রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

“জাতীয় বাজেট ২০২২-২২: বেসরকারী খাতের দৃষ্টিভঙ্গি”

জি-নিউজবিডি২৪ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৬ জুন, ২০২১
  • ৫৬ বার পঠিত

বাংলাদেশে মেগা শিল্প প্রতিষ্ঠা ও আমদানি-বিকল্প শিল্পজাত পণ্যের উৎপাদন ত্বরান্বিত করতে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ব্র্যান্ডের জন্য ১০ বছরের কর ছাড়ের জন্য বাজেট অর্থবছর ২০২১-২২ বাজেট ঘোষণা করেছে।

এই ছাড়টি তিন ও চার চাকার গাড়ি, বাড়ি ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম এবং হালকা প্রকৌশল পণ্যগুলির নির্মাতাদের জন্য প্রযোজ্য হবে এই শর্তে যে তাদের স্থানীয় মূল্য সংযোজন হবে ২০% -৪০%, স্থানীয় কর্মসংস্থান এবং “মেড ইন বাংলাদেশ” ব্র্যান্ডের প্রচার করবে।

গত এক দশকে, স্থানীয়ভাবে উত্পাদিত গৃহস্থালী সরঞ্জামগুলি মোট বাজারের ৯০% অংশ নিয়েছে। স্থানীয় উদ্যোক্তা ছাড়াও স্যামসুং ও এলজি-র মতো বিদেশি সংস্থা দেশে কারখানা স্থাপন করেছে।

এফএম কামাল মোটর গাড়ি ও মোটরযান নির্মাতাদের ‘স্থানীয় শিল্পে প্রবৃদ্ধির বিদ্যমান গতি বজায় রাখতে’ ভ্যাট ছাড়ের পাঁচ বছরের বর্ধনেরও প্রস্তাব করেছেন। কর ছাড়ের পাশাপাশি এই শিল্পগুলি কাঁচামাল / উপাদান আমদানির জন্য ভ্যাট এবং অগ্রিম আয়কর (এআইটি) উপভোগ করবে।

কমপক্ষে ১০০০ কোটি টাকার অতিরিক্ত বিনিয়োগের শর্ত পূরণ করলে তিন-ও চার চাকার গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি আরও দশ বছরের অব্যাহতি পেতে পারে।

বাজেটে লোহার পণ্য, স্ক্র্যাপ জাহাজের নির্দিষ্ট কাঁচামাল নিয়েও এআইটি প্রত্যাহারের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। পিভিসি এবং পিইটি রজনের মতো উন্নত শিল্পগুলির কাঁচামাল ইথিলিন গ্লাইকোল, টেরেফথালিক অ্যাসিড, ইথিলিন / প্রোপিলিনের জন্যও অনুরূপ প্রত্যাহারের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। সমুদ্রগামী জাহাজ ও সিমেন্টের কাঁচামাল আমদানিতে এআইটি এক শতাংশ পয়েন্ট হ্রাস পেয়েছে। এলএমজি সিলিন্ডার প্রস্তুতকারীদের জন্য এবং আরও এক বছর রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার এবং তাদের সংকোচকারীদের জন্য, পলিপ্রোপলিন স্টায়পল ফাইবারকে আরও দু’বছর, এয়ার কন্ডিশনার এবং তাদের সংকোচকারীদের আরও তিন বছর এবং মোটর বাড়ানোর প্রস্তাব এফএমের প্রস্তাব করেছে আরও পাঁচ বছর গাড়ি ও মোটরযান।

স্থানীয় মোবাইল হ্যান্ডসেট শিল্প ও তথ্যপ্রযুক্তি (আইটি) খাতগুলি বিকশিত করার জন্য মোবাইল ফোন উত্পাদন এবং সমাবেশে বিদ্যমান ভ্যাট ছাড়ের সুবিধাটি আরও দুই বছর অব্যাহত থাকবে। পাশাপাশি, সরকার নতুন অর্থবছরে পাঁচটি নতুন আইটি সেক্টর পরিষেবাকে কর ছাড়ের সুযোগ বাড়িয়েছে এবং আইসিটি উপাদান এবং খুচরা যন্ত্রাংশের উত্পাদন ক্ষেত্রে ১০ বছরের কর ছাড় ছাড় রয়েছে।

আইসিটি সম্পর্কিত সরঞ্জামগুলির বিভিন্ন উপাদান এবং খুচরা যন্ত্রাংশ উত্পাদন করতে হার্ডওয়্যার শিল্পে বিনিয়োগকে উত্সাহিত করার জন্য বাজেটে ১০ বছরের করের ছুটির প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল। তারা ৩০% এর মূল্য সংযোজন এবং বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিআইডিএ) নিবন্ধনের জন্য অব্যাহতি ভোগ করবে।

এফএম কামাল নির্দিষ্ট কিছু কৃষি যন্ত্রপাতিতে ভ্যাট ছাড়ের প্রস্তাব দিয়েছে এবং আরও কিছু এআইটিও বাংলাদেশে কিছু যন্ত্রপাতি উৎপাদনে ছাড় পাবে। আরএমজি সেক্টর পরবর্তী অর্থবছর ২২ এর জন্য ১.০% অতিরিক্ত রফতানি প্রণোদনের সুবিধা পেতে অবিরত রয়েছে।

স্বাস্থ্য খাতের বিনিয়োগগুলিও ঢাকা, চট্টগ্রাম, গাজীপুর, এবং নারায়ণগঞ্জ জেলার বাইরে হাসপাতাল স্থাপন করলে একই ধরনের সুবিধা পাবে। এই জাতীয় হাসপাতালে অবশ্যই মহিলা ও মাতৃস্বাস্থ্য, অনকোলজি এবং ভাল থাকার এবং প্রতিরোধমূলক মেডিসিনের সুবিধা থাকতে হবে। প্রতিটি হাসপাতালে কমপক্ষে 5% আইসিইউ বেড থাকতে হবে।

এই বাজেটে দেশীয় শিল্প এবং এক ব্যক্তির মালিকানাধীন সংস্থাগুলির জন্য একাধিক কর মওকুফ এবং ছুটির ব্যবস্থা রয়েছে, যার মধ্যে নারী উদ্যোক্তা যারা টার্নওভার ট্যাক্সের প্রান্তিক হিসাবে সাত মিলিয়ন টাকা উপভোগ করবেন। মহিলা উদ্যোক্তারা মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত ব্যবসায়ে করমুক্ত টার্নওভার উপভোগ করবেন এবং এখন ৫০ লাখ টাকার চেয়ে 70 লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

একটি প্রধান কর সংস্কার প্রস্তাবিত হল করের হারগুলিতে ২.৫ শতাংশ পয়েন্ট কাটা। এফএম কামাল নন-তালিকাভুক্ত সংস্থাগুলির জন্য ট্যাক্স হ্রাস করার প্রস্তাব করেছিলেন ৩২.৫ শতাংশ থেকে ৩০ শতাংশ এবং তালিকাভুক্ত সংস্থাগুলির জন্য ওয়ান পার্সন কোম্পানির (ওপিসি) করের হার ২৫ শতাংশ থেকে ২২.৫ শতাংশে নেবে। এই কর সুবিধাটি পেতে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিআইডিএ) নিবন্ধন করুন। অন্যদিকে মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) সরবরাহকারীরা তালিকাভুক্ত রয়েছে কিনা তার উপর নির্ভর করে 37.5 থেকে 40 শতাংশ কর্পোরেট ট্যাক্স দিতে হবে।

এই ব্যবস্থাগুলি ছাড়াও হিজড়া লোকদের নিয়োগের জন্য আরও একটি কর্পোরেট ট্যাক্স কাট প্রস্তাব করা হয়েছে। এই নতুন প্রস্তাবটি কার্যকর করার জন্য অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে।

বাংলাদেশ মানেই গ্রাম অর্থাৎ ৭০% এর বেশী মানুষ গ্রামীণ। গ্রামে এবং গ্রামের মানুষ ৯০% ব্যাংক বহির্ভূত, সরকারের সকল প্রণোদনা এবং ঋণ ব্যাংক সম্পৃক্ত। তাই গ্রামের ও শহুরে গ্রামের মানুষের প্রণোদনা পাওয়ার সুযোগ নাই। ব্যাংক বহির্ভূত মানুষ গুলি অনানুষ্ঠানিক তথা নন-কনভেনশনাল ব্যবসা করে থাকে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ঋণের সূতিকাগার ও সফল যা NGO/MFI কর্তৃক সরকারের রেগুলেশনে পরিচালিত হলে অপ্রচলিত/নন-কনভেনশনাল ৯০% গ্রামীণ দরিদ্র মানুষকে অতি স্বাচ্ছন্দে অর্থ প্রবাহ করার কৌশল/ব্যবস্থা বাজেটে নাই।

করোনা ভাইরাস বৈশ্বিক পেন্ডামিক স্বত্বেও গ্রামের উৎপাদনশীল অর্থনীতির কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতির ভিত মজবুত আছে। MFI গণ দেশের তিন কোটির বেশী পরিবারকে বিনা জামানতে Faith Fund হিসাবে গ্রাম, পাড়া, বন্দর সমিতির মাধ্যমে সমবায়ী চেতনায় সামাজিক বন্ধনের মাধ্যমে লক্ষ কোটি টাকার বেশী অর্থ প্রবাহের দ্বারা মূলধন সরবরাহ করে থাকে। বাজেটে এই মুলধন এর উৎস শক্তি হিসাবে কোন বরাদ্দ রাখা হয় নাই।

– সর্বজনিন উচ্চ ও কারিগরি শিক্ষাকে সম্প্রসারণ করার জন্য শিক্ষার উপর থেকে ট্যাক্স বাদ দিতে হবে।

ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি) এবং বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউট (বিইআই) যৌথভাবে জুম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে 26 শে জুন, ২০২১ শনিবার “জাতীয় বাজেট ২০২২-২২: বেসরকারী খাতের দৃষ্টিভঙ্গি” শীর্ষক ওয়েবিনারটি আয়োজন করে।

জনাব এম এ মান্নান, এমপি, মাননীয় মন্ত্রী, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ওয়েবিনার G প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন।

জনাব তৌফিকুল ইসলাম খান, সিনিয়র রিসার্চ ফেলো, সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

জনাব এমএস সিদ্দিকী, আইনী অর্থনীতিবিদ ও ভাইস প্রেসিডেন্ট, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি), ড: এম মাসরুর রিয়াজ, বাংলাদেশের পলিসি এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান, ড: মুহাম্মদ আবদুল মজিদ, প্রাক্তন সেক্রেটারি এবং প্রাক্তন চেয়ারম্যান, এনবিআর ও চেয়ারম্যান, ফিনান্স কমিটি, আইবিএফবি এবং বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) এর রিসার্চ ডিরেক্টর ড: মোহাম্মদ মাহফুজ কবির মনোনীত আলোচক হিসাবে বক্তব্য দিয়েছেন।

রাষ্ট্রদূত এম হুমায়ুন কবির, সভাপতি, বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউট (বিইআই) ওয়েবিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এবং আইবিএফবি এর সহ সভাপতি (ফিনান্স), লুৎফুন্নিসা সৌদিয়া খান ওয়েবিনারে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

জনাব হুমায়ুন রশীদ, সভাপতি, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি)ও এনারজিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়েবিনারের চেয়ারপারসন ছিলেন।

অন্যদের মধ্যে জনাব হাফিজুর রহমান খান, প্রাক্তন সভাপতি, আইবিএফবি এবং রানার গ্রুপ অফ কোম্পানিজের চেয়ারম্যান, ডাঃ মোঃ আলী আফজাল, পরিচালক, আইবিএফবি এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক, কৃষিবিদ গ্রুপ, লেঃ জেনারেল এম হারুন-অর-রশিদ, বীর প্রতীক (অব:), চেয়ারম্যান, সরকারী রিলেশন অ্যান্ড অ্যাডভোকেসি কমিটি, আইবিএফবি, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, রশিদ কৃষি খামার লিমিটেড এবং প্রফেসর ড: হোসনে আরা বেগম, প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক, টিএমএসএস বাংলাদেশ ওয়েবিনারে বক্তব্য রেখেছিলেন।

 

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451