রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:৫৫ অপরাহ্ন

মান্দার মুক্তিযুদ্ধার বিরুদ্ধে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা, মান্দা প্রতিনিধি (নওগাঁ) :
  • Update Time : সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১

নওগাঁর মান্দায় মদ্যপ অবস্থায় স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন ডলিকে (৫০) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে। রাজশাহী মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাতে মারা মুত্যুবরণ করেন তিনি। মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমান উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের হাজী ময়েজ উদ্দিনের ছেলে।

নিহত ডলির বড়ছেলে ইব্রাহিম খলিলুল্লাহ জানান, তার পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমান মদ্যপ অবস্থায় প্রায়ই তার মা ডলিকে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায় মদ পান করে বাড়ি ফিরে মাকে নির্যাতন শুরু করেন। এ সময় বাড়িতে এসে পিতার নির্যাতনের হাত থেকে মাকে রক্ষা করি। এরপর পিতা সদর দরজা বন্ধ করে দিয়ে দ্বিতীয় দফায় মাকে মারপিট শুরু করলে নিরুপায় হয়ে বাড়ির অদুরে ডাকাতের মোড় থেকে ছোটভাই মুসা কালিমুল্লাহকে ডেকে নিয়ে আসি।

তিনি আরও বলেন, বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য অনিছুর রহমান ও গ্রামপুলিশ কলিম উদ্দিনকে অবহিত করে বাড়ি ফিরে দেখি মা রক্তাক্ত অবস্থায় অচেতন হয়ে পড়ে রয়েছেন। ক্রিকেটব্যাট দিয়ে পিটিয়ে মাকে হত্যার চেষ্টা করেন পিতা জিল্লুর রহমান। এ সময় আমার চিৎকারে প্রতিবেশিরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন।

পরে স্থানীয়দের সহায়তায় ছোটভাই মুসা মাকে উদ্ধার করে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেন। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাতে মারা যান তিনি।

ছেলে ইব্রাহিম খলিলুল্লাহ অভিযোগ করে বলেন, মাকে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় গত ৪ মার্চ মান্দা থানায় বাবা জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। কিন্তু পুলিশ এখন পর্যন্ত অভিযুক্ত পিতার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। পিতার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করায় তাকেও হত্যাসহ সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত ও বাড়িছাড়া করার হুমকি দেয়া হচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আনিছুর রহমান জানান, মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমান আমার নিকটতম প্রতিবেশি। তিনি সবসময় নেশাগ্রস্থ অবস্থায় থেকে এলাকার লোকজনকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে থাকেন। এসবের প্রতিবাদ করায় মুক্তিযুদ্ধার গরমে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। তার হুমকিতে এলাকার লোকজন ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পান না।

স্ত্রীকে নির্যাতন তার নিত্যনৈমির্ত্তিক ব্যাপার বলেও দাবি করেন ইউপি সদস্য আনিছুর রহমান। তবে বাড়িতে উপস্থিত না থাকায় এসব বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমানের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মান্দা থানার পরিদর্শক শাহিনুর রহমান শাহিন জানান, নিহত নিলুফা ইয়াসমিনের ময়নাতদন্ত রামেক হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে। এ বিষয়ে গত ৪ মার্চ নিহতের ছেলে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে। নতুন করে এজাহার পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

Leave a Reply

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone