বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:০৯ পূর্বাহ্ন

শোকের মাস আগস্ট-১০ম দিন: বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বিপুল বিজয়

ড. আসাদুজ্জামান খান, সিনিয়র সাংবাদিক ঃ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১০ আগস্ট, ২০২১
  • ৭৬ বার পঠিত

॥ ড. আসাদুজ্জামান খান ॥
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সত্তরের নির্বাচনের আগে তার দেশবাসীর প্রতি যে আহ্বান রেখেছিলেন, সেই মোতাবেক ৭ ডিসেম্বর জাতীয় পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু নির্বাচন উপলক্ষে বেতার ও টেলিভিশনে দেয়া বক্তব্যে ছয় দফার প্রশ্নে অটল মনোভাব ব্যক্ত করেছিলেন।

আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ৩ মার্চ ঢাকা শহরে বিশাল এক নির্বাচনী মিছিল বের করেছিল। ৪ মার্চ রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিতে ছাত্রলীগ একটি জনসভা করে। ওই সভায় কৃষক শ্রমিক অস্ত্র ধর, বাংলাদেশ স্বাধীন কর। গণবাহিনী গঠন কর, বাংলাদেশ স্বাধীন কর প্রভৃতি শ্লোগান দেয়া হয় বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে।

৭ ডিসেম্বর যে নির্বাচন হয় তাতে পূর্ব বাংলায় কেবল দুটি আসন ছাড়া বাকি সমস্ত আসনে বিপুল ভোটাধিক্যে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা জয়লাভ করেন। প্রাদেশিক পরিষদের ৩১০টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ ২৯৮টি আসন লাভ করে। এই নির্বাচনে কেবল পাকিস্তানবাদী উগ্র সাম্প্রদায়িক ডানপন্থী ধর্মান্ধ দলগুলোর নিদারুণ পরাজয় ঘটে। শুধু পরাজয় নয় সেসব দলের বিখ্যাত নেতাদের অনেকেই এত কম ভোট পায় যে, জামানতের টাকা পর্যন্ত বাজেয়াপ্ত হয়।

নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করেন যে, শাসনতন্ত্র হবে ছয় দফাভিত্তিক। তিনি ৯ ডিসেম্বর একটি বিবৃতি দেন-
‘ আমাদের জনগণ এক ঐতিহাসিক রায় প্রদান করিয়াছে। তাহারা এক অবিরাম সংগ্রামের মধ্য দিয়া তাহাদের এই রায় প্রদানের অধিকার অর্জন করিয়াছে।

আর সেই অবিরাম সংগ্রামে হাজার হাজার মানুষ জীবন উৎসর্গ করিয়াছে এবং অগণিত মানুষ বছরের পর বছর ধরিয়া নিপীড়ন সহ্য করিয়াছে। জনগণের সংগ্রামকে প্রথম বিরাট বিজয়ে মন্ডিত করার জন্য আমরা সর্বশক্তিমান আল্লাহর নিকট কৃতজ্ঞ। আমরা আমাদের শহীদদের স্মৃতির প্রতি সালাম জানাইতেছি যাহারা নির্মম নিপীড়নের মুখেও এই কারণে সংগ্রাম করিয়া গিয়াছে যে, একদিন যেন আমরা প্রকৃত স্বাধীনতায় বসবাস করিতে পারি।

১৯৭১ সালের ৩ জানুয়ারি রমনার রেসকোর্স ময়দানে এক বিরাট জনসভায় আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সদস্যরা শপথ গ্রহণ করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। তিনি তার হাত উত্তোলন করে শপথ বাণী পাঠ করেন এবং তার সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদে নির্বাচিত সদস্যগণ তা উচ্চারণ করেন।

শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু যে বক্তৃতা দেন-তাতে তিনি তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেন। তিনি বলেন- ছয় দফা ও এগার দফা কর্মসূচি আওয়ামী লীগের নয়, জনগণের। বঙ্গবন্ধু তার রাজনৈতিক জীবনে জনগণের অন্তর্নিহিত অপার শক্তি ও ক্ষমতার ওপর বিশ্বাসী ছিলেন। তিনি মনে করতেন- জনগণ কেবল জনগণই ইতিহাস সৃষ্টি করতে পারে।

দরিদ্র মেহনতি মানুষের স্বার্থ তার কাছে সব কিছুর ঊর্ধ্বে। আর সে কারণেই দেশপ্রেমের যত রূপ আছে, মানুষের প্রতি ভালোবাসার যত রূপ আছে, মানুষের প্রতি মমত্ববোধ ও সহমর্মিতার যত রূপ আছে, মানুষের প্রতি আস্থার যত ধরন আছে, মহানুভবতার যত রূপ আছে, ন্যায় প্রতিষ্ঠার যত সংগ্রাম আছে- এত বিরল বৈশিষ্ট্য যে ব্যক্তির মধ্যে অন্তর্নিহিত ছিল তিনিই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
লেখক ঃ ড. আসাদুজ্জামান খান, সাহিত্যিক ও সিনিয়র সাংবাদিক।

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451