মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

তানোরে হিমাগারে রাখা কৃষকের আলু ইঁদুরের পেটে

আব্দুস সবুর, তানোর প্রতিনিধি (রাজশাহী) ঃ
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৩২ বার পঠিত

রাজশাহীর তানোরে হিমাগারে রাখা কৃষকের বস্তার বস্তা টনের টন আলু ইঁদুরের পেটে ও নষ্ট হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তানোর মুন্ডুমালা রাস্তার উত্তরে এবং আড়াদিঘী মোড়ের পূর্বে অবস্থিত রহমান টু নামক হিমাগারে ঘটেছে এমন ঘটনা। কর্তৃপক্ষের চরম অবহেলায় আলু এভাবে নষ্ট হয়েছে বলেও আলু রাখা ব্যক্তিদের অভিযোগ রয়েছে। এতে করে চরম লোকসান গুনতে হচ্ছে।

জানা গেছে, গত মৌসুমের আলু হিমাগারে রাখা আছে মৌসুমি চাষি থেকে শুরু করে ছোট বড় চাষিদেরও।আলুর দাম তেমন না থাকায় বিক্রি করেন নি অনেকে।পরবর্তী আলু রোপনের সময় হিমাগার খালি হয়ে পড়ে।হিমাগারে রাখা মানে সংরক্ষিত থাকা।কিন্তু এবার রহমান গ্রুপের রহমান টু হিমাগারের এক ফ্লোরের আলুর বস্তা ইঁদুরে কেটে ফেলে।

ওই সব বস্তা থেকে ইঁদুরে যেমন খেয়েছে এবং পড়েও নষ্ট হয়েছে প্রচুর।যার কারনে ৬৫/৭০ কেজির বস্তায় মিলছে ১৫/২০ কেজি করে।এত আলু নষ্ট হলেও কর্তৃপক্ষের কোন মাথা ব্যাথা তো নেই।উল্টো যাদের আলু নষ্ট হয়েছে তাদেরকে কড়া নির্দেশ কোন ভাবেই যেন বাহিরে প্রকাশ না পায়।কারন আলু রাখা কোন ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে লেখালেখি হলে আজীবনের জন্য ওই হিমাগারে নিষিদ্ধ। মুলত এজন্যই হিমাগারে কোন কিছু হলেও তা প্রকাশ পায়না।অথচ আলুর সবচেয়ে বড় সিন্ডিকেট এসব হিমাগারের ধনকুবেরা।আবার স্হানীয় কৃষি দপ্তরেরও এসব নিয়ে খুব একটা মাথা ব্যাথা নেই।শুধু কি পরিমান মজুত আছে এমন রিপোর্ট দিয়েই কাজ শেষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কিছু আলু রাখা চাষিরা জানান,হিমাগারের মত সুরক্ষিত জায়গায় আলু রেখে নষ্ট হলে এর চেয়ে কষ্ট আর কি হতে পারে।যে আলু চাষ করে সে যানে,জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আলুর চাষ করা হয়।গত মৌসুমে আলুর দাম তেমন না পাওয়ায় লোকসানও গুনতে হয়েছে।তবে গতবারের আগেরবার বাম্পার লাভ করেন আলু চাষিরা।

যে দাম পেয়েছিল জীবনেও এত দাম পায়নি চাষিরা। হিমাগারে গতবারে রাখা অনেকেই আলু রেখেই পুনরায় চাষাবাদ শুরু করেছেন।কিন্তু রহমান হিমাগার টু নামে পরিচিত তাদের বে-রহমাানী উদাসীনতায় মাথায় ভাজ পড়ে গেছে।আলু বিক্রি করতে গিয়ে বস্তা কাটা নষ্ট হয়ে দশ বিশ কেজি করে মিলছে। এক বস্তায় নিম্মে ৬৫/৭০কেজি করে আলু থাকে।অথচ তারা কোনভাবেই দায় নিবেনা বলেও একাধিক কৃষকরা জানান ।হিমাগারে যদি আলুর এঅবস্হা হয়,তাহলে কোথায় রাখব।তারা ঠিকই

সকল ধরনের খরচ নিবেন।আবার ঋন নিলে ১৮% হারে সুদ দিতে হয়।

রহমান টু হিমাগারের ম্যানেজার আব্দুল মান্নান জানান, সামান্য পরিমান কিছু বস্তা কেটেছে। এতে তেমন একটা ক্ষতি হবেনা।এসব ছোট খাট বিষয় বলেও উড়িয়ে দেন।তবে কি পরিমান বা কত বস্তা ইঁদুরে কেটেছে জানতে চাইলে কোনভাবেই বলেন নি।

উপজেলা কৃষি অফিসার শামিমুল ইসলাম জানান এবিষয়ে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে গুরুত্বের সাথে দেখা হবে।

Surfe.be - Banner advertising service




নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

<a href=”https://surfe.be/ext/446180″ target=”_blank”><img src=”https://static.surfe.be/images/banners/en/240x400_1.gif” alt=”Surfe.be – Banner advertising service”></a>

via Imgflip

Surfe.be - Banner advertising service

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি  © All rights reserved © 2011 Gnewsbd24
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazargewsbd451