শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১১:৪৬ অপরাহ্ন

তানোরে অ্যাসাইমেন্টের নামেও শিক্ষকদের টাকা আদায়

আব্দুস সবুর, তানোর প্রতিনিধি(রাজশাহী) ঃ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১০ নভেম্বর, ২০২০
  • ২১৯ বার পঠিত

মহামারী প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের জন্য বার্ষিক পরীক্ষার পরিবর্তে অ্যাসাইমেন্টের প্রশ্ন পুরুন করে শিক্ষার ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে এসিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় ও শিক্ষার্থীদের বাড়িতে পৌছিয়া দেয়া এবং কোন ধরনের টাকা আদায় করা যাবেনা। সেই সুযোগে রাজশাহীর তানোরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা নির্দেশনাকে অমান্য করে শিক্ষার্থীদের স্কুলে ডেকে টাকা আদায় করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার প্রায় স্কুলগুলো গত রোববারে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হয় বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছেন। এদিকে উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার আমিরুল ইসলাম তাঁর ফেসবুক আইডিতে টাকা আদায় না করার জন্য পোষ্ট দিয়েছেন। কিন্তু কোন প্রতিষ্ঠান সেদিকে নজর না দিয়ে দেদারসে ডেকে টাকা আদায় করেছেন। অথচ শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠানে যাওয়া নিষেধ, তাদের নিজ বাড়িতে সেই অ্যাসাইমেন্ট পৌছিয়ে দেওয়ার নিয়ম।

এর আগেও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কোন শিক্ষক যেন প্রাইভেট বা কোচিং সেন্টারে না পড়ায় জানিয়ে ফেসবুকে পোষ্ট দেন এবং যারা এর সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ারও কথা বলা হয়। এতে কোন কাজ হয়নি উপজেলা জুড়ে ব্যাঙ্গয়ের ছাতার মত প্রাইভেট ও কোচিং করাচ্ছেন বানিজ্য লোভী শিক্ষকরা। বিশেষ করে প্রশাসনের নাকের ডগায় দেদারসে প্রাইভেট কোচিং সেন্টারে থেকে শতশত শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করলেও কোন পদক্ষেপ না নেওয়ার কারনে দিনের দিন এর আকার বাড়তেই আছে।

জানা গেছে, চলতি মাসের প্রথম থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে অ্যাসাইমেন্ট প্রশ্ন পুরুনের কাজ। স্কুল মাদরাসায় ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত বার্ষিক পরীক্ষার বিপরীতে কোভিড-১৯ এর জন্য এবং শিক্ষার্থীদের পড়া লেখার দিকে মনোযোগ রাখা কোমল মতি শিক্ষার্থীদের মাঝে যাতে করে কোনভাবেই করোনা নামক ভাইরাসটি দেখা না দেয় তাঁর জন্য অ্যাসাইমেন্টের ব্যবস্থা করা ।

শুধু তাইনা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতে করে কোনভাবেই শিক্ষার্থীরা না আসে এবং প্রতিটি শিক্ষার্থীর বাড়িতে পৌছিয়া দেওয়ার নির্দেশ দেয়া ও একটি টাকাও নেওয়া যাবেনা। বাড়িতে পৌছিয়ে দেওয়াতো দূরে থাক শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠানে ডেকে অ্যাসাইমেন্ট হাতে ধরিয়ে দিয়ে জন প্রতি ২০ টাকা করে আদায় করা হয়েছে। প্রায় ছয় সপ্তাহ চলবে এজন্য প্রতি শিক্ষার্থীর নিম্মে ১০০ টাকা থেকে ১২০ টাকা খরচ হবে বলেও একাধিক শিক্ষকরা জানান।

অ্যাসাইমেন্টের নমুনা
কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে ২০২০ শিক্ষাবর্ষে পূর্ণবিন্যাশকৃত পাঠ্যসূচীর ভিত্তিতে অ্যাসাইমেন্ট/ নির্ধারিত কাজ ও মূল্যায়ন
তাঁর নিচে শ্রেণী- নবম বিষয়ঃ বাংলা
দাগের মধ্যে
অ্যাসাইমন্টের ফরম অধ্যায় ও বিষয়বস্তুর শিরোনাম অ্যাসাইমেন্ট/ নির্ধারিত কাজ মূল্যায়ন নির্দেশ।
এসবের নিচে ১ম অ্যাসাইমেন্ট—কপোতাক্ষ নদী— একজন দেশ প্রেমিক নাগরিকের দশটি গুণ ১০ ব্যাকে প্রকাশ কর —- দেশ প্রেমের বিষয়টি উল্লেখ করতে হবে—- দেশ প্রেমিক নাগরিকের ১০ টি গুণ লিখতে হবে —- বাক্য গঠন ও বানান শুদ্ধ হবে—মূল্যায়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকবৃন্দু নিম্মলিখিত বিষয়ের প্রতি গুরুত্ব দিবেনঃ ১, বিষয় বস্তুর সঠিকতা ২, প্রশ্নের নির্দেশনা অনুযায়ী ধারাবাহিকভাবে উত্তরের মিল/ অমিল চিহ্নিতকরন – ৩, নির্ভুল ভাবে শব্দ ও বাক্য ব্যবহারের সক্ষমতা— ৪, মানচিত্র অংকনের সঠিকতা এবং সঠিক ভাবে জনপদের অবস্থান চিহ্নিতকরন।তবে এই অ্যাসাইমেন্ট সম্পর্কে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের একেবারেই ধারনা নেই বললেই চলে।

নাম প্রকাশ না করে বেশকিছু শিক্ষকরা জানান শুধু ফটোকপির জন্য ২০ টাকা করে মোট ১২০ টাকা নেয়া হবে।

এদিকে অবাক করার বিষয় অ্যাসাইমেন্টের প্রথম দিকে শাসক দলের অনেক শিক্ষক নেতাদের সাথে ঢাকায় ছিলেন। যার ফলে ইচ্ছেমত দীর্ঘ সময় পর শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ঝোপ বুঝে কোপ মেরে দিয়েছেন। অথচ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে বসে থেকেও বেতন তুলছেন মানুষ গড়ার কারিগর নামের শিক্ষকরা। কিন্তু নির্দেশনার পরো টাকা তুলতে কোন দিধাবত নেই তাদের। এমন কি ১০০/১২০ টাকা ভুরতুকি দিতে রাজি না। রোববার সকালের দিকে মুণ্ডুমালা যাওয়ার পথে প্রানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা হাতে অ্যাসাইমেন্টের ফরম নিয়ে আসতে দেখে জানতে চাওয়া হলে ফরম দেখিয়ে জানান ৩০/৪০ টাকা করে নেয়া হয়েছে।

বেশ কিছু শিক্ষার্থীরা জানান অ্যাসাইমেন্ট সম্পর্কে আমাদেরকে কোন ধরনের ধারনা দেন নি। আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে জেনে কাজ করছি। আবার লাইনে দাঁড়িয়ে ত্রানের মত করে ফরম নিতে হয়েছে এবং জমাও দিতে হবে স্কুলে গিয়ে।

মডেল পাইলট স্কুলের প্রধান শিক্ষক সেলিম ঢাকায় থাকার কারনে দায়িত্ব দেন আহসান নামের শিক্ষককে তাঁর সাথে কথা বলা হলে টাকা নেওয়ার বিষয় প্রথমে অস্বীকার করেন তখন স্কুলে শিক্ষার্থী আসতে পারবেনা এবং শিক্ষার্থীরাই টাকা নেওয়ার কথা বলেছে প্রশ্ন করা হলে সুর পালটিয়ে জানান এসব ছোট বিষয়ে কথা না বলাই ভালো এবং আমি ধান ভাঙ্গানো মিলে আছি সাক্ষাতে কথা বলা হবে।

তালন্দ এএম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলতাব হোসেন জানান কোন টাকা নেওয়া হয়নি। তবে শিক্ষার্থীদের স্কুলে ডেকে ফরম দেয়া হয়েছে।
পাথাকাঠা প্রানপুর বালিকা স্কুলের প্রাধান আঞ্জুমান আরা জানান প্রতিটি স্কুল শিক্ষার্থীদের ডেকে ফরম দিয়েছে আমরাও তাই করেছে। ফরম প্রতি ২০ টাকা করে নিয়েছেন কেন জানতে চাইলে প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে জানান ৫ টাকা করে নেয়া হয়েছে।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে জবাব দেয়া হবে বলে দম্ভক্তি প্রকাশ করেন। কৃষ্ণপুর স্কুলের প্রধান শিক্ষক আজহার আলী জানান শিক্ষার্থীদের ডেকে সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে ফরম দেয়া হয়েছে কোন টাকা নেওয়া হয়নি। চাপড়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক জিল্লুর রহমান ফোন রিসিভ করেননি। তিনি অবশ্য ঢাকায় আছেন।

মুণ্ডুমালা বালিকা স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক সাদিকুল জানান টাকা নেয়া হয়নি যেদিন ফরম জমা হবে সে ফটোকপির টাকা দিতে বলা হয়েছে। পারিশো দুর্গাপুর স্কুলের প্রধান শিক্ষক রাম কমল সাহা জানান শিক্ষার্থীদের স্কুলে এনে ২ তারিখে ফরম দেয়া হয়েছে তারা অ্যাসাইমেন্ট সম্পর্কে ধারনা দেওয়ার জন্য স্কুলে আসতে বলা।

গতকাল সোমবার সকালের দিকে আমশো স্কুলে গিয়ে দেখা শিক্ষার্থীরা গাদাগাদি করে ফরম জমা দিচ্ছেন। সেখান থেকেই প্রধান মতিউর রহমান মুন্টুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে কাজ করার কথা।

শিক্ষা অফিস সুত্রে জানা যায়, উপজেলায় মাধ্যমিক নিম্ম মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে ৬১টি মাদরাসা ২৮ টি শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৪ হাজারের মত। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আমিরুল ইসলাম জানান কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান টাকা আদায় করলে এবং শিক্ষার্থীদের স্কুলে এনে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে কাজ করার বিষয়ে অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451