সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০১:১১ অপরাহ্ন

খালাস না করায় মোংলা বন্দরে নিলামে উঠছে ৯২টি বিলাশ বহুল গাড়ি

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৭৭ বার পঠিত

মহামারী করোনাভাইরাসের প্রভাবে খালাস না করায় নিলামে উঠছে মোংলা বন্দরে পড়ে থাকা ৯২টি রিকন্ডিশন বিলাশবহুল গাড়ি। এ নিলাম প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে ১১৫টি দরপত্র বিক্রি হয়েছে। গতকাল ২৭ অক্টোবর এ দরপত্র জমা ও গতকাল বুধবার দুপুর ১টায় দরপত্র খুলে খুলনা-মোংলা কাস্টমস্ হাউসে এসব গাড়ী নিলামে তোলা হবে বলে জানায় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

মোংলা কাস্টমস হাউসের ডেপুটি কমিশনার মোঃ মেহেবুব হক একথা নিশ্চিত করে জানান, আমদানিকারকরা সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ৩০ দিনের মধ্যে খালাস না করায় দীর্ঘদিন মোংলা বন্দরের শেডে প্রায় ৯৬১টি গাড়ি পড়ে ছিল। গত মার্চ থেকে করোনা মহামারী প্রকট আকার ধারণ করায় নিলাম প্রক্রিয়া বন্ধ করা হয়।

এ অবস্থায় করোনা পরিস্থিতি একটু সিথিল হওয়ায় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ র্দীঘ ৭ মাস পর গাড়িগুলো পুনরায় নিলামে বিক্রির উদ্যোগ নেয়। তিনি আরো জানান, এ জন্য চলতি মাসের ৮ অক্টোবর এর দরপত্র আহ্বান করা হয়। ১৩ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে গাড়ি নিলামের (সিডিউল) দরপত্র ও ক্যাটালগ বিক্রি চলে ১৯ অক্টোবর পর্যন্ত। সবকিছু ঠিক ঠাক রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি ও কাস্টমস আইন মেনে গতকাল মঙ্গলবার সিডিউল জমা নেয়া শেষ হয় এবং আজ বুধবার ২৮ অক্টোবর এসব গাড়ি নিলামে তোলা হবে।

আর ২০ অক্টোবর থেকে ২১ অক্টোবর বিকেল পর্যন্ত যারা এ নিলামে অংশ গ্রহন করবে তারা বন্দর কর্তৃপক্ষের সেডে এ গাড়ি গুলো ঘুড়ে দেখেছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা। তবে নিলামে ওঠা ৯২টি গাড়ির আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের নাম বলতে চাননি এ কাস্টমস কর্মকর্তা। এ বিষয় কাস্টমসের পূর্বের নিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠান নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, মোংলা বন্দরে প্রায় ৫০টিরও বেশী আমদানিকারক কোম্পানির কয়েক হাজার গাড়ি রয়েছে। আমদানি নিষিদ্ধ, আমদানিকৃত গাড়ি সময় মত না নেয়া ও শুল্ক জটিলতার কারনে অনেক গাড়ি এখানে রয়ে গেছে।

সেগুলোকে মূলতঃ সরকারি ও কাস্টমসের আইন অনুযায়ী নিলামের উঠানোর কথা কিন্ত এখন পর্যন্ত তা নিলামের উঠানো হচ্ছে না। তবে দীর্ঘ ৭ মাস পর এবারের সর্বাচ্চ দরদাতারই এ নিলামের অংশিদারিত্ব হবে। এ উপলক্ষে নিলাম বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গাড়ির নিলাম ডাকা ও দরপত্র আহ্বান করে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (ট্রাফিক) মোঃ মোস্তফা কামাল জানান, ২০১১ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত আমদানিকারকরা মোংলা বন্দর দিয়ে কয়েক হাজার গাড়ি আমদানি করে। এর মধ্যে ১ হাজার ৪৩৮টি গাড়ি সময়মত খালাস করতে না পারায় নিয়মানুযায়ী বন্দর কর্তৃপক্ষ কাস্টমস কর্তৃপক্ষকে নিলামে তোলা বা দ্রুত খালাস করার জন্য সুপারিশ করে। এ সকল গাড়ি ছাড়াও ২০১১ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দীর্ঘদিন যাবত ৯৬১টি গাড়ি বন্দরে পড়ে আছে, তা থেকে ২৮ অক্টোবর ৯২টি গাড়ি নিলামে উঠছে।

বহুদিন নিলাম না হওয়ার ফলে আমদানিকৃত গাড়ি সংরক্ষনে জায়গার সংকট সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, মূলতঃ আমদানিকারকরা তাদের আমদানিকৃত গাড়ি এ বন্দর থেকে না নেয়া ও শুল্ক জটিলতা দূর করাই হচ্ছে মূল কারণ। এছাড়াও সরকারের রাজস্ব আদায় করার জন্যই এ গাড়িগুলো নিলামের প্রক্রিয়ায় আনা হয়েছে।

এসব গাড়ির মধ্যে টয়োটা, নিশান, নোয়া, এক্সজিও, প্রোবক্স, প্রিমিও, লেক্সাস, পাজেরো, পিকাপ, ডামট্রাক, এলিয়ান ও মার্সিডিসসহ বিলাশবহুল দামি গাড়ি রয়েছে। কাস্টমস আইন মেনেই এসব গাড়ি নিলামে উঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। এদিকে অভিযোগ রয়েছে, কর ফাঁকি দিতেই এতদিন পেরিয়ে গেলেও এগুলো খালাস করেননি আমদানিকারকরা। আর এখন কৌশলে নামে বেনামে তারাই নিলামে কিনে নিবে এ সকল বিলাশবহুল দামি গাড়িগুলো।

 

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451