মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১১ অপরাহ্ন

তানোরে ব্র্যাকের আলু বীজ নিয়ে বেপরোয়া সিন্ডিকেট

আব্দুস সবুর, তানোর প্রতিনিধি(রাজশাহী) ঃ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৯১ বার পঠিত

ব্রাকের আলুর বীজের চাহিদার তুলনায় এক পারসেন্টেরও আমদানি হওয়ার কারনে রাজশাহীর তানোরে এক দিকে বেপরোয়া সিন্ডিকেট অন্যদিকে অস্থির বাজার চাষিদের মাঝে হাহাকারের শেষ নেই।এই সুযোগে বিভিন্ন এলাকা থেকে নিম্মমানের বীজ এনে নির্ধারিত মুল্যের চেয়ে ডিলারেরা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে অসহায় কৃষকদের কাছে বেশি দামে বিক্রি করায় ক্ষুব্ধ হয়ে পড়েছেন চাষিরা।

এছাড়াও বীজ কিনতে চাষিদের মাঝে বইছে চরম হাহাকার। ডিলারদের দোকানে দিনব্যাপী ধরনা দিয়েও চাহিদা মোতাবেক মিলছেনা বীজ।এদিকে ডিলারদের অভিযোগ চাহিদার তুলনায় সামান্য পরিমাণে বীজ পাওয়া গেছে। মুলুত এজন্যই চাষিদের চাহিদা পুরুন করা যাচ্ছেনা। ব্র্যাক বীজ না দিলে এলাকা ছেড়ে পালানো ছাড়া উপায় নেই। কারন যে ভাবে চাষিরা বীজ কিনতে দোকানে ভিড় করছেন যার কারনে প্রচুর হিমশিম খেতে হচ্ছে।

ব্র্যাকের বীজের ব্যাপক চাহিদা থাকার কারনে কিছু অসাধু সাব ডিলারেরা বীজের আলুর সাথে খাবার আলুও দিচ্ছেন বলে একাধিক চাষিরা নিশ্চিত করেন। এতে করে একের পর এক বাজার সিন্ডিকেট হলেও কোন ধরনের নজরদারি নেই প্রশাসনের। ফলে ইচ্ছেমত মত কৃত্রিম সঙ্কট দেখিয়ে চাষিদের পকেট কাটছেন।

শুধু ব্র্যাকের আলু বীজই না এসিআই কোম্পানির বীজ নিয়েও চলছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। অবস্থাটা এমন যে যে ভাবে পারছে সেই ভাবেই সিন্ডিকেট করছেন। ফলে দ্রুত আলু বীজ বিক্রেতাদের দোকানে বা গুদামে অভিযান পরিচালনা করার প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন চাষিরা।

জানা গেছে, জানা গেছে বিগত বছরের তুলনায় গত বছরে আলু চাষিরা প্রচুর লাভ করেন। এমনকি কখনো চাষিরা এত দামে আলু বিক্রি করতে পারেন নি। সেই আসা নিয়ে চলতি মৌসুমে আলু চাষে ঝুকে পড়েছেন চাষিরা। কিন্তু ব্র্যাকের উন্নতমানের বীজ দিয়েই আলু রোপণ করে থাকেন বড় চাষিরা। এবারো সেই আসা নিয়ে ক্ষুদ্র চাষিরাও ঝুকে পড়েছেন ।

সুযোগ বুঝে ব্র্যাকের বীজ নিয়ে শুরু হয়েছে সিন্ডিকেট। নির্ধারিত মুল্যের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি করছেন উপজেলার ব্র্যাকের সাব ডিলাররা। সম্প্রতি তালন্দ বাজারে কীটনাশক ব্যবসায়ী টিপু বীজ বিক্রির সময় জানতে চাওয়া হয় কত টাকা কেজি দামে বিক্রি করছেন। একথা বলা মাত্রই তাঁর ছোট ভাই ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন এখান থেকে চলে যান নইলে অবস্থা খারাপ হবে।

সেখানে বীজ কিনতে আসা একাধিক ব্যাক্তিরা জানান নির্ধারিত মুল্যের চেয়ে অনেক বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। কিছুই করার নাই। টিপু কীটনাশকের ব্যবসায়ী হলেও তাঁর গুদাম ভর্তি সার দেখা যায়। বেজাল কীটনাশক বিভিন্ন জায়গা থেকে আমদানি করে নামিদামি কোম্পানির মোড়কে বিক্রি করেন বলেও তাঁর বিরুদ্ধে অহরহ অভিযোগ রয়েছে। তাঁর কাছে এসব বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান ব্যস্ত আছি কথা বলার সময় নেই।

একাধিক আলু চাষিরা জানান জিওল মোড়ের হাবিব ও কাশেম বাজারের হক ব্র্যাকের প্রতি কেজির দাম নিচ্ছেন প্রকার ভেদে ৭০/৮০ টাকা করে। অথচ ব্র্যাকের নির্ধারিত মুল্য ৫৩ টাকা কেজি। কিন্তু সিন্ডিকেট করে তাঁরা ইচ্ছেমত দাম নিচ্ছেন নইলে বীজ দিচ্ছেনা। এক প্রকার বাধ্য হয়েই নিতে হচ্ছে বীজ।এমনকি উপজেলায় বীজ না পেয়ে বিভিন্ন জেলা উপজেলা থেকে বাড়তি দামে কিনছেন চাষিরা।

উপজেলার ব্র্যাকের বীজ ডিলার তালন্দ বাজারের ভাই ভাই বীজ ডিলার মাষ্টার শাহিন জানান উপজেলায় বীজের চাহিদা প্রায় ৫০ মেঃ টনের অথচ এপর্যন্ত পাওয়া গেছে মাত্র ১৮০ মেঃ টন। টাকা দিয়েও বীজ মিলছেনা। তিনি আরো জানান আলুর দাম বেশি পাওয়ার কারনে এই সঙ্কট দেখা দিয়েছে।পাশের জেলা উপজেলা থেকে বীজ সংগ্রহ করে চাষিদের চাহিদা পুরুনের চেষ্টা করা হচ্ছে। যদি কোম্পানি থেকে চাহিদা মত বীজ পাওয়া যেত তাহলে এই হাহাকার হতনা।

উপজেলার কামারগাঁ ইউপি এলাকার নাম প্রকাশ না করে জানান তালন্দ বাজারের ভাই ভাই বীজ ভাণ্ডার থেকে পাচ বস্তা বীজের আলু পেয়েছে। চল্লিশ কেজির বস্তায় দাম নিয়েছে ২ হাজার ৬০০ টাকা। বীজের বস্তার সাথে সেলাই করা কাগজে লিখা আছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, বীজ প্রত্যায়ন এজেন্সি, প্রত্যায়িত বীজ, ট্যাগ নম্বর ৫১৭৫৪৩২,
ফসল আলু, জাত——
লট নম্বর——–
প্রত্যায়নপত্র ইস্যুর তারিখ——–
বৈধতার মেয়াদ——-
বীজের নেট ওজন———
বীজ উৎপাদনের নাম ও ঠিকানা——–
নিচে কর্তৃপক্ষ, নেই কোন স্বাক্ষর এবং ফাকা জায়গায় সিল মারা আছে বোঝার তেমন উপায় নেই।

ব্র্যাকের আলু বীজ দিনাজপুর জেলার ইজঅঈ@ঝঊঊউ, অঘওঝ গক ০১৭৩০-৩৪৯৮৮৬ মোবাইল নম্বরে ফোন দিয়ে বীজের কেজি কত সামান্য পরিমাণ বীজ দেয়া ও ডিলারেরা বেশি দামে বিক্রি এবং আপনার নাম এসব বিষয়ে জানতে চাইলে সাব জানিয়ে দেন কোন কিছুই বলা যাবেনা।

কৃষি অফিস জানায়, চলতি মৌসুমে উপজেলায় আলু চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে প্রায় ১৩ হাজার হেক্টর জমি।

বীজের অতিরিক্ত দামের বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার শামিমুল ইসলামের মোবাইলে একাধিকবার ফোন দিলেও রিসিভ না করায় তাঁর কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুশান্ত কুমার মাহাতো জানান বীজের বাড়তি দাম নিলে কৃষি অফিসারের সাথে আলাপ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451