঠামো পরিবর্তন জরুরি।

শহরের মধ্যে পরিবহণ বাস প্রবেশ বন্ধ ও গাড়ির গতি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। মানুষের ভেতরে সচেতনতা বাড়াতে হবে। জানা যায়, খুলনার অধিকাংশ সড়কের মোড়ে খানাখন্দ ও অনুন্নত ট্রাফিক ব্যবস্থার কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে। নগরীর ব্যস্ততম মোড় গল¬ামারী এলাকা। শহর থেকে প্রতিদিন এ পথে অসংখ্য যানবাহন বিভিন্ন গন্তব্যস্থলে ও একই সাথে বাইরে থেকেও যানবাহন প্রবেশ করে। কিন্তু সড়কের সংযোগস্থল ও মোড়ে ছোট-বড় খানাখন্দে বিপদজনক অবস্থার তৈরি হয়েছে।

একইভাবে সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনাল, সামছুর রহমান রোড, শান্তিধাম মোড়ে সড়কের বিটুমিন ও ইট উঠে গর্ত তৈরি হয়েছে। এসব স্থানে চালকরা যানবাহনের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। বিপদজনক এসব স্থানে দ্রুত মেরামতের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ভূক্তভোগীরা। জানা গেছে, খুলনা মহানগরীর ব্যস্ততম মোড়গুলোর মধ্যে সোনাডাঙ্গা, গল¬ামারী, জিরোপয়েন্ট, শান্তিধাম মোড় পরিচিত। এসব মোড়ে যানজটের কারণ ট্রাফিক পুলিশের স্বল্পতা ও সড়কের খানাখন্দ।

নামে ব্যস্ততম হলেও মোড়গুলোতে যানবাহন চলাচল করে একেবারে ধীরগতিতে। গাড়ির ক্ষতি রক্ষা করতে কিংবা গাড়ির ধাক্কা সামলাতে কেউই এখানে ঝুঁকি নেন না। সরেজমিন নগরীর সোনাডাঙ্গা, গল¬ামারী, জিরোপয়েন্ট, শান্তিধামসহ অন্যান্য মোড়ে খানাখন্দে ভরপুর থাকতে দেখা গেছে। যাত্রীদের কিংবা চালকদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। সোনাডাঙ্গা মোড়স্থ ব্যবসায়ী শামসুর রহমান বলেন, যে যতই ভালো ড্রাইভার হোক আর যত জোরে চালাতে চায় না কেন, মোড়ে এলে সবাই সাবধান। কেউ নিজের ক্ষতি করতে চায় না।

তাই খানাখন্দের ভয়ে একের পর এক চলাচল করে। কোন ট্রাফিকও লাগে না। গল¬ামারী মোড়ের চা ব্যবসায়ী সোহাগ হোসেন বলেন, শুধু গল¬ামারী নয়, অনেক মোড়ই আছে যেখানে চালক ও যাত্রীদের নিয়মিতই ভোগান্তি পোহাতে হয়। এসব মোড় দিয়ে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা যাতায়াত করলেও কারও নজরে পড়ে না।

ইজিবাইক চালক সোহরাব হোসেন বলেন, শহরের মোড়গুলোর এমন অবস্থা যেন যাত্রী ও চালকদের শাস্তি দিতেই এমন অবস্থা। কিছু পথ ভালো থাকলেও মোড়গুলোর অবস্থা একেবারেই নাজুক। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী লিয়াকত আলী খান বলেন, মোড়গুলো সড়ক ও জনপদ এবং কেডিএ’র আওতাধীন। তারপরও মোড়গুলোতে পুরাতন ইট দিয়ে মেরামত করা হয়। এগুলো প্রজেক্টের মধ্যে রয়েছে পাশ করানোর জন্য। দ্রুত এই কাজ হবে বলে আশা করা যায়।

 

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

Leave a Reply

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone