শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৪৯ পূর্বাহ্ন

সৈয়দপুরে ভাইরাস আতঙ্ক কুলের বাজারে ধ্বস

জহুরুল ইসলাম খোকন, সৈয়দপুর প্রতিনিধি (নীলফামারী) ঃ
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৬ মার্চ, ২০২১

সারা দেশের ন্যায় নীলফামারীর সৈয়দপুরেও শুরু হয়েছে ভাইরাস আতঙ্ক। এ আতঙ্কে নীলফামারী জেলার প্রতিটি উপজেলার পাশাপাশি সৈয়দপুরের মানুষ কুল, আপেল ও পেয়ারা খাওয়া প্রায় বন্ধই করে দিয়েছে। ২০১৮ সাল থেকে ২০১৯ পর্যন্ত এ উপজেলার আড়ৎগুলি থেকে প্রায় এক থেকে দেড় কোটি টাকার কুল কেনা বেচা হয়েছে। কিন্তু এবারে কুলের মৌসুমে করোনা ভাইরাস ও নিপাহ ভাইরাস আতঙ্কের সময় কুল চাষিরা কুল বিক্রির জন্য সৈয়দপুরের আড়ৎগুলিতে আসলেও কুল কেনাবেচা একেবারেই কমে গেছে।

দেখা গেছে রংপুর বিভাগের প্রায় প্রতিটি জেলা থেকেই বিভিন্ন জাতের কুল আসত সৈয়দপুরে। ক্রেতা-বিক্রেতারা দর কষাকশি করে কুল ক্রয় করতেন। এবং বাছাই করে পাঠিয়ে দিতেন নীলফামারী জেলার প্রতিটি থানা, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়। এ শহরের প্রায় ১০/১২টি আড়ৎ জমে উঠেছিল কুলের বাজার।

কুল আড়ৎদারসহ কৃষি বিভাগ জানান, গত তিন বছর আগে এ অঞ্চলের কৃষকরা কুল আবাদে ঝুঁকে পড়েন এবং ঐ বছরই কৃষকরা সৈয়দপুরের আড়ৎ থেকে প্রায় এক থেকে দেড় কোটি টাকার কুল কেনাবেচা করেন। কিন্তু এবারে কুলের বাম্পার ফলন হলেও নিপাহ ভাইরাস ও করোনা ভাইরাস আতঙ্কে গত দিনের সিকি ভাগও কুল কেনাবেচা হয়নি।

গিয়াস নামের এক কুল ব্যবসায়ী দুঃখ করে বলেন, রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে কুল বাগান মালিকরা আপেল কুল, বাও কুলসহ হাই কুল উৎপাদন করে নিয়ে আসছিল সৈয়দপুরে। আর এখানে থেকে পাইকাররা কুল ক্রয় করতেন এবং কুল বাছাইসহ প্যাকেট করে পাঠিয়ে দিতেন উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়। তিনি বলেন, গত বছর দুই এক আগেও কুল কেনাবেচা হয়েছে ২৫০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকা মণ দরে। কিন্তু এবারে ভাইরাস আতঙ্কে কুল কেনাবেচা হয়েছে এবং হচ্ছে মাত্র ১৫০০ টাকা থেকে ১৬০০ টাকা দরে।

মাসুদ নামের অপর এক আড়ৎদার জানান, গত দুই বছর আগেও তার আড়তে ২০/২৫ জন কুল চাষি তার আড়তে কুল নিয়ে আসত বিক্রি করার জন্য। ২০১৯ সালের শেষের দিকে দেশে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারণে ঐসকল কুল চাষিরা কুল নিয়ে আসছেন না। ভাইরাস আতঙ্কের ফলে কুল চাষিরা কুল চাষ করলেও অল্প দামেই তাদের নিজ নিজ এলাকায় বিক্রি করে দিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

সৈয়দপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহিনা আলম জানান, দীর্ঘদিন থেকে এ অঞ্চলের কৃষকদের কুল চাষে উৎসাহিত করা হয়েছিল। কুল চাষে উৎসাহিত কৃষকরা গত দুই বছর পূর্বে লাভ করলেও এবারে ভাইরাস আতঙ্কের ফলে মোটা অঙ্কের লোকসান গুনতে হচ্ছে। সারা দেশের ন্যায় সৈয়দপুরেও ভাইরাস আতঙ্কে এ অঞ্জলের মানুষ কুল খাওয়া থেকে বিরত থাকায় কৃষকরা প্রায় কোটি টাকা লাভ হওয়া থেকে বঞ্চিত হতে পারেন বলে তিনি এ প্রতিবেদকে জানান।

 

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

Leave a Reply

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone