সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন

বরগুনায় চলছে বাস ধর্মঘাট,  জনসাধারণের ভোগান্তি

তালুকদার মোঃ মাস্উদ, বরগুনা জেলা সংবাদদাতা
  • Update Time : সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

বরগুনায় চলছে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘাট। বরগুনা-বাকেরগঞ্জ সড়কে ঢাকা-বরগুনা রুটের বাস চলাচলের দাবিতে এ ধর্মঘট পালন করছে বরগুনা জেলা পরিবহন পরিচালনা কমিটি। সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ভোর ৬টা থেকে এ ধর্মঘট শুরু হয়।

এদিকে ধর্মঘটে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিজীবীসহ সাধারণ যাত্রীরা। অনেকেই পায়ে হেঁটে গন্তব্যের উদ্দ্যেশে যেতে দেখা গেছে। এছাড়া শহরের ভেতরে চলাচলরক সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও রিকশায় ভাড়া চাওয়া হচ্ছে কয়েক গুণ বেশি।

বরগুনা জেলা পরিবহন পরিচালনা কমিটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান টুকু ধর্মঘটের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বরগুনা জেলা পরিবহন পরিচালনা কমিটির এক সভায় দূরপাল্লার পরিবহন বরগুনার কাউন্টার ইনর্চাজরা বাস চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রায় দুই মাস ধরে বরগুনা-বাকেরগঞ্জ সড়ক দিয়ে ঢাকা-বরগুনা রুটের যাত্রীবাহী বাস চলাচল বাধা দেওয়া হচ্ছে। ফলে বাসগুলো পটুয়াখারীর সুবিদখালী ও আমতলী ফেরিপার হয়ে বরগুনায় চলাচল করছে। এতে নির্ধারিত সময়ের চেয়ে তিন-চার ঘণ্টা বেশি সময় লাগছে পরিবহনগুলোর গন্তব্যে পৌঁছাতে। ফলে পদ্মা সেতুর সুফল কাজে লাগাতে পারছে না বরগুনা সদর ও তালতলী উপজেলার যাত্রীরা।

বরগুনা থেকে দূরপাল্লার পরিবহনের স্থানীয় কাউন্টার ইনচার্জ সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ বছর ধরে এই সড়ক দিয়ে সব প্রকার যানবাহন চলাচল করে আসছে। বরগুনা থেকে ফেরি ছাড়া ঢাকার সঙ্গে সড়ক যোগাযোগের একমাত্র সহজ মাধ্যম এই বরগুনা-বাকেরগঞ্জ সড়ক। এই সড়কে দূরপাল্লার পরিবহন চলাচলের জন্য বিআরটিএর অনুমতি না থাকায় বরিশালের রূপতলী বাসমালিক সমিতির নেতারা। তারা এই সড়কে দূরপাল্লার পরিবহন চলাচলে বাধা দিচ্ছেন এবং শ্রমিকদের নির্যাতন করছে। অনেক বছর ধরে এই পথে যানবাহন চলাচল করলেও স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হওয়ার পর থেকেই বরিশালের বাস মালিক সমিতির নেতারা বাকেরগঞ্জ থেকে বরগুনা ঢাকা বরগুনার চলাচলকারী পরিবহন চলাচলে বাধা দিচ্ছেন।

বরগুনা পরিবহন পরিচালনা কমিটির যুগ্ন আহ্বায়ক ইমাম হোসেন রোকন বলেন, সম্প্রতি বরগুনা-বাকেরগঞ্জ সড়ক দিয়ে ঢাকা-বরগুনা রুটের বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বরিশালের রুপাতলী বাস মালিক সমিতির মালিক ও শ্রমিকরা। ফলে বাসগুলো পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ এবং বরগুনা জেলার আমতলী ফেরি পার হয়ে বরগুনা থেকে ঢাকা এবং ঢাকা থেকে বরগুনা যাওয়া-আসা করছে। এতে ১০ ঘণ্টার মতো সময় লাগছে। ফলে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে ঢাকা মুখী যাত্রীরা। পাশাপাশি পদ্মা সেতুর সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এ রুটের যাত্রীরা। যাত্রী ভোগান্তি ও বরিশাল বাস মালিক সমিতিরি সেচ্ছাচারিতার কারণে আমরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছি।

বরগুনা জেলা পরিবহন পরিচালনা কমিটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান  বলেন, ‘আমরা অনেকদিন অপেক্ষা করেছি যাতে প্রশাসন বিষয়টি সমাধান করেন। রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি, পুলিশ প্রশাসন, জেলা প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। কিন্তু তারা কেউ বিষয়টিকে সমাধান করে দেননি। তাই বাধ্য হয়ে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেছি আমরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone