শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩২ অপরাহ্ন

কলাপাড়ায় ভুমি অফিস এখন অনিয়ম ও দুর্নীতির শীর্ষে পরিনত হয়েছে

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি
  • Update Time : রবিবার, ৭ আগস্ট, ২০২২

কলাপাড়ায় ভুমি অফিস এখন অনিয়ম ও দুর্নীতির মহা শীর্ষে পরিনত হয়েছে। ভুয়া বন্দোবস্ত কেস, এসএ খতিয়ান, দাগ, সহিমোহর পর্চা, বিএস ও ডিপি খতিয়ান সৃষ্টি করে একটি চক্র সরকারের বিপুল পরিমান খাস জমি বেহাত করে কোটি কেটি টাকা হাতিয়ে নিলেও এ নিয়ে অদ্যবধি কোন অ্যাকশন নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এতে চিংগড়িয়া, নাচনাপাড়া নদী শ্রেনীর জমিকে নাল জমি দেখিয়ে বন্দোবস্ত কিংবা আন্ধারমানিক নদীর ডুবোচর ভুয়া বন্দোবস্ত থেকে বাদ যায়নি। সর্বশেষ আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের অন্তরালে ৪২ বিত্তবানের নামে ২৫ কোটি টাকা মূল্যের ৭২ একর খাস জমি বন্দোবস্তের কবুলিয়ত রেজিষ্ট্রীর তথ্য ফাঁস হয়ে পড়ার পর প্রতিবারের মত এবারও অ্যাকশন নিতে গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটি। এখন দেখার পালা ঠাকুর ঘরে কে রে, আমি কলা খাই না।

তথ্য সূত্রে জানা যায়, ইলিশের অভয়াশ্রম ও প্রজনন স্থল খ্যাত পটুয়াখালীর কলাপাড়ার আন্ধারমানিক নদীর সোনাতলা মৌজার এসএ ২ নং সিটভ‚ক্ত ডুবোচরের অন্তত: সাড়ে সাত একর জমি বিক্রী করে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় একটি সংঘবদ্ধ চক্র। সরকারের নদী শ্রেনীর বিপুল পরিমান এ জমি স্থানীয় ভুমি অফিস ম্যানেজ করে ভুয়া বন্দোবস্ত কেস, এসএ খতিয়ান, দাগ, সহিমোহর পর্চা, নাম সংশোধন, বিএস ও ডিপি খতিয়ান সৃষ্টি করে চক্রটি। যার ৪৬ বছরের ভ‚মি উন্নয়ন কর একত্রে নিয়ে খাজনা দাখিলা দেয় তহশিলদার। এবং দু’টি সাব কবলা দলিল রেজিষ্ট্রীর করে সাব রেজিষ্ট্রার।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, আন্ধারমানিক নদীর মধ্যে ডুবোচর ভুমি অফিসের যোগসাজশে ভুয়া সেটেলমেন্ট কেস ৪৪কে/৫২-৫৩ ও ৫০কে/৬৬-৬৭’র বিপরীতে সাড়ে সাত একর জমির বন্দোবস্ত কাগজ তৈরী করা হয় উপজেলার তুলাতলি গ্রামের মোন্তাজ উদ্দীন মৃধা’র কন্যা, মৃত উমর আলী খান’র স্ত্রী দুস্থ আম্বিয়া খাতুন’র নামে। যার তফসিল, কলাপাড়াধীন ২৩ নং সোনাতলা মৌজা, এসএ-৫৯১/১ নং খতিয়ান, বার্ষিক খাজনা মং ২৮/৫০ পয়সা, দাগ নং- ১৭৬/১১৮৬ ও ১১৮৭, মোট জমি ৭.৫০ একর, যা সোনাতলা মৌজার এসএ ২ নং সিটভ‚ক্ত আন্ধারমানিক নদীর এসএ ১১৮৬/১১৮৭ দাগ। যার বিপরীতে সৃষ্টি করা হয় ৩৯২২ ও ৩৯২৩ বিএস দাগ। কলাপাড়া সহকারী কমিশনার ভ‚মি অফিসে খাস খতিয়ানের রেজিষ্ট্রারে এসএ ৫৯১/১ খতিয়ান ও ১৭৬/ ১১৮৬ ও ১১৮৭ দাগের অস্তিত্ব নেই। কিন্তু সার্ভেয়ার শাখার বন্দোবস্ত কেস খতিয়ানের রেজিষ্ট্রারের মাঝ বরাবর সোনাতলা মৌজার শুরুতে সাদা কাগজ আঠা দিয়ে লাগিয়ে আম্বিয়া খাতুন’র নামে অবিকল এসএ ৫৯১/১ খতিয়ান ও ১৭৬/ ১১৮৬ ও ১১৮৭ দাগে’র অস্তিত্ব রয়েছে। এছাড়া পটুয়াখালী কালেক্টরেট অফিসের রেকর্ড রুম শাখা’র দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: মাহবুবুল ইসলাম’র স্বাক্ষর জাল করে ১১-১০-১৮ তারিখ লেখা সহিমোহর পর্চা সৃষ্টি করা হয়েছে। এবং দিয়ারা সেটেলমেন্ট অপারেশন, বরিশালের আপত্তি অফিসার মো: মনিরুল ইসলামের স্বাক্ষর জাল করে সৃষ্ট ২৫-০৯-০৭ তারিখ লেখা বিএস হাত পর্চা সৃষ্টি করা হয়েছে। এরপর ১৩৭৯ থেকে ১৪২৫ পর্যন্ত ৪৬ বছরের ভ‚মি উন্নয়ন কর একত্রে নিয়ে আম্বিয়া খাতুন’র নামে খাজনা দাখিলা প্রদান করা হয়। যার প্রেক্ষিতে ২০৫২/১৯ ও ২০৫৩/১৯ পৃথক দু’টি সাব কবলা দলিল রেজিষ্ট্রীতে আন্ধারমানিক নদীর ডুবোচরের ওই সাড়ে সাত একর জমি মোটা অংকে ক্রয় করে নেন ওয়াই কে জেড কনষ্ট্রাকশন সলিউশন লি:, পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালমান আহমেদ। অথচ ভ‚মি অফিসের ১নং রেজিষ্ট্রারে এসএ ৫৯১/১ খতিয়ান ও ১৭৬/ ১১৮৬ ও ১১৮৭ দাগের কোন অস্তিত্ব নেই।

এদিকে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের অন্তরালে কলাপাড়া ভ‚মি অফিস থেকে ৪২ বিত্তবানের নামে ২৫ কোটি টাকা মূল্যের ৭২ একর খাস জমির বন্দোবস্ত কবুলিয়ত রেজিষ্ট্রীর ঘটনা গনমাধ্যমে প্রকাশের পর জেলা প্রশাসন তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। তদন্ত কার্যক্রমের রিপোর্ট বের না হতেই ইউএনও আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বাদী হয়ে এ ঘটনায় সার্ভেয়ারকে প্রধান আসামী করে অজ্ঞাতনামা আসামীদের নামে ফৌজদারী মামলা দায়ের করেছেন। অথচ মোটা অংকের লেনদেনে তাঁর স্বাক্ষরেই সবগুলো বন্দোবস্ত কবুলিয়ত রেজিষ্ট্রী হয়েছে। যদিও তার দাবী তাঁর স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে। সাব রেজিষ্ট্রারের বক্তব্য, প্রতিটি বন্দোবস্ত কেসে ইউএনও’র সঠিক স্বাক্ষর ছিল। তবে ৭২ একর খাসজমি রেজিষ্ট্রী কান্ডে আর কে কে জড়িত? এমন প্রশ্ন এখন দেশের সাধারন মানুষের।

কলাপাড়া সহকারী পুলিশ সুৃপার ও তদন্ত কমিটির সদস্য মো: আজাদুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় আসামী সার্ভেয়ার হুমায়ুন গ্রেফতার হয়েছে, তদন্ত চলছে, অতি শিঘ্রই আমরা তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করবো।

কলাপাড়া এসি ল্যান্ড আবুবক্কর সিদ্দিকী বলেন, তদন্ত চলমান রয়েছে, প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিষয়টির ব্যাপারে সত্যতা জানা যাবে।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেন বলেন, ৭২ একর খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়ার ঘটনায় এখনও তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়নি তদন্ত কমিটি। প্রতিবেদন পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া আন্ধারমানিক ডুবোচর বন্দোবস্ত সংক্রান্ত বিষয়টি তিঁনি দেখবেন বলে জানান।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone