শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১, ০৯:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

Surfe.be - Banner advertising service

দহগ্রাম করোনা’ পজিটিভ ছেলের সাথে জড়িয়ে গেল বাবা’র আদর- স্নেহ- ভালবাসা!

সানি, লালমনিরহাট থেকে :
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১
  • ৪৭ বার পঠিত

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বহুল আলোচিত দহগ্রাম সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে চোরাপথে দেশে ফেরার সময় ঢাকা সাভার পোড়াবাড়ি বেদে পল্লীর নারী -শিশুসহ ২৩ জন আটক হয়েছিলেন। বিজিবি’র চেকপোস্টে আটককৃতদের করোনা’র কারনে ১৪ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর রংপুরে তাদের নমুনা পরীক্ষা করান পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।

১৪ দিন পরে ৪ জনের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসার কারনে তাদের সবাইকে আরও ১৪ দিন থাকতে হয় হাসপাতালের বারান্দায়।

মাস খানেক থাকার পর করোনা নেগেটিভ ২০ জন চলে গেলেও এখনও হাসপাতালের বারান্দায় এখনও রাত কাটাচ্ছেন করোনা পজেটিভ ২ জন। করোনা পজেটিভ ছেলে হিরুর (১৪) সাথে তার বাবা আব্দুল্লাহও আছেন। একজন বাবা’র কাছে তার সন্তানের প্রতি এমন আদর- স্নেহ -ভালবাসা যেন তুচ্ছ করোনা।

বাবার চলে যাওয়ার আদেশ হলেও ছেলে একা থাকতে ভয় পাবে এ কারণে তাকে ছেড়ে যাননি বাবা। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় কথা বলে জানা যায় এমন তথ্য। করোনা পজেটিভ আলমগীর (২৫) হাসপাতালের ভিতরে আছেন। কেচি গেটের ওপারে ছেলে এপারে মা নুর বেগমেের আকুতি। সাভার পোড়াবাড়ি থেকে ছেলেকে দেখতে ছুটে আসেন তিনি।

এ সময় নুর বেগম ও রাইস মিয়া নামে আরেক বেদে বলেন, কেউ শুনে না তাদের কথা। টাকা পয়সার অভাবের তাড়নায় তারা বেনাপোল যশোর ও কুমিল্লাহ সীমান্ত হয়ে ভারতে প্রবেশ করেন।ভারতের কুচবিহার জেলার মাথাভাঙা থানার এলাকায় সাপ খেলা দেখিয়ে সামন্য কিছু আয় রোজগার করেন। সে টাকা থেকে প্রতিজনে ৬ হাজার ৫ ‘শ টাকা হিসেবে ভারত-বাংলার দালালদের মাধ্যমে চোরাপথে দহগ্রামে আসার সুযোগ পান। তাদের হাতে থাকা জমানো ৩০ হাজার রুপী দালালকে ভাঙ্গাতে দিলে সেই দালাল বিজিবি’র হাতে ধরা পড়েন। তাদের কষ্টের উপার্জিত সামান্য টাকাগুলো থানা হেফাজতে।জব্দ তালিকায় তোলা হয়েছে। দালালের নামে মামলা হলেও দয়া দেখিয়ে তাদের নামে মামলা দেননি বিজিবি।সেই মামলায় একজন দালাল জাহিদুল চালান হলেও পলাতক রয়েছেন আরও ৩ জন।

প্রায় ৩৪ দিন ধরে কোয়ারেন্টাইনে থাকা এসব লোকদের তিনবেলা খাবার ব্যবস্থা করেন দহগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন প্রধান। ২৩ জনের ১ মাসের খাবার বিল পরিশোধ করেছেন ৪০ হাজার। জনদরদী এমন একজন মানুষ হিসেবে ঢাকা সাভার পোড়াবাড়ি বেদে পল্লীতে দাওয়াত করা হয়েছে চেয়ারম্যানকে। চেয়ারম্যান কামালের প্রতি আজীবন কৃতজ্ঞ থাকবেন এমন মনোভাব প্রকাশ করেছেন বেদে পরিবারের লোকজন। চেয়ারম্যান কামাল হোসেন প্রধান জানিয়েছেন, তিনি সাভার বেদে পল্লীতে মেহমান হিসেবে যাবেন। তাদের দাওয়াত কবুল করেছেন তিনি।

এদিকে,গতপরশু দিন বিকেলে দহগ্রাম আঙ্গারপোতা ১০ শয্যা হাসপাতালের করিডোরে বের হয় মস্তবড় একটি গোখরা বিষাক্ত সাপ। সাপুড়ে বলে খুব সহজে সেটাকে ধরে বিষদাঁত ভেঙ্গে কাঠের বাক্সে ভরে ফেলেছেন তারা।আড়াই তিন হাত লম্বা গোখড়া এ সাপটার জোড়াটার দেখা মিলেনি।

হিরুর বাবা আব্দুল্লাহ বললেন, হাসপাতালের ভিতরে করুন অবস্থা। বেড বিছানা ঠিক নাই।লাইট ফ্যান অচল। টয়লেটগুলো ময়লা আবর্জনা দূর্গন্ধে যাওয়া যায় না। বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল না।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান কামাল হোসেন প্রধান আবারও বলেন, বছরখানেক আগে হাসপাতালের ট্রান্সফরমার পুড়ে গেলে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।তখন থেকে ভূতরে অবস্থা।দেখার কেউ নেই। বেদে লোকগুলো কোয়ারেন্টাইনে থাকার সুবাদে চেয়ারম্যান তাঁর অফিস থেকে বিদ্যুতের সংযোগ দিয়েছেন এবং একটা টিউবওয়েলও বসানো হয়েছে। অতিরিক্ত আয়রণ থাকার কারণে লালচে দোলা দোলা পানি পান করা যাচ্ছে না। এমতাবস্থায় বাহিরের থেকে পানি এনে খাচ্ছেন বেদে পরিবারের লোকজন।

পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সুত্রে জানা গেছে, গত অর্থ বছরে দহগ্রাম হাসপাতালের আসবাবপত্র কেনাকাটা (এমএসআর ক্রয়) বাবদ প্রায় ১১ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন সরকার।সে টাকার হদিস আছে কি’না জানেন না কেউ।

 

Surfe.be - Banner advertising service

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451