শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

কুড়িগ্রামে বাল্যবিয়ে নিয়ে মিডিয়া পাড়ায় তোলপাড় ! নিরব প্রশাসন !

মোঃ সহিদুল আলম বাবুল, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি :
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ৯৩ বার পঠিত

কুড়িগ্রামে এক ইউপি চেয়ারম্যান নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে বিয়ে করায় মিডিয়া পাড়াসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও বিভিন্ন মহলে তোলপাড় শুরু হয়েছে ! যিনি বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবেন, অবশেষে তিনিই গত ১ নভেম্বর নবম শ্রেণী পড়ুয়া এক ছাত্রীকে বিয়ে করে নিজ ইউনিয়নসহ গোটা কুড়িগ্রাম জেলায় তোলপাড় সৃষ্টি করে দিয়েছেন ! এ জঘন্যতম অপরাধের খবর জাতীয় ও স্থানীয় অনেক পত্রিকাসহ টিভিতে প্রচারিত হলেও স্থানীয় প্রশাসন আমলে নেয়নি এ বিষয়টি !

বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে, কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তালেব সরকার ওই ইউনিয়ন এর দোলন গ্রামের প্রতিবন্ধী বাচ্চু মিয়ার বাড়িতে দারিদ্রতার সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে ওই পরিবারে আর্থিক সহায়তা দেয়ার নামে লোক চক্ষুর আড়ালে যাতায়াত করতো ! এরপর প্রতিবন্ধী বাচ্চু মিয়ার কন্যা বকশীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী বন্নি আক্তার এর ওপর কুনজর পরে !

যাতায়াতের এক পর্যায়ে নানা প্রলোভন দেখিয়ে নাবালিকা বন্নির বাবা মাকে আয়ত্তে নিয়েই চেয়ারম্যান আবু তালেব সরকার গত পহেলা নভেম্বর বিয়ের পিঁড়িতে বসে ! এ ঘটনার পর পরই ওই এলাকায় দ্রুত ধুম্রজালের তৈরি হয় ! তাৎক্ষণিক বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত হলে, সংবাদকর্মীদের নজরে আসে ! এরপর গত দুইদিন ধরে ফলাওভাবে গণমাধ্যমে বিষয়টি উঠে আসে !

বিয়ের পর থেকে ৪৫ বছর বয়সী ওই জনপ্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হচ্ছে না ! বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের প্রশাসনিক ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আশরাফুল আলম রাসেল কে জানানো হলে, তিনি সাংবাদিকদের জানান, এই মুহূর্তে আমার করার কিছুই নেই, অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে !

যেখানে বাংলাদেশ সরকার বাল্যবিবাহ মুক্ত করার জন্য নির্বিঘ্নে কাজ করে যাচ্ছেন, সেখানে রক্ষকরাই ভক্ষক হয়ে বাল্যবিবাহ করছে !

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চেয়ারম্যান আবু তালেব এর প্রথম স্ত্রী ও একজন কলেজ পড়ুয়া কন্যা রয়েছে! এরপরও দ্বিতীয় বিয়ে করেছিলেন, সেই স্ত্রীর সাথেও বিচ্ছেদ হয়েছে ! এটি তার তৃতীয় বিয়ে ! দোলন গ্রামের এলাকাবাসীরা বলছেন, হতদরিদ্র পরিবারটিকে আর্থিক সহায়তা দিয়ে দিয়ে চেয়ারম্যান ওই কিশোরীকে বসে আনে !

এ ঘটনায় বকশীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মেহেরুজ্জামান জানান, বিয়ে হয়ে গেছে, এখন আর আমাদের কি করার আছে ?
এলাকাবাসীরা আরো জানান, যদি দরিদ্র ঘরের কোন ব্যক্তি এ জঘন্য কাজটি করতো, তাহলে প্রশাসন তাৎক্ষণিক জেল জরিমানা করত ! কি কারনে জনপ্রতিনিধির এ জঘন্য ঘটনায় প্রশাসন নির্বিকার ?

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451