বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৫৫ পূর্বাহ্ন

ফেন্সিডিলের ডিলারের নামে সেবনের মামলা তোলপাড় তানোর

আব্দুস সবুর, তানোর প্রতিনিধি(রাজশাহী) ঃ
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০
  • ১১৬ বার পঠিত

রাজশাহীর তানোরে ফেন্সিডিলের ডিলারের নামে মাদক সেবনের মামলা দায়ের করায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন উপজেলাবাসি। এতে করে থানা পুলিশের এমন কর্মকাণ্ডে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে সেই সাথে প্রশাসনের এমন অনৈতিক কাণ্ডে হতাশ হয়েছেন সুশীল সমাজ । ফলে প্রশাসনের কর্তা বাবুরা এমন কাজ করায় উঠেছে সমালোচনার ঝড় এবং উঠেছে তদন্ত সাপেক্ষে বদলির দাবি। কারন যারা সেবন করেন তাদেরকে আটক করতে পারলে অনৈতিক সুবিধা দিতে না দিলেই দেয়া হয় ব্যবসায়ীর মামলা বলেও রয়েছে একাধিক অহরহ অভিযোগ।

জানা গেছে, উপজেলার কামারগাঁ ইউপি এলাকার মালশিরাগ্রামের সিরাজ উদ্দিনের পুত্র মনোয়ার হোসেন রনি দীর্ঘদিন ধরে চোবাড়িয়া বাজার সহ আশপাশের এলাকায় বিভিন্ন ব্যাক্তিদের মাধ্যমে ফেন্সিডিল বিক্রি করতেন। বিভিন জনের মাধ্যমে বিক্রি করলেও নিজে থাকতেন আড়ালে।

চৌবাড়িয়া বাজার টি দুই জেলা এবং তিন উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ার কারনে রমরমা ভাবে ফেন্সিডিল ইয়াবাসহ নানা ধরনের মাদক দেদারসে বিক্রি হয়ে থাকে। তাদের মধ্যে রনি অন্যতম ফেন্সিডিলের ডিলার হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেন। তিনি অবশ্য কোন কিছুই নেশাদ্রব্য পান করেননা বলেও ওই এলাকার একাধিক ব্যাক্তিরা নিশ্চিত করেন।

রনিসহ তাঁর সাথে আরেকজন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর এলাকার মুকবুল হোসেনের পুত্র মাসুদ রানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর বেরিয়ে পড়ছে এসব তথ্য।কারন তাঁর সাথে যে গ্রেফতার হয়েছে সে তো আর ফেন্সিডিল সেবন করতে চাপাই থেকে আসেনি। এখান থেকেই তো পরিষ্কার বোঝা যায় তাঁরা ফেন্সিডিলের মত ভয়াবহ মাদকের সাথে জড়িত। তাহলে কিসের বিনিময়ে তাদেরকে সেবনের মামলা দেয়া হল। কিছুই বলার নেই কেউ এসব নিয়ে মুখ খুললে তাকে যে মামলা দিয়ে ফাসানো হবেনা এটার তো কোন গ্যারান্টি নেই।

বেশ কিছু সেবন কারিরা নাম প্রকাশ না করে জানান, রনি তো দীর্ঘদিনের ব্যবসায়ী। আমরা তাকে কোনদিন কিছু খেতেও দেখিনি। তবে হাতে গোণা কিছু সেবন কারি বাদে কারো সাথে দেখা করতনা সে। এত বড় ব্যবসায়ীর নামে দেয়া হচ্ছেন সেবনের মামলা এর চেয়ে হাস্যকর আর কি হতে পারে। অথচ অনেক সেবন কারির কাছে একটি ফেন্সিডিলসহ পুলিশের হাতে আটক হলে চাহিদামত টাকা দিতে না পারলে দেয়া হয় ব্যবসায়ীর মামলা।

রনির প্রতিবেশি সহ এলাকার সচেতন জনসাধারণের দাবি গ্রেফতারকৃত রনি ও মাসুদকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই সে দীর্ঘদিনের ব্যবসায়ী সেটা বেরিয়ে পড়বে।নচেৎ জেল থেকে বেরিয়ে পুনরায় ব্যবসা করবেন আর তরুণ যুব সমাজ অচিরেই ধ্বংস হয়ে যাবে বলেও মনে করেন তাঁরা।

চলতি মাসের ১২ নভেম্বর তানোর থানা রাজশাহী নামে ওসি রাকিবুল হাসানের ছবিযুক্ত ফেসবুক আইডিতে মনোয়ার হোসেন রনি(২০) ও মাসুদ রানা(৩০) কে এসআই মাসুদ রানা পারভেজসহ সঙ্গীয় ফোরস নিয়ে গ্রেফতার করে মাদকদ্রব্য সেবনের অপরাধে মামলা দায়ের করে গত ১৩ নভেম্বর আইনি প্রক্রিয়া শেষে পুলিশ হেফাজতে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরন করা হয়। এর পর থেকেই ভাইরাল হয়ে উঠে ঘটনাটি।

থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি রাকিবুল হাসানের সাথে ঘটনাটি নিয়ে কথা বলা হলে তিনি জানান তাদের কাছে কোন ধরনের মাদক না পাওয়ার কারনে সেবনের মামলা দায়ের করা হয়। রনিতো একজন ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী আর মাদক না পেলে কীসের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হল এমন প্রশ্ন করা হলে কোন সদ উত্তর না দিয়ে একই ধরনের কথা বলে দায় সারেন।

 

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451