সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জে পৃথক ঘটনায় ৬জনের মর্মান্তিক মৃত্যু

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৮ বার পঠিত

সুনামগঞ্জে গত ২দিনে পৃথক ঘটনায় ৬জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। মৃত ব্যক্তিরা হলেন- জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার সদর ইউনিয়নের বড়বন্দ গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে ইলেকট্রিশিয়ান রমজান আলী (৪২), দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের নগদীপুর গ্রামের আব্দুল জলিল (৩২), তাহিরপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের বীরনগর গ্রামের ইউপি সদস্য বাবুল মিয়ার শিশুকন্যা ইসরাত জাহান ইমা (৬), তার চাচাতো ভাই একই গ্রামের আশিকনুরের ছেলে আরমান হোসেন রুমান (৫), একই উপজেলা উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের কদমতলী গ্রামের বাসিন্দা ও জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) সদস্য ইয়াকুব আলী (২৬) ও কুড়িগ্রাম জেলা সদরের বাসিন্দা আছর উদ্দিনের ছেলে নির্মাণ শ্রমিক মাহবুব আলম (২৭) ।

আজ মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) সকালে ও গতকাল সোমবার (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় পৃথক স্থান থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিনোসহ পরিবারের নিকট হস্থান্তর করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- গতকাল সোমবার (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭টায় সুনামগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজের নির্মাণাধীন ভবনের ছাঁদ থেকে নিচে পড়ে নির্মাণ শ্রমিক মাহবুব আলম গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষনা করেন।

অপরদিকে বিকাল অনুমান সাড়ে ৫টায় জেলার তাহিরপুর উপজেলার বীরনগর গ্রাম সংলগ্ন বৌলাই নদী থেকে নিখোঁজ শিশুকন্যা ইসরাত জাহান ইমা ও তার চাচাতো ভাই আরমান হোসেন রুমানের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। দুই চাচাতো ভাই বোন খেলা করতে করতে পরিবারের অজান্তে বাড়ির পাশর্^বর্তী বৌলাই নদীতে ডুবে নিখোঁজ হয়ে যায়।

অন্যদিকে সকাল অনুমান ৯টায় জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার বড়বন্দ গ্রামে বিদ্যুতের লাইন মেরামত করতে গিয়ে ইলেটট্রিশিয়ান রমজান আলী বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হয়। পরে ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষনা করেন।

এদিকে গত রবিবার (৭ নভেম্বর) রাত অনুমান ১০টায় জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থায় (এনএসআই) কর্মরত সদস্য ইয়াকুব আলীর লাশ সুনামগঞ্জ পৌরশহরের বাঁধনপাড়া এলাকার নিজ বাসা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই বাসার গোসল খানার ভিতরে গলায় গামছা বাঁধা অবস্থায় গোয়েন্দা সদস্যকে পাওয়া যায়।

গত ২০২০সালের জুলাই মাসে ইয়াকুব আলী জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থায় যোগদান করেন। এতদিন তিনি ঢাকায় কর্তরত ছিলেন। সম্প্রতি ছুটিতে সুনামগঞ্জ আসেন। কিন্তু ছুটি নিয়ে গোয়েন্দা সদস্য সুনামগঞ্জের বাসায় আসার পর তার স্ত্রী বাবার বাড়িতে চলে যায়। এরপর তার এই রহস্য জনক মৃত্যু।

জানা গেছে- গত ২২ আগষ্ট ইয়াকুব আলী বিয়ে করেন। এরপর গ্রামের বাড়ি রেখে সুনামগঞ্জ শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে স্ত্রীসহ বসবাস করছেন। কিন্তু গোয়েন্দা সদস্যের রহস্য জনক মৃত্যুর কোন কারণ জানা যায়নি। তার মৃত্যুর খবর জানা জানির হওয়ার পর থেকে পুরো জেলা জুড়ে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় উঠেছে। তবে পুলিশ ওই গোয়েন্দা সদস্যের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা করছে।

অন্যদিকে দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের নগদীপুর গ্রামে চা খাওয়ার ৫টা বিল নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত আব্দুল জলিল সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। এঘটনার প্রেক্ষিতে মৃত আব্দুল জলিলের বড়ভাই বাদী হয়ে ২৯জনকে আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছেন।

দোয়ারাবাজার থানার ওসি দেবদুলাল ধর, তাহিরপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার, দিরাই থানার ওসি আজিজুর রহমান ও সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি শহিদুর রহমান সাংবাদিকদের পৃথক ঘটনায় এক গোয়েন্দা সদস্য, নির্মাণ শ্রমিক ও ভাই-বোনসহ ৬জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451