সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন

তানোরে ইউএনওর দপ্তরের চারবার এসির তার চুরি 

তানোর( রাজশাহী) প্রতিনিধি
  • Update Time : বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২

রাজশাহীর তানোর উপজেলা নির্বাহীর দপ্তরের এসির তার চারবার চুরি করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন ইউএনও। তিনি মঙ্গলবার দুপুরের পরে বেশকিছু মাদক সেবিদের বিরুদ্ধে সাজা দেওয়ার পর এসির তার চুরির কথা জানান। ফলে এসির তার চুরির ঘটনাটি ক্যাম্পাস পাড়ায় চান্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

জানা গেছে, চলতি বছরেই উপজেলা নির্বাহীর দপ্তরের এসির তার চুরি হয় পরপর চারবার। শুধু তাই না আরেক দপ্তরের তার চুরি হওয়ার কারনে তিনি এসি সরিয়ে ফেলেন। অথচ পুরো পরিষদ চত্বর সিসি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। থাকে আনসার চৌকিদার ও নৈশ প্রহরী তারপরও ইউএনওর দপ্তরের এসির তার চুরি হয়ে যাচ্ছে। কে বা কারা চুরি করছেন সেটাও কিনারা করতে পারছেন না উপজেলা প্রশাসন। 

বেশকিছু দিন আগে এক কর্মকর্তা জানান, চিন্তা করা যায় ইউএনওর দপ্তরের তার যদি একবার না চারবার চুরি করা হল। ইউএনওর দপ্তরে যদি চুরি হয় তাহলে সাধারন মানুষের জিনিসপত্রের নিরাপদ কোথায়। এসব হেরোইন সেবিরা চুরি করেছেন বলে সবার সন্দেহ। আর উপজেলা ক্যাম্পাসের পশ্চিমে ঠাকুর পুকুর গ্রামে হেরোইন, ইয়াবা ও গাজার ব্যবস্য চলে জম্পেশ ভাবে। উপজেলা ক্যাম্পাস সংলগ্ন এবং থানা থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দুরে হবে না, তাহলে যুগযুগ ধরে কিভাবে মাদকের কারবার চলে। এসব প্রশাসনের চরম ব্যর্থতা ছাড়া কিছুই না। ঠাকুর পুকুর মাদকের পুকুরে দীর্ঘ দিন ধরে রুপান্তর। মাঝে মধ্যে অভিযান, আবার রহস্য জনক কারনে থমকে যায়।

গত ২০ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকালের দিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর তানোর পৌর সদর থেকে বেশকিছু মাদক সেবীদের আটক করেন। তাদের বিরুদ্ধে নির্বাহী কর্মকর্তার ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে সাজা প্রদান করেন।

এসময় ইউএনও বলেন, মাদক তরুন সমাজকে ধ্বংস করে ফেলেছে। এর থেকে মুক্তি পেতে হলে সমাজের সর্বস্তরের জনগনকে মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। স্ব ইচ্ছায় জেলে যাওয়া এক হেরোইন সেবীকে লক্ষ করে বলেন, এরা আজ কোন পর্যায়ে গেছে, আমাকে বলছি টাকা দেন স্যার, না হলে মরে যাব, আমাকে টাকা দিতেই হবে, নইলে আমাকে জেলে দেন। এসব মাদক সেবীরাই আমার দপ্তরের চার বার এসির তার চুরি করেছেন। তারা মুখোশ পরে, সিসি ক্যামেরাতে যাতে ধরা না পড়ে এজন্য গভীর রাতকে তারা টার্গেট করে বলে আমাদের সন্দেহ। মাদকসেবী দের কাছে আমার দপ্তরের এসির কমপেশার তার নিরাপদ না, তাহলে গ্রামেগন্জে কি অবস্থা হতে পারে। যার কারনে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ সংস্থাকে বেশিবেশি অভিযান পরিচালনা ও জনপ্রতিনিধিদেরও এসব বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে একান্ত আহবান জানান এই কর্মকর্তা। 

Surfe.be - Banner advertising service

https://www.facebook.com/gnewsbd24

More News Of This Category
<script async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js?client=ca-pub-3423136311593782"
     crossorigin="anonymous"></script>
© All rights reserved © 2011 Live Media
কারিগরি সহযোগিতায়: মোঃ শাহরিয়ার হোসাইন
freelancerzone