বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৪৮ অপরাহ্ন

সিদ্ধিরগঞ্জে কাউন্সিলরের হাতে মুক্তিযোদ্ধা লাঞ্ছিত

রাশেদ উদ্দিন ফয়সাল, সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি :
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ১০৯ বার পঠিত

সিদ্ধিরগঞ্জের নাসিক ৭’নং ওয়ার্ড এলাকায় এক মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা ঘটেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কাউন্সিলর আলা হোসেন আলাসহ তার সন্ত্রাসী বাহীনির বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা হলেন, একই এলাকার মোজাম্মেল হোসেন। তিনি ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সার্জেন্ট ছিলেন বলে জানা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,নাসিক ৭নং ওয়ার্ড কদমতলী এলাকায় রাস্তা ও ড্রেনের নির্মাণ কাজ শুরু চলছে। যার ধারাবাহিকতায় কদমতলী এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হোসেনের বাড়ির সামনে ড্রেন করার জন্য সিটি করপোরেশনের শ্রমিকেরা সেখানে কাজ শুরু করেন। এসময় মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হোসেন তাদের বাধা দেন। এতে করে মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে কাউন্সিলর আলা হোসেন আলার বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে কাউন্সিলর আলা মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হোসেনকে ধাক্কা দিলে আলার সন্ত্রাসী বাহীনিরা আমাকে মারধর করে।

ভুক্তভোগী মোজ্জামেল হোসেন বলেন,‘আমার বাড়ির সামনে ড্রেন নির্মাণ করবে সেটা আমাদের জন্য অনেক ভালো। আমরা এরজন্য সিটি করপোরেশনকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তবে ড্রেন ও রাস্তার জন্য আমি বাড়ি করার আগেই জায়গা ছেড়ে দিয়ে ছিলাম। কিন্তু আমার উল্টো দিকে বাড়ির মালিক কোন জায়গা ছাড়েনি। যখন ড্রেন করতে আসছে তখন আবারও জায়গার জন্য আমার বাড়ি ভাঙতে গেলে আমি বাধা দেই। তখন কাউন্সিলরকে অনুরোধ করি যাতে না ভাঙে।

আমি ওনাকে বলি যে আমি আগেই জায়গা দিয়ে রেখেছি তাহলে আবার কেন আমার বাড়ি ভাংবেন। পাশের বাড়িওয়ালা জায়গা ছাড়েনি সেখান থেকে ভাঙ্গেন। এতে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে যান। বলেন সেখানে ফাউন্ডেশন করা বাড়ি ভাঙ্গা যাবে না এদিক থেকেই ভাঙ্গতে হবে। এতে আমি প্রতিবাদ করলে কাউন্সিলর আমাকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেয়।’ তিনি বলেন,‘মুক্তিযোদ্ধা হয়ে দেশ স্বাধীন করেছি। আজ নিজের বাড়ির রক্ষা করতে গেলে কাউন্সিলর আমাকে ধাক্কা দিলে আলার সন্ত্রাসী বাহীনি আমাকে মারধর করে।

আমি এর বিচার চাই।’ মুক্তিযোদ্ধা লাঞ্ছিতের অভিযোগ অস্বীকার করেন কাউন্সিলর আলা হোসেন আলা বলেন,‘ আমি তাকে কোন ধাক্কা বা মারধর করিনী। ওনাকে বলেছি রাস্তা সবার জন্য। আর রাস্তা করতে গেলে কারো তিনফুট যায় আবার কারো এক ফুট। এভাবেই সবাই মিলে রাস্তা করতে দেয়। এখানে যেতেহু একটু অংশ পরেছে সেহেতু এদিক থেকে ভেঙ্গে করে ফেলি। কারণ ওই পাশে ফাউন্ডেশন দেওয়া ভবন। যা ভাঙ্গতেও সমস্যা। এর বেশি কোন কথা হয়নি।

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451