রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:১৮ অপরাহ্ন

সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে প্রাণী হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যাহত 

মোঃআমান উল্লাহ, কক্সবাজার
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট, ২০২২

কক্সবাজার জেলা প্রাণি  হাসপাতালটি  সংস্কার এবং রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে  জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে।   জেলা ভেটেনারি অফিসার ডাঃ শাহাবুদ্দিন জানান, জেলা প্রাণী হাসপাতালের নামে  কোন ওষুধপত্র বরাদ্দ নেই, এমনকি  হাঁস-মুরগি গবাদি পশুর রোগ প্রতিরোধে কোন ভ্যাকসিন সরবরাহ নেই। উপজেলা প্রাণী  হাসপাতাল হতে নামে মাত্র স্বল্প পরিমাণ ঔষধ বরাদ্দ দেয় ।

জেলা প্রাণি   হাসপাতালটি কোন কাজে আসছে না বলে এমন অভিমত প্রকাশ করেছেন ডেইরি ও পোল্ট্রি খামারিরা ।

জানা যায়, ১৯৯৬ সালে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় কক্সবাজার জেলা প্রাণি  হাসপাতালটি চালু করে। এটি কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের  লিংক রোড নামক স্থানে গড়ে ওঠেছে।সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে, জেলা হাসপাতালটি অযত্ন-অবহেলায় পড়ে রয়েছে। নেই কোন বাউন্ডারি ওয়াল। বলতে গেলে অরক্ষিত। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না থাকায় হাসপাতাল ভবনটি জরাজীর্ণ হয়ে নষ্ট হবার পথে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জেলা প্রাণী হাসপাতালে ল্যাবরেটরী  নেই। নেই কোন ল্যাব টেকনিশিয়ান। জেলা ভেটেনারি সার্জনের পদটি হাসপাতাল চালু হওয়ার পর থেকে শূন্য। এমন কি অফিস পিয়ন ও অফিস সহকারি পর্যন্ত নেই। হাসপাতালে গাড়ি ও  ড্রাইভার থাকার কথা থাকলেও তাও নেই। এই হচ্ছে জেলা প্রাণি হাসপাতালের দৃশ্য।

উপসহকারী  প্রাণি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা তাহের উদ্দিন জানান, হাসপাতালে  রোগাক্রান্ত গরু ছাগল হাঁস মুরগি নিয়ে আসলে আমরা সাধ্যমত চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি । আমাদের কোনো গাফিলতি নাই ।

সচেতন মহলের মতে, জেলা প্রাণি হাসপাতাল নামে থাকলেও তেমন কোন সুযোগ সুবিধা নেই। যে হাসপাতলে হাঁস-মুরগি গবাদি পশুর  ভ্যাকসিন থাকেনা বা ঔষধ সরবরাহ নেই তা খুবই দুঃখ জনক। তাদের দাবী ভ্যাকসিন ও পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ সহ  জনবল নিয়োগ দিয়ে গবাদিপশু ও হাঁস মুরগি মড়ক রোগের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য।  

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতালটি চালু হওয়ার পর থেকে অর্থাৎ দীর্ঘ ২৬ বছর জেলা  ভেটেনারি অফিসার পদটি শুন্য   থাকলেও চলতি বছর ফেব্রুয়ারি মাসে ডাক্তার শাহাবুদ্দিনকে উক্ত পদে পদায়ন করা হয়।

জেলা ভেটেনারি অফিসার ডাক্তার শাহাবুদ্দিন বলেন, জনবলের অভাবে গবাদিপশুর  চিকিৎসাসেবা প্রত্যাশা অনুযায়ী দেওয়া যাচ্ছে না। আমি সহ মাত্র  দু জন লোক দিয়ে হাসপাতালটি চলছে ।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, জরুরী ভিত্তিতে  হাসপাতালে ল্যাবরটরি চালু করে  ল্যাব টেকনিশিয়ান সহ জনবল নিয়োগ দিয়ে ভ্যাকসিন সরবরাহ ও পর্যাপ্ত ঔষধ বরাদ্দ দেয়া হলে জনগন আশানুরুপ গবাদিপশুর চিকিৎসা পাবে।

গবাদিপশুর মালিক ও পোল্ট্রি  ডেইরি খামারীগণ জেলা প্রাণি  হাসপাতালে জনবল নিয়োগ সহ ভ্যাকসিন ও ওষুধ সরবরাহ করার জন্য উর্ধতন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে।  ।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone